ঢাকা, রবিবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ২ পৌষ ১৪২৫ অাপডেট : ১৭ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২৭ নভেম্বর ২০১৮, ১৭:২৯

প্রিন্ট

ভার্চুয়াল জগতের নিন্দুক

ভার্চুয়াল জগতের নিন্দুক
নৌশিন আহম্মেদ মনিরা

হুমায়ুন আহমেদ এর যেমন পাগলা ভক্ত আছে, তেমনি উনার অনেক নিন্দুক ও আছে। বিশেষ করে বেশির ভাগ মানুষ তার উনার স্ত্রী শাওন কে নিয়েই মাথা ব্যথা। উনি কেন মেয়ের বয়সী একজন কে বিয়ে করলেন, এই নিয়ে লোকে সমালোচনার শেষ নেই, বেশিরভাগ মানুষই দেখি উনার বিয়ে নিয়েই উনাকে গালি দেয়, এমন অনেকেই আমার ফ্রেন্ডলিষ্টেও আছে।

কিন্তু সবাই এটা ঠিকই জানে যে ভাগ্য বলে কিছু আছে। আর যার ভাগ্য যেখানে লিখা তার সেখানেই বিয়ে হবে।

আরেক দিকে, সাকিব আল হাসান এর যেমন পাগলা ভক্ত আছে, তেমনি তার অনেক বেশি নিন্দুক। নিন্দুক হওয়ার কারণ, সাকিব আল হাসান দেখতে তো অসুন্দর, তার বউ কেন এত সুন্দর। কেন শিশির সাকিব কেই বিয়ে করলো। সাকিবের বিয়ের পর থেকেই বেশির ভাগ মানুষ তার সুন্দরী বউ নিয়ে হিংসায় মরে যাচ্ছে। অথচ সে আমাদের বাংলাদেশের একজন গৌরব। অথচ এই বাংলাদেশীরাই তাকে মূল্যায়ন করতে পারছেনা, আফসোস।

তার ফেসবুক কমেন্ট বক্সে যত রকম গালি আছে যত রকম অশ্লীলতা মানুষ ধারণ করেছে সারাজীবন ধরে, সবই ফুটে উঠেছে। কথায় আছে ব্যবহারে বংশের পরিচয়। কেন সাকিব অহংকার দেখাবেনা? এত নোংরা কমেন্ট আর অশ্লীল গালি গালাজ করা বাংলাদেশীদের সাথে? তাদের কে তো পাত্তা না দেওয়ারি কথা। তারা পাত্তা পাওয়ার যোগ্যই না।

এই দেশ নোংরামি করতে জানে, কিন্তু ভালোবাসতে জানেনা, শ্রদ্ধা সম্মান প্রদর্শন করা তারা শিখেনি। নিজে না পেলে অন্যকে তারা পেতে দিবেনা, তাদের মন মানসিকতা এত নিচু।

বাংলাদেশ থেকেই কেউ উঠে আসতে পারছেনা নতুন কোন প্রতিভা নিয়ে। কারণ বাংলাদেশীরা এমন এক জাতি তার নিজেরই কিন্তু কোনো খবর নেই, সারাক্ষণ অন্যের খবরদারি করাই যেন তাদের কাজ, ছেলে মেয়ে উভয়েই আগে বাস্তব জীবনে কুটনামি করতো আর এখন কুটনামি করে ভার্চুয়াল জগতে।

ফেসবুকে আপনার একজন ছেলের লিখা ভালো লাগেনি, কিংবা একজন মেয়ের লিখা ভালো লাগেনি তা এড়িয়ে চলুন। তবুও নিজের বংশের পরিচয় দিতে আসবেন না এখানে। তার ব্যক্তিগত ব্যাপারেও নাক গলাতে আসবেন না।

আর তাছাড়া লিখালিখি করে তারা খুব ভাল করেই জানে তার লিখার সঠিক সময় কোন টা, কিংবা তার লিখার ফিক্সড টাইম কোন টা। তবুও অন্তত কমনসেন্সহীন এর মত বলবেন না যে,আপনি কি সারাক্ষনই সারাদিনই লিখালিখি করেন? আরে, আপনি কি পাগল নাকি? কোনো মানুষ সারাক্ষণ সারাদিন লিখালিখি করতে পারে? মাথায় কমন সেন্স বলে কিছু নাই? আপনারা মাথায় কি নিয়ে ঘুরেন? আজাইরা সব কিছুই তো বুঝেন, সামান্য এটা বুঝেন না, লিখা গুলি তো কাল কের ও হতো পারে, কিংবা যখন অবসর সময় তখনের ও তো হতে পারে? এসব মাথায় নাই? খারাপগুল ঠিকই মাথায় রাখতে পারেন। সারাদিন কিভাবে মানুষ লিখে?

অবশ্য আপনাদের এটা ভাবা স্বাভাবিক, কেননা, সারাদিনই তো আড্ডা বাজি ছেলে/মেয়ে নিয়ে ঘুরেন, সময় পার করেন নানা রকম অপ্রয়োজনীয় কাজ করে। তাই যারা লিখছে তাদের কে উপহাস করতে অনেকের বিবেকে বাধেনা।

কখনো ছেলে বিরুদ্ধে এ লিখা পাবেন কখনো বা মেয়ের পক্ষে লিখা পাবেন, কিংবা কখনো মেয়ে বিরুদ্বী। তাই বলে একজন মানুষ এর পক্ষে সম্ভব না সব সময় বিরুদ্ধে লিখা, বা লিখা তেল মেরে লিখা। কারণ ছেলে মেয়ে এখন সমান সমান হয়ে গেছে এই দুনিয়াতে। ছেলে টা যেমন সিগারেট খাচ্ছে তেমনি মেয়েরাও সিগারেট খাচ্ছে। ছেলেরা যেমন জনপ্রিয় খেলোয়াড় এর কমেন্ট বক্সে গালি দিচ্ছে তেমনি মেয়েরাও সেইম গালি দিচ্ছে।

আগে মেয়ে বলতে বুঝাতো কোমলমতী, ঘরের লক্ষী। কিন্তু এখন মেয়েরা আর মেয়ে থাকতে চায় না, তারা পুরুষ এর মত জীবন চায়, তাদেরও এখন পুরুষ এর মত চলাফেরা করার সুযোগ চাই। আর মেয়েরা তো আছে তাদের পক্ষে নিয়ে লিখলে অনেকেরই খারাপ লাগে তখন বলবে, সে ছেলেদের পাগল করছে। আবার বিপক্ষ নিয়ে লিখলে অনেকেই বলবে, মেয়েটা মেয়ে জাতেরই না।

মেয়ের বিরুদ্ধে লিখলে কিছু পুরুষ ও বলে, মেয়ে হয়ে মেয়েদের নিচে নামাচ্ছে। হয়ত গুটি কয়েক পুরুষ আমাকে বাহবা দিবে, তবুও অধিকাংশ ছেলের এটাও সহ্য না যে, মেয়ে হয়ে কেন মেয়ের বিপক্ষে লিখলাম। সমস্যা তখনি হয় যখন তারা সত্যটা হজম করতে পারেনা। নিজের সাথে কোনো লিখা মিলে গেলে তার মনের মধ্যে আগুন ধরে যায়।

মনে রাখবেন লিখালিখি কোনো মডেলিং নয়, কোনো রকম সৌন্দর্য্যের ব্যবসাও নয় যে এখানে যে লিখছে তাকে আপনার দেখতেই হবে, তার চেহেরা কত সুন্দর এটা আপনাকে দেখতেই হবে, লিখালিখি নিজেকে আড়ালেও রেখেও করা যায়, নিজের নাম গোপন করেও করা যায়,তবুও মাথায় এই কমনসেন্স তো থাকার কথা, নিজেকে হাইড করে কি লাভ অমুকের? কিংবা কি লাভ ফেসবুকে লিখার? টাকা দেয় কেউ এখানে? দেয়না? কেন লিখে সে? এটা প্রশ্ন জাগেনা? কারণ প্রশ্নের উত্তর টা হলো, এটাই তার প্রাণ এটাই তার বিনোদন। আর এটাতেই তার নিশ্বাস। যে কেউ এটা কেড়ে নেওয়া মানে তার মনের মৃত্যু।

তবুও এত ভালো ভাবে সহজে কিছু গ্রহণ করতে পারেন না বলেই আজ বর্তমান আপনাদের কে আগের বিখ্যাত মনীষীগন ও অগ্রিম গালি দিয়ে গেছে।

বাংলাদেশ জার্নাল/এনএম

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত
close
close
close