ঢাকা, সোমবার, ২৪ জুন ২০১৯, ১০ আষাঢ় ১৪২৬ অাপডেট : কিছুক্ষণ আগে English

প্রকাশ : ১০ জানুয়ারি ২০১৯, ১৩:০২

প্রিন্ট

লাল নদী সবুজ পাহাড়ের সারান্ডা

লাল নদী সবুজ পাহাড়ের সারান্ডা
জার্নাল ডেস্ক

ব্যস্ত নাগরিক জীবনের ক্লান্তি দূর করতে প্রকৃতির নিবিড় সান্নিধ্যের চেয়ে উত্তম আর কিছু নেই। পাহাড়,নদী, অরণ্যের মাঝে যেন নিজেকেই নতুন করে আবিস্কারের সুযোগ মেলে।

দেশের ভেতর বিভিন্ন ভ্রমণ-গন্তব্য তো আছেই। চাইলে পাশের দেশ ভারতেও যেতে পারেন ভ্রমণে। কলকাতা থেকে রেল পথে মাত্র সাত ঘণ্টায় আপনি যেতে পারবেন রক্তাভ নদী ও পাহাড় ঘেরা সারান্ডার জঙ্গলে।

সারান্ডার যে দিকে তাকাবেন, শুধুই পাহাড়। তাদের উচ্চতা কম, ঘন জঙ্গলে ঢাকা। এই বিস্তীর্ণ পাহাড়শ্রেণি ও জঙ্গলের বুক চিরে বয়ে গেছে খরস্রোতা রক্তাভ কারো নদী। যা সৃষ্টি করেছে বিভিন্ন পাহাড়ের কোল থেকে নেমে আসা অসংখ্য জলপ্রপাত।

ঝাড়খণ্ডের পশ্চিম সিংভূম জেলা থেকে শুরু করে ওড়িশার কেওনঝাড় জেলা পর্যন্ত প্রায় ৮২০ বর্গ কিলোমিটার অঞ্চল জুড়ে বিস্তৃত লৌহ আকরিকে সমৃদ্ধ লাল পাথুরে জমি, ঘন জঙ্গল, পাহাড় রাশি ও খরস্রোতা নদী মেশানো অঞ্চলটিই হল সারান্ডা ফরেস্ট, যা সাতশো পাহাড়ের দেশ এবং এশিয়ার বৃহত্তম শাল গাছের জঙ্গল।

এই জঙ্গল এক সময় মাওবাদীদের দখলে ছিল। এখন আর সে সমস্যা নেই। জঙ্গলে পশুপাখি অনেকই রয়েছে যেমন ভাল্লুক, লেপার্ড, হাতি। কিন্তু জঙ্গলের পরিধি ও ঘনত্ব খুব বেশি হওয়ায় তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ হ‌ওয়ার সুযোগ খুবই কম।

এখানে আছে সারান্ডা সাফারি রিসর্ট। রিসর্টটি বেশ খোলামেলা, পাশ দিয়ে বয়ে গেছে কারো নদী। নদীর ওপারেই ঘন জঙ্গল। নদীর অনর্গল বয়ে চলার শব্দ মন ভাল করে দেয়ার জন্য যথেষ্ট।

এখানে প্যাকেজ সিস্টেম। ব্রেকফাস্ট থেকে ডিনার, সঙ্গে ৩টা সাইটসিন এবং বড়বিল স্টেশন থেকে যাতায়াত নিয়ে ৩ রাত ৪ দিনের মাথাপিছু খরচ পড়বে মাত্র ৬ হাজার টাকা (ভারতীয় মুদ্র)। গ্রুপে ৬-৭ জন থাকলে সেটা কিছুটা কমও পরতে পারে। অন্যান্য জায়গায় যাওয়ার ভাড়া বা জঙ্গলে নাইট সাফারি করার ভাড়াও আলাদা। খাবারের পরিমাণ যথেষ্ট এবং স্বাদ ভালই। মিনারেল ওয়াটারের বোতল রাখুন সঙ্গে। স্থানীয় জল সহ্য নাও হতে পারে।

সারান্ডায় ঘুরতে যাওয়ার আদর্শ সময় অক্টোবর থেকে মার্চ। পাহাড়ি জায়গা বলে গরমকালে প্রচণ্ড গরম পড়ে এবং বর্ষাকালে এই কারো নদী হয়ে ওঠে ভয়ংকর। অন্য দিকে, শীতের রাতে জমিয়ে ঠান্ডা লাগে। তাপমাত্রা থাকে ৪ থেকে ৬ ডিগ্রি। আগুনের সামনে বসে বার্বিকিউ খেতে খেতে সেই ঠান্ডাটা বেশ উপভোগ্য।

আরকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত
close
close