ঢাকা, রোববার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ২ কার্তিক ১৪২৮ আপডেট : ৪ মিনিট আগে

পুরোদমে ক্লাস শুরু নিয়ে যা বললেন শিক্ষকরা

  নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ : ১৪ অক্টোবর ২০২১, ১২:১৭  
আপডেট :
 ১৪ অক্টোবর ২০২১, ১৩:৪১

পুরোদমে ক্লাস শুরু নিয়ে যা বললেন শিক্ষকরা
ছবি: নিজস্ব
নিজস্ব প্রতিবেদক

করোনা ভাইরাস মহামারির কারণে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর শুরু হয়েছে স্কুল-কলেজে সশরীরে আংশিক পাঠদান কার্যক্রম। তবে প্রতিদিন সব শ্রেণিতে ক্লাস হচ্ছে না। তবে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আসায় শিক্ষায় যে ক্ষতি হয়েছে তা পুষিয়ে নিতে অতি দ্রুত চলতি বছরের একাডেমিক ক্যালেন্ডার নিয়ে সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা ঘোষণার তাগিদ দিয়েছেন শিক্ষকরা।

শিক্ষকরা বলছেন, পড়াশুনার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে দ্রুত বিভিন্ন শ্রেণির ক্লাসের সংখ্যা বৃদ্ধি করা প্রয়োজন।

এ ব্যাপারে এসওএস হারমান মেইনার স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ রাফিয়া আক্তার বলেন, ‘করোনার কারণে দীর্ঘদিন স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকায় অনেক প্রতিষ্ঠানই সিলেবাস শেষ করতে পারেনি। তাই দ্রুত বিভিন্ন শ্রেণির ক্লাসের সংখ্যা বৃদ্ধি করা প্রয়োজন।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ গোলাম ফারুক বলেন, ‘আমরা চাই দ্রুত সময়ের মধ্যে স্কুল-কলেজগুলোতে ক্লাস কার্যক্রম স্বাভাবিক হোক। স্কুল-কলেজে স্বাভাবিক পাঠদান শুরুর জন্য আমাদের সব ধরণের প্রস্তুতি আছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে নির্দেশনা পেলেই আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।’

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আলমগীর মুহম্মদ মনসুরুল আলম বলেন, ‘প্রাথমিকে স্বাভাবিক কার্যক্রম শুরু করতে আমরা সব ধরণের প্রস্তুতি নিয়েছি। সরকারের নীতিনির্ধারণী পর্যায় থেকে অনুমতি পেলেই স্বাভাবিক পাঠদান কার্যক্রম শুরু করা হবে।’

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘কিছু কিছু শ্রেণিতে ক্লাসের সংখ্যা বাড়ার ঘোষণা দেয়া হতে পারে।’

শিক্ষার্থীদের টিকার আওতায় আনার পরই স্কুল-কলেজে স্বাভাবিক পাঠদান শুরু হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘সরকার আশা করছে আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে বিপুলসংখ্যক মানুষ করোনাপ্রতিরোধী টিকার আওতায় চলে আসবে। এ ছাড়া শিক্ষার্থীদেরও টিকা দেয়ার প্রক্রিয়াও চলছে। আশা করছি, আগামী জানুয়ারি থেকে স্কুল-কলেজে স্বাভাবিক পাঠদান কার্যক্রম শুরু হবে। এর অংশ হিসেবে মাউশি থেকে মাধ্যমিক বিদ্যালয়সমূহের শিক্ষা কার্যক্রমের একাডেমিক সুপারিভিশন শুরু করা হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আগামী নভেম্বর মাসে এসএসসি ও ডিসেম্বরে এইচএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। সরকার আপাতত এই দুটি পাবলিক পরীক্ষা স্বাস্থ্যবিধি মেনে শেষ করার প্রতিই বেশি জোর দিচ্ছে।’

বাংলাদেশ জার্নাল/আইএইচ/এমজে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত