ঢাকা, শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ আপডেট : ২ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ০৮ জুলাই ২০১৯, ২২:৫৬

প্রিন্ট

এবার ধান কেনায় কোনো সিন্ডিকেট নেই: খাদ্যমন্ত্রী

এবার ধান কেনায় কোনো সিন্ডিকেট নেই: খাদ্যমন্ত্রী
নিজস্ব প্রতিবেদক

সরকারিভাবে ক্রয় করায় এবার ধানে কোনো সিন্ডিকেট নেই বলে দাবি করেছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। সোমবার জাতীয় সংসদের প্রশ্নোত্তরে স্বতন্ত্র সাংসদ রেজাউল করিম বাবলুর সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, এবার অত্যন্ত সুষ্ঠুভাবে ধান কেনা হচ্ছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপাররা কৃষকের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ধান কিনেছেন। কোনো সিন্ডিকেট এবার স্থান পায়নি।

তিনি আরো বলেন, এবার কোনো দলীয় প্রভাবও কাজ করেনি। বরং দলীয় নেতা-কর্মীরা সহযোগিতা করেছেন। কোনো সিন্ডিকেট এবার নেই।

সরকারি দলের পনির উদ্দীনের সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, ধান না দেওয়ার কোনো কারণ নেই। এখন পর্যন্ত এক লাখ টন ধানও ক্রয় হয়নি। মাঠপর্যায়ে কর্মকর্তারা কাজ করছেন। অনেকে বলেন, সরকারি গুদামে ধান দিতে যাতায়াত খরচ বেশি পড়ে। এখন প্রায় সব রাস্তা পাকা। কৃষকেরা সরাসরি সরকারের কাছে ধান বিক্রি করলে বাজারের চেয়ে ২০০ টাকা বেশি পান। যদি কোনো এলাকায় জায়গা না থাকে, তা জানালে জায়গা করে দেওয়া হবে।

সরকারি দলের সাংসদ এবাদুল করিমের প্রশ্নের জবাবে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, চার লাখ টন লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে ১ জুলাই পর্যন্ত ৮৪ হাজার ৩০৯ টন ধান কেনা হয়েছে। আর ১০ লাখ টন সিদ্ধ ও দেড় লাখ টন আতপসহ মোট সাড়ে ১১ লাখ টন চাল কেনার লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে কেনা হয়েছে ১৪ লাখ ৬৬ হাজার ৪৮৬ টন। এ ক্ষেত্রে লক্ষ্যমাত্রার থেকে ৩ লাখ ১৬ হাজার ৪৮৬ মেট্রিক টন বেশি কেনা হয়েছে।

এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে খাদ্যমন্ত্রী ধান কেনার জন্য সংসদ সদস্যদের সহযোগিতা চান। তিনি বলেন, লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী চাল কেনা গেলেও ধান এখনো কেনা যায়নি। ধান কেনার ক্ষেত্রে জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তারা সহযোগিতা করেছেন।

জাতীয় পার্টির মুজিবুল হক জানতে চান, চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্যযুদ্ধের কারণে বাংলাদেশ বাড়তি সুযোগ নিতে পারছে কি না? জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, বাংলাদেশ রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করেছে। রপ্তানির পরিমাণ বাড়ছে। তবে চীন-যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্যযুদ্ধের উল্লেখযোগ্য কোনো প্রভাব এখনো দেখা যাচ্ছে না।

ডিপি/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত