ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১, ৩ আষাঢ় ১৪২৮ আপডেট : ৪৯ মিনিট আগে

প্রকাশ : ১০ মে ২০২১, ১৫:২৮

প্রিন্ট

গাজীপুরে শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষ

ঈদের ছুটি চাওয়ায় পুলিশের গুলি, আহত ২০

ঈদের ছুটি চাওয়ায় পুলিশের গুলি, আহত ২০
ছবি- প্রতিনিধি

গাজীপুর প্রতিনিধি

ঈদের ছুটি চাওয়ায় গাজীপুরের টঙ্গী ও কালিয়াকৈরের দুটি কারখানার পোশাক শ্রমিকদের ওপর গুলি চালানোর অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় ২০ জন শ্রমিক গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্যও।

আজ সোমবার ছুটি বাড়ানোর দাবিতে এই দুই কারখানার শ্রমিকরা সড়ক অবরোধ, বিক্ষোভ ও ভাঙচুর করেন। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে গেলে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পরে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

সংঘর্ষের সময় আহত শ্রমিকদের মধ্যে মামুন (২৭), রবি (২১), লতিফ (১৯), ইমরান (১৯), রুবেল (২২), রুবেল (২৪), রনি (২২), এহসানুল হক (৩৫), রাজীবুল (২৬), হাসান (২৬) কলি (২৪), নিজাম উদ্দিন (৩০), সমলা (২৫), ইয়াসমিন (২০), হাসিনা (৪০), সাব্বির (২২), সাবিনা (২৫), রিনা (২০) এর নাম জানা গেছে। তাদের মধ্যে ১১ জনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে।

এছাড়া আহত এএসআই রুবেলকে (সিটিএসবি, টঙ্গী পূর্ব থানা) টঙ্গীর শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বলে জানান হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ও করোনা’র ফোকাল পারসন মো. পারভেজ হোসাইন।

টঙ্গীর হামীম গ্রুপের পোশাক শ্রমিক দেলোয়ার হোসেন বলেন, সরকারিভাবে ঘোষিত তিনদিনের ছুটির পরিবর্তে শ্রমিকরা ১০ দশ দিনের ছুটি দাবি করে। কর্তৃপক্ষ ৭ দিনের ছুটি মেনে নেয়ার আশ্বাস দিলেও শ্রমিকরা সোমবার সকালে ১০ দিনের ছুটির দাবিতে বিক্ষোভ শুরু করে।

তিনি বলেন, এক পর্য়ায়ে আমাদের উপর নির্যাতন শুরু হয়। পুলিশ গিয়ে আমাদের ওপর হামলা ও গুলি করে। এতে আমাদের বেশ কয়েকজন শ্রমিক গুলিবিদ্ধ হন। তাদের টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

গাজীপুর শিল্পা পুলিশ (জোন-২) এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জালাল উদ্দিন জানান, টঙ্গীর মিলগেইট এলাকায় হামীম গ্রুপের পোশাক শ্রমিকরা সোমবার সকালে ১০ দিন ছুটির দাবিতে বিক্ষোভ শুরু করে। এক পর্যায়ে দুপুরের দিকে তারা কারখানায় ভাঙচুর করে পাশের ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে অবস্থান নিয়ে অবরোধ করে। এ সময় পুলিশ তাদের সরাতে গেলে শ্রমিকরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকে ছুঁড়তে থাকে। এ সময় প্রায় ২০ মিনিটের মতো ওই মহাসড়কে যান চলাচল বিঘ্নিত হয়।

প্রায় ৩৫ জন শ্রমিকসহ বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হন

তিনি বলেন, এক পর্যায়ে পুলিশ কয়েক রাউন্ড কাঁদানে গ্যাস ও রাবার বুলেট ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে এবং প্রায় আধঘণ্টা পর মহাসড়কে যানবাহন চলাচল শুরু করে।

টঙ্গী পশ্চিম থানার ওসি মো. শাহ আলম জানান, সংঘর্ষের সময় শ্রমিকরা আমাদের ওপর চড়াও হয়ে ইট-পাটকেল ছুঁড়লে আমাদের কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। পরে জীবন রক্ষার্থে পুলিশ কয়েক রাউন্ড রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাসসেল নিক্ষেপ করে। আহতদের টঙ্গীর শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ও করোনা ফোকাল পারসন মো. পারভেজ হোসাইন জানান, ওই সংঘর্ষের ঘটনায় রাবার বুলেটে আহত ২০ জন শ্রমিককে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এছাড়া আহত একজন পুলিশ সদস্যকেও প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

গাজীপুরে শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষ

অপরদিকে কালিয়াকৈর উপজেলার বিশ্বাসপাড়া এলাকার স্টার লিঙ্ক ডিজাইন লিমিটেড নামের কারখানা শ্রমিক আসমা খাতুন জানান, ওই কারখানার শ্রমিকরা সোমবার সকালে কাজে যোগ দিতে গিয়ে জানতে পারে তাদের ঈদের ছুটি তিনদিন দেয়া হয়েছে। খবরটি কারখানা শ্রমিকদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে ছুটি বৃদ্ধির দাবিতে শ্রমিকরা কাজ বন্ধ করে কারখানার সামনে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে অবস্থান নেয় এবং বিক্ষোভ শুরু করে। খবর পেয়ে শিল্পপুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে শ্রমিকদের বুঝিয়ে সড়কের পাশে নিয়ে যায়। শ্রমিকদের দাবি, তাদের কমপক্ষে ১২ দিনের ছুটি দিতে হবে।

গাজীপুর শিল্প পুলিশ পরিদর্শক মো. কমর উদ্দিন বলেন, কারখানার শ্রমিকরা ১২ দিনের ছুটি চাইলেও মালিক পক্ষের সঙ্গে কথা বলে ১০ দিনের ছুটি মঞ্জুর করলে তারা আন্দোলন ত্যাগ করেন। দুই কারখানা চত্বরেই অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

বাংলাদেশ জার্নাল/এসকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত