ঢাকা, রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ আপডেট : ৩ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২৪ অক্টোবর ২০২০, ১৫:০২

প্রিন্ট

রংপুর অঞ্চলে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ নিয়ে শঙ্কা

রংপুর অঞ্চলে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ নিয়ে শঙ্কা
ফাইল ছবি
রফিকুল ইসলাম, রংপুর প্রতিনিধি

দফায় দফায় বন্যা আর অবিরাম বৃষ্টির ফলে এ বছর রংপুর অঞ্চলে আলু চাষে মারাত্মক প্রভাব পড়েছে। প্রতি বছর আলু চাষে কৃষি বিভাগের যে লক্ষ্যমাত্রা থাকে, সেই লক্ষ্যমাত্রা এবার পুরণ না হবার শঙ্কা দেখা দিয়েছে। ফলে এ বছরের রেকর্ড পরিমাণ বৃষ্টির ধকল সামনে নিতে হচ্ছে কৃষি বিভাগকে। সবকিছু ছাপিয়ে লক্ষ্য পূরণে সর্বাত্মক চেষ্টায় এখন কৃষি বিভাগ। তবে বছর শেষে সঙ্কট মোকাবেলায় আগাম কার্যকর প্রস্তুতি নেয়ার তাগিদ দিয়েছে ব্যবসায়ীসহ সংশ্লিষ্টরা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, গেল ২০১৯-২০ অর্থবছরে এ অঞ্চলে আগাম আলু চাষ হয়েছিলো ১২ হাজার ২৫ হেক্টর জমিতে। চলতি মৌসুমে এ পর্যন্ত মাত্র ৯৮৯ হেক্টর জমিতে আগাম আলু চাষ হয়েছে। পাঁচ দফা বন্যার পর ফের গত তিনদিন ধরে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। এর প্রভাবে আগাম আলু চাষ কম হচ্ছে বলে মনে করছে কৃষি বিভাগ।

রংপুর আবহাওয়া অধিদপ্তরের ইনচার্জ আবহাওয়াবিদ মোস্তাফিজার রহমান জানান, চলতি মাসের ১৮ ও ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টিপাত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে রংপুর অঞ্চলে। ফলে বৈরি আবহাওয়ায় কাঁদা ও ভেজা মাটিতে আলু চাষ বিঘ্নিত হবে। নতুন করে আলু চাষের জন্য জমি উপযোগী করে তুলতে অনেক কাঠখড় পোহাতে হবে আলু চাষিদের।

জানা গেছে, গত ২০১৯-২০ মৌসুমে আগাম আলু চাষ হয়েছিল ১২ হাজার ২৫ হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে নীলফামারী জেলায় ৯ হাজার ৬৫০ হেক্টর এবং রংপুর জেলায় দুই হাজার ৩৬৫ হেক্টর জমিতে আগাম আলুর আবাদ হয়েছিল। কিন্তু পাঁচ দফা বন্যার কারণে এবার আলু চাষ ব্যাহত হয়। চলতি ২০২০-২১ মৌসুমের ১৪ অক্টোবর পর্যন্ত মোট আলু চাষ হয়েছে মাত্র ৯৮৯ হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে নীলফামারী জেলায় আলুর আবাদ হয়েছে ৯৮১ হেক্টর এবং রংপুরে আবাদ হয়েছে ৮ হেক্টর।

সরেজমিন দেখা গেছে, বন্যার পানি নেমে যাওয়ার সাথে সাথে দেরিতে হলেও রংপুর অঞ্চলের আগাম আলু চাষিরা বীজ রোপণ এবং জমি পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। আরো দুই সপ্তাহ পর্যন্ত আগাম আলু চাষের কাজ চলবে বলে জানিয়েছে কৃষি বিভাগ।

কৃষকরা জানিয়েছেন, এই মাসজুড়ে আগাম আলু চাষে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন তারা। কিন্তু বন্যার কারণে বেশিরভাগ আলুচাষি নির্দিষ্ট সময়ে কয়েকবার জমি পরিচর্যা করেও বীজ রোপণ করতে পারেনি। যারা করেছেন তাও আবার পানিতে ভেসে গেছে।

নীলফামারীর জলঢাকার আগাম আলুচাষি খাজুর আলী জানান, আমার ৫ একর জমিতে আগাম আলু চাষ করার প্রস্তুতি নিয়েছিলাম। বন্যার কারণে তা রোপণ করা হয়নি।

রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার গজঘণ্টা ইউনিয়নের কৃষক এনামুল হক জানান, কয়েকবার জমি ঠিক করেও বন্যা ও বৃষ্টির কারণে আগাম আলু রোপণ করতে পারিনি। এ বছর ২ বিঘা জমিতে ক্যারেজ জাতের আলু আবাদ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আলু বীজের (৮৫ কেজি) প্রতি বস্তা কিনতে তার খরচ হয়েছে এক হাজার ৮০০ টাকা।

একাধিক কৃষকের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, বন্যার কারণে আবাদের সমস্যা না হলে আগামী ৪ থেকে ৫ দিনের মধ্যে বাজারে আগাম আলু পাওয়া যেত। ভালো দাম পাওয়ার জন্য কেউ কেউ ৪৫ থেকে ৫০ দিনের আগে আলু উত্তোলন করলেও মূলত আগাম আলু ৫৫ থেকে ৬০ দিন পর বাজারে আসে। এই আলু শুরুতে ১শ' টাকা কেজিতে বিক্রি হলেও নিয়মিত আলু আসার আগ পর্যন্ত আগাম আলুর কেজি ৫০ থেকে ৬০ টাকা দরে বিক্রি হয়। তাই ভালো দাম পাওয়ায় এ অঞ্চলে আগাম আলুর জমি প্রতি বছর বৃদ্ধি পাচ্ছে। আগাম আলু হিসেবে জনপ্রিয় জাতগুলোর অন্যতম হচ্ছে আলু-৭, গ্রানুলা এবং ষাইটা।

পীরগাছা উপজেলার দেউতি গ্রামের কৃষক আফজাল হোসেন জানান, এ বছর ৩ বিঘা জমিতে আগাম আলু আবাদ করার কথা ছিলো তার। এমনকি বন্যার কারণে তার রোপণকৃত কিছু জমির আলু নষ্ট হয়েছে। তাই পানি নেমে যাওয়ায় পুনরায় আলুর আবাদ নিয়ে বর্তমানে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন তিনি। গত বছর ৩ বিঘা জমিতে স্থানীয় জাত (সাদা আলু) আবাদ করেছিলেন। এতে বিঘা প্রতি ৮৫ কেজির ২ বস্তা আলুর বীজ লেগেছিলো। বিঘা প্রতি আলুর ফলন হয়েছিলো গড়ে ৬ বস্তা করে।

কৃষি অফিসের সংশ্লিষ্টরা জানান, তারা বিভিন্ন এলাকায় ছুটে চলছেন। জমির পানি ধীরে ধীরে নামতে শুরু করেছে। পানি নেমে গেলেও মাটিতে পর্যাপ্ত রস থাকায় কৃষকরা আলু চাষ করতে পারছেন না। তার ওপর ফের চারদিন ধরে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। জমিতে পানি না জমলে আশা করা হচ্ছে আগামী ৩০ অক্টোবরের পরেই ব্যাপক হারে জমিতে আলুর আবাদ হবে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিপ্তরের রংপুর আঞ্চলিক অফিসের ভারপ্রাপ্ত অতিরিক্ত পরিচালক মনিরুজ্জামান জানান, এ বছর অতিবন্যার কারণে কৃষিকাজ মারাত্মকভাবে ব্যাহত হয়েছে। আমরা সেই সঙ্কট কাটিতে উঠতে সব ধরণের চেষ্টা করছি। যাতে করে আলু উৎপাদনের যে লক্ষ্যমাত্রা আছে তা পূরণ করতে পারি। এ জন্য কৃষকদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।

রংপুর চেম্বার অফ কমার্স এর প্রেসিডেন্ট মোস্তফা সোহরাব চৌধুরী টিটু বলেন, প্রাকৃতির দুর্যোগ থাকবেই। এই দুর্যোগ মোকাবেলা করেই আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। সে কারণে নিতে হবে আগাম প্রস্তুতি। প্রস্তুতি নিলে সঙ্কট সমাধান করতে সহজ হবে।

বাংলাদেশ জার্নাল/এসকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত