ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৭ আশ্বিন ১৪২৭ আপডেট : ২ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২৯ মে ২০২০, ২৩:৪১

প্রিন্ট

চিনিকলের সেচপাম্প-রড চুরি, ২ মৃত ব্যক্তির নামে মামলা

চিনিকলের সেচপাম্প-রড চুরি, ২ মৃত ব্যক্তির নামে মামলা
গাইবান্ধা প্রতিনিধি

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে রংপুর চিনিকলের সেচপাম্প ও রড চুরির ঘটনায় বৃহস্পতিবার (২৮ মে) রাতে গোবিন্দগঞ্জ থানায় একটি মামলা (মামলা নং ৪২) করা হয়েছে। মামলার এজাহারে ছয়জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে । এই এজাহারে বুলবুল ও শিমুল নামে মৃত দুই ব্যক্তিকেও আসামি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় দেলোয়ার হোসেন (৪৫) নামে এক সাব-কন্ট্রাক্টরকে আটক করেছে পুলিশ। তিনি উপজেলার মহিমাগঞ্জ ইউনিয়নের বালুয়া আগপাড়া গ্রামের বাসিন্দা মৃত আব্দুস সালাম মিয়ার ছেলে।

এজাহার সূত্রে জানা গেছে, রংপুর চিনিকলের পানি পরিশোধনাগারের কাজের জন্য সেচপাম্প ও রড ক্রয় করে সংরক্ষিত এলাকায় রাখা হয়। গত ২৬ মে রাতের কোন এক সময় সেচপাম্প ও রড চুরি যায়। চুরি যাওয়া মালামাল বিভিন্নস্থানে খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে স্থানীয়রা চিনিকলের পূর্ব পার্শ্বে লাল বাবু বাসফোড়ের (মেথর) বাড়ির পাশ থেকে এক টন রড উদ্ধার করে। উদ্ধারকৃত রড স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রুবেল আমিন শিমুলের হেফাজতে রাখা হয়। এ ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান সাব-কন্ট্রাক্টর দেলোয়ার হোসেনকে ইউপি কার্যালয়ে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

তার দেয়া তথ্যমতে, চুরির ঘটনার সাথে দেলোয়ার নিজেও জড়িত বলে ইউপি চেয়ারম্যান জানান। খবর পেয়ে দেলোয়ারকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ।

স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, এ ঘটনায় চিনিকলের কিছু অসাধু ব্যক্তি জড়িত থাকায় ঘটনাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা চলছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রুবেল আমিন শিমুল ও চিনিকল ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের সভাপতি আবু সুফিয়ান সুজার নেতৃত্বে চোরের কাছ থেকে অনৈতিক সুবিধা নিয়ে প্রকৃত আসামিদের আড়াল করতে এবিএম ওয়াটার কোম্পানি লিমিটিডের সাইড ইঞ্জিনিয়ার তছলিম উদ্দীনকে দিয়ে ছয়জনের নাম উল্লেখ করে গোবিন্দগঞ্জ থানায় একটি চুরি মামলা করা হয়। মামলায় বুলবুল ও শিমুল নামে মৃত দুই ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে অভিযোগ অস্বীকার করে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রুবেল আমিন শিমুল বলেন, আমাকে মিথ্যা দোষারোপ করা হচ্ছে। আসামির কথা মত পুলিশ মামলা নিয়েছে। এখানে আমার কোনো সম্পৃক্ততা নেই।

মামলার বাদী তছলিম উদ্দীনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি এজাহারকারী হলেও আটক দেলোয়ার হোসেনের কথা মত এজাহারে আসামির নামগুলো এসেছে। এর পরিপ্রেক্ষিতেই মামলা করা হয়েছে।

চিনিকল ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের সভাপতি আবু সুফিয়ান সুজা বলেন, কেউ প্রতিহিংসা করে আমার নাম জড়ানোর চেষ্টা করছে। তদন্তেই প্রকৃত ঘটনা বেরিয়ে আসবে।

গোবিন্দগঞ্জ থানার ওসি একেএম মেহেদী হাসান বলেন, বাদি এজাহার দাখিল করেছে, সে মোতাবেক মামলা রুজু করা হয়েছে। সেখানে মৃত ব্যক্তির নাম থাকলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বাংলাদেশ জার্নাল/আর

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত