ঢাকা, সোমবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৬ ফাল্গুন ১৪২৬ অাপডেট : ২২ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৫:৪৮

প্রিন্ট

ভেজাল ওষুধ চক্রের ৫ সদস্য আটক

ভেজাল ওষুধ চক্রের ৫ সদস্য আটক
অনলাইন ডেস্ক

রাজধানীতে অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন কোম্পানির ভেজাল ওষুধ ও তৈরির সরঞ্জামসহ ৫ জনকে আটক করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ।

আটককৃতরা হলেন, আবদুস সোবাহান, নাইমুর রহমান ওরফে তুষার, রিয়াজুল ইসলাম ওরফে মৃদুল, নারগিছ বেগম ও ওয়াহিদ।

রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থানা এলাকা থেকে শনিবার তাদেরকে আটক করা হয়।

রোববার ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানান ডিএমপি’র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ডিবি) আবদুল বাতেন পিপিএম।

আটকদের কাছ থেকে প্রিন্টার মেশিন, রংয়ের কৌটা, তৈরির ও মেয়াদ উত্তীর্নের তারিখ, মূল্য, ব্যাচ নং ইত্যাদি লেখাসহ বিভিন্ন প্রকার সিল, Jayson কোম্পানির পানির বোতল 5 ml-৩০০ পিচ, সেক্স পাওয়ার ক্যাপসুল ৮৪ হাজার পিস, Actrapid 10 ml ৬৫ পিচ ইনসুলিন, Mixtard 30 ml ৫ পিচ ইনসুলিন, জি পেথিডিন ইনজেকশনের খালি কাঁচের বোতল-১৬২৫ টি, একটি এয়ার হটগান, জি পেথিডিন ইনজেকশনের প্লাস্টিকের ট্রে ছোট ১ বস্তা, গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিক্যালস লি. লেখা জি পেথিডিন ইনজেকশনের ফুয়েল পেপার (স্টিকার) ১ রোল, প্রিমিয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস লি. এর Alat লেখা ওষুধের মোড়ক ইত্যাদি জব্দ করা হয়।

অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ডিবি) বলেন, এই চক্রটি ভেজাল ওষুধ বানিয়ে বিভিন্ন নামিদামি কোম্পানির মোড়ক ব্যবহার করে মানুষের সাথে প্রতারণা করে আসছিল।

ওষুধের মেয়াদ উত্তীর্ণ হলে তারা নিজেরাই সিল মেরে মেয়াদ বাড়িয়ে নিতো। এই চক্রটি সাধারণত অপেক্ষাকৃত ছোট ফার্মেসিতে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ওষুধ সাপ্লাই দিয়ে থাকে। সাধারণত নিম্ন আয়ের মানুষের বসবাসস্থল টার্গেট করে ভেজাল ওষুধ সাপ্লাই দেয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, আসামি আবদুস সোহাবান দীর্ঘদিন একাধিক ওষুধ কোম্পানির নামে নকল ওষুধ তৈরি করে আসছিলো। তাছাড়া মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ বিভিন্নভাবে সংগ্রহ করে মেয়াদ, ব্যাচ নং, মূল্য ইত্যাদি নতুনভাবে সংযোজন করে বাজারজাত করতো।

বাংলাদেশ জার্নাল/আরকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত