ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ ২০২০, ১৭ চৈত্র ১৪২৬ আপডেট : ১ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২১:০৫

প্রিন্ট

রাস্তায় শিশুদের ইশারায় চলছে বাস

রাস্তায় শিশুদের ইশারায় চলছে বাস
জয়পুরহাট প্রতিনিধি

জয়পুরহাট কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল থেকে ছেড়ে যাওয়া সকল রুটের লোকাল বাসের হেলপাররা প্রায় শিশু-কিশোর। আর সেইসব অদক্ষ কিশোরদের 'ওস্তাদ হালকা যান', 'দ্রুত যান', 'ডানে-বামে যান' এমন নির্দেশনায় ছুটে চলছে বাসের ড্রাইভারেরা। এ কারণে ঘটছে অঘটন আর প্রতিনিয়ত রাস্তায় ঝরছে প্রাণ।

অপরদিকে যাত্রীরা এক স্থান থেকে অন্য স্থানে চলাফেরা করছে ঝুঁকির মধ্যেই। এসব অনিয়ম দেখার যেন কেউ নেই। বৈধ্য শ্রমিক যথেষ্ট থাকলেও রাস্তায় ইজিবাইকের কারনে আগের মত আর বাসে তেমন যাত্রী হয় না ফলে অল্প আয়ে সংসার চলা কষ্ট সাধ্য ব্যাপার শ্রমিকদের। এ কারণে অনেকেই এ পেশা ছেড়ে দিচ্ছেন।

একদিকে অল্প বয়সের ছেলেদের কথা মতো ড্রাইভার বাস চালাচ্ছে, অপরদিকে এত ছোট ছেলে রাস্তার নিয়ম-কানুনও জানে না। যে কোন সময় দুর্ঘটনা ঘটতেও পারে।

এসব বিষয় নিয়ে বাসযাত্রী অবসরপ্রাপ্ত এক সেনা কর্মকর্তা বলেন, এসব অনিয়ম দেখার জন্য লোক আছে। আসলে তারা এসব দেখতে পায় না। এসব লোকাল বাসের যাত্রীদের ঝুঁকিতেই চলাচল করতে হচ্ছে। কারণ প্রয়োজনের তাগিদে আমাদের গন্তব্যে যেতেই হয়।

একই বাসে ফিরছিলেন পাঁচবিবির উচাই গ্রামের এক গৃহবধূ। তিনিও জানালেন একই অভিযোগ।

বন্ধন বাসের ড্রাইভার আকবর হোসেন বলেন, আগে গাড়িতে যাত্রী বেশি ছিলো, কালেকশনও বেশি হত। বাস মালিককে দেওয়ার পর আমরাও ভালো টাকা পেতাম। রাস্তায় এখন রিকশা-ভ্যান ও ইজিবাইক বেশি হওয়ায় আগের মত যাত্রী পাওয়া যায় না। এখন মালিককে দেওয়ার পর আমরা যা পাই, তা দিয়ে সংসার চলে না। এ কারণে অনেকেই এ পেশা ছেড়ে দিচ্ছে।

জয়পুরহাট বাস শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী বলেন, জেলায় প্রায় পাঁচ হাজার বৈধ্য কার্ডধারী শ্রমিক থাকলেও আগের তুলনায় বাস-ট্রাকের আয় কমে যাওয়ায় অনেকেই পেশা পরিবর্তন করছে। রাস্তায় যানবাহন চালানোর জন্য অনেক সময় শিশু-কিশোরদের এ কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, যদিও এটা কিশোর আইনে বাধ্যবাদকতা আছে, তথাপি মালিকের অনেক টাকায় কেনা বাসটি লোকসানের হাত থেকে বাঁচাতে এমন কাজ করতে অনেক সময় বাধ্য হতে হচ্ছে।

বাংলাদেশ জার্নাল/এসকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত