ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১, ৮ আষাঢ় ১৪২৮ আপডেট : ১ মিনিট আগে

প্রকাশ : ১৪ মে ২০২১, ০২:০৩

প্রিন্ট

স্পিডবোটে যাত্রী পরিবহন, শিবালয়ে ৭ জনের নামে মামলা

স্পিডবোটে যাত্রী পরিবহন, শিবালয়ে ৭ জনের নামে মামলা

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি

করোনা পরিস্থিতিতে মানিকগঞ্জের শিবালয়ের আরিচা ফেরিঘাটে সরকার ঘোষিত বিধিনিষেধ ​অমান্য করে স্পিডবোটে যাত্রী পরিবহন ও সরকারি কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগে শিবালয় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কুদ্দুসসহ ৭ জনের নামে মামলা করা হয়েছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) আরিচা শাখার বন্দর কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাসুদ পারভেজ বাদী হয়ে শিবালয় থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

মামলার আসামিরা হলেন- শিবালয় উপজেলার শিবালয় গ্রামের মৃত আলী আকবরের ছেলে মো: আলী আহসান মিঠু (৪৯), একই গ্রামের মৃত মঙ্গল শীলের ছেলে নকুল চন্দ্র শীল (৪৮) ও নুরে আলম সিদ্দিকি (৫২), বোয়ালীপাড়া গ্রামের আফছার উদ্দিনের ছেলে নজরুল ইসলাম বাবু (৫০) এবং অন্বয়পুর গ্রামের মৃত জয়নাল আবেদীনের ছেলে মো: আব্দুল কুদ্দুস (৫৫), জিন্নাহ্ (৪০) ও শহীদ।

জানা গেছে, বুধবার সকালে যাত্রী পারাপারের জন্য স্পিডবোট চলাচল শুরু হয়েছে; এমন খবর ছড়িয়ে পড়ে। কিন্তু তা সত্য নয় বলে নিশ্চিত করেছিলেন বিআইডব্লিউটিএ চেয়ারম্যান কমডোর গোলাম সাদেক।

গোলাম সাদেক বলেন, স্পিডবোট চলাচলের কোন অনুমতি দেয়া হয়নি। নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে গতকাল (বুধবার) সকাল থেকে আরিচা-কাজিরহাট নৌ রুটে অবৈধভাবে স্পিডবোটে যাত্রী পারাপার করছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কুদ্দুস ও যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আলী আহসান মিঠু।

খবর পেয়ে দুপুরের দিকে আরিচা বন্দর কর্মকর্তা মোহাম্মদ পারভেজ, সহকারী পরিচালক মোঃ শাহ আলম মিয়া ও পরিবহন পরিদর্শক অবৈধভাবে স্পিডবোট চালাতে নিষেধ করলে তাদের উপর হামলা, গালিগালাজ করাসহ সরকারি কাজে বাধা দেন উপজেলা আব্দুল কুদ্দুস, আলী আহসান মিঠুসহ তাদের সঙ্গে থাকা ১০/১২ জন। এ ঘটনায় আরিচা বন্দর ও পরিবহন কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাসুদ পারভেজ বাদী হয়ে রাতে শিবালয় থানায় তাদের আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত শিবালয় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কুদ্দুস বলেন, সকালের দিকে আরিচা বন্দর ও পরিবহন কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাসুদ পারভেজ অনুমতি দিলে আমরা ৫/৬টি স্পিডবোট চালিয়ে যাত্রী পারাপার করতে থাকি। পরে দুপরের দিকে বন্দর কর্মকর্তা তার লোকজন নিয়ে ঘাটে নিষেধ করতে আসলে আমাদের লোকজন তাদের সাথে উচ্চস্বরে কথা বলেন। অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেন, তাদের সাথে ধাওয়া হামলার ঘটনা ঘটেনি।

মামলার বাদী আরিচা বন্দর ও পরিবহন কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাসুদ পারভেজ বলেন, সরকারি বিধিনিষেধ অমান্য করে অবৈধভাবে স্পিডবোট দিয়ে যাত্রী পারাপার করছিল। খবর পেয়ে তাদেরকে নিষেধ করা হলে তারা আমাকেসহ আমার অফিসারদের উপর হামলা ও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে সরকারি কাজে বাধা সৃষ্টি করে। পরে ৭ জনকে আসামি করে শিবালয় থানায় মামলা দায়ের করি।

মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে শিবালয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফিরোজ কবির বলেন, সরকারি কাজে বাধা দেয়ায় বিআইডব্লিউটিএ’র আরিচা বন্দর ও পরিবহন কর্মকর্তা বাদী হয়ে বুধবার রাতে একটি মামলা দায়ের করেছেন। তদন্ত সাপেক্ষে আসামিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বাংলাদেশ জার্নাল/আর

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত