ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ১২ কার্তিক ১৪২৭ আপডেট : ৬ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ০১ অক্টোবর ২০২০, ১৪:৫৩

প্রিন্ট

ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাবে কক্সবাজারের ৪ লাখ ৭৯ হাজার শিশু

ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাবে কক্সবাজারের ৪ লাখ ৭৯ হাজার শিশু
প্রতীকী ছবি
কক্সবাজার প্রতিনিধি

কক্সবাজার জেলায় আগামী ৪ অক্টোবর থেকে ‍শুরু হচ্ছে প্রায় পক্ষকালব্যাপী ‘জাতীয় ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন’। ক্যাম্পেইন চলাকালে জেলার ৮ উপজেলার ৪ লাখ ৭৯ হাজার ৩৫৩ শিশুকে খাওয়ানো হবে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল।

আগামী ৪ অক্টোবর থেকে ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত সময়ের মধ্যে জেলার ১ হাজার ৯৫১টি টিকাদান কেন্দ্রে এই ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে।

এবার করোনা সঙ্কটের কারণে টিকাদান কেন্দ্রগুলোতে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনেরও প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। পাশাপাশি সচেতনতার জন্য পুষ্টিবার্তাও প্রচার করা হবে।

বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টায় কক্সবাজার জেলা ইপিআই স্টোরের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত ‘সাংবাদিক অবহিতকরণ সভায়’ ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন ডা. মহিউদ্দিন মো: আলমগীর এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘অতীতে জেলা পর্যায়ে এ ধরনের ক্যাম্পেইনগুলো একদিন চললেও এবার করোনা সঙ্কটের কারণে প্রায় ১২ দিন ধরে চলবে। যাতে স্বাস্থ্যবিধি মানা এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সম্ভব হয়। তাছাড়া এবার ক্যাম্পেইনের সমসূচিতেও কিছুটা পরিবর্তন আনা হয়েছে। প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে বেলা আড়াইটা পর্যন্ত ক্যাম্পেইন চলবে। স্বাস্থ্যকর্মীরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিশুদের টিকা খাওয়াবেন।’

ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন আরও বলেন, ‘স্বাস্থ্যঝুঁকি চিন্তা করে কোন অভিভাবক নিজেরাই সন্তানদের টিকা খাওয়াতে চাইলে সেই সুযোগও দেয়া হবে টিকদান কেন্দ্রে। শিশুর মা বা অভিভাবকদের প্রতি আমাদের অনুরোধ থাকবে তারা যেন মাস্ক পরে কেন্দ্রে আসেন এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলেন।’

ডা. মহিউদ্দিন মো. আলমগীর জানান, ক্যাম্পেইনে ৬ থেকে ১১ মাস বয়সি ৬২ হাজার ৪২৮ শিশুকে একটি করে নীল রঙের ক্যাপসুল এবং ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী ৪ লাখ ১৬ হাজার ৯২৫ শিশুকে লাল রঙের ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। গুরুতর অসুস্থ কোন শিশুকে এবং ৪ মাস আগে ভিটামিন এ ক্যাপসুল পেয়েছে এমন কোন শিশুকে টিকা খাওয়ানো হবে না।

তিনি আরও বলেন, ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন সরকারের অত্যন্ত মহৎ এবং ব্যয়বহুল উদ্যোগ। এ উদ্যোগের কারণে আজকাল আর দেশে রাতকানা রোগী দেখা যায় না। এটি অবশ্যই সরকারের স্বাস্থ্য বিভাগের বড় সফলতা। বিগত ক্যাম্পেইনে আমরা লক্ষ্যমাত্রার ৯৮ শতাংশের বেশি শিশুকে টিকা খাওয়াতে সক্ষম হয়েছি। এবার নিশ্চয় লক্ষ্যমাত্রা পূরণে সক্ষম হবো।

তিনি বলেন, আমাদের সচেতন থাকতে হবে যেন এই ক্যাম্পইনকে কেন্দ্র করে কোন গুজব যেন না ছড়ায়। শিশুদের জন্য ভিটামিন এ ক্যাপসুল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং নিরাপদ।

জেলা স্বাস্থ্য তত্বাবধায়ক সিরাজুল ইসলাম সবুজের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় ভিটামিন এ ক্যাপসুলের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে বক্তব্য রাখেন সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার ডাঃ সৌনম বড়ুয়া।

অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চ্যানেল আই ও দৈনিক আমাদের সময়ের এর কক্সবাজারস্থ স্টাফ রিপোর্টার সরওয়ার আজম মানিক, দৈনিক অবজারভার ও দৈনিক মানবকন্ঠের কক্সবাজার প্রতিনিধি ও সকালের কক্সবাজারের সম্পাদক ফরহাদ ইকবাল প্রমুখ।

বাংলাদেশ জার্নাল/এসকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত