ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ৩০ কার্তিক ১৪২৬ আপডেট : ১ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৪ আগস্ট ২০১৯, ০৫:৫৩

প্রিন্ট

রাতে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় ঝরলো ৪ প্রাণ

রাতে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৪
জার্নাল ডেস্ক

গাইবান্ধার সদর উপজেলা ও নরসিংদীর শিবপুরে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীসহ ৪ জন নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার (১৩ আগস্ট) রাতে এ দুটি দুর্ঘটনা ঘটে। বাংলাদেশ জার্নালের গাইবান্ধা ও নরসিংদী প্রতিনিধির পাঠানো খবর-

গাইবান্ধায় মাইক্রোবাস-অটোরিকশার সংঘর্ষে নিহত ২

গাইবান্ধার সদরে মাইক্রোবাসের সঙ্গে সিএনজিচালিত অটোরিকশার সংঘর্ষে দুই জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অটোরিকশার আরও চার যাত্রী। মঙ্গলবার (১৩ আগস্ট) রাত পৌনে ১০টার দিকে দাঁড়িয়াপুর সড়কের ঠাকুরের দীঘি এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলো- সদরের খোলাহাটি ইউনিয়নের মাঠ বাজার গ্রামের মাজনু মিয়ার ছেলে সিএনজি অটোরিকশাচালক খোরশেদ আলম (৩২)ও সুন্দরগঞ্জ উপজেলার লেংগার বাজারের আবুল হোসেনের ছেলে অটোর যাত্রী রোমান মিয়া (২০)।

আহতদের মধ্যে নাম পাওয়া দুজন হলো- সদরের খোর্দ্দমালিবাড়ি গ্রামের লোকমান (২৫) ও মাঠের পাড় গ্রামের আরিফ মিয়া (৩০)। তারাও অটোর যাত্রী ছিলেন।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খাঁন মো. শাহারিয়ার জানান, খবর পেয়ে আহতদের উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে তাদের মধ্যে দুই জনকে গুরুতর অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। নিহত দুই জনের মরদেহ, মাইক্রোবাস ও সিএনজি অটোরিকশাটি উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, গাইবান্ধা থেকে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা যাত্রী নিয়ে দাঁড়িয়াপুর বাজারের দিকে যাচ্ছিল। তখন গাইবান্ধাগামী বিয়ের যাত্রী বহনকারী মাইক্রোবাস ঠাকুরের দিঘি এলাকায় পৌঁছালে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই অটোচালক নিহত হন। আহত হন চারজন। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা স্থানীয়দের সহায়তায় আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোমান মারা যায়।

নরসিংদীতে যাত্রীবাহী বাস-অটোরিকশার সংঘর্ষে নিহত ২

নরসিংদীর শিবপুরে যাত্রীবাহী বাস ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীসহ দুইজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও তিনজন। মঙ্গলবার (১৩ আগস্ট) রাত সাড়ে ৮টায় নরসিংদী-মনোহরদী সড়কের শিবপুর উপজেলার পঁচারবাড়ি নামক স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে। শিবপুর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মমিনুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নিহতরা হলেন- শিবপুর উপজেলার বৈলাব গ্রামের তোতা মিয়ার ছেলে রুপন মিয়া (৩৫) ও শিবপুর শহীদ আসাদ কলিজিয়েট গার্লস হাই স্কুলের সিনিয়র শিক্ষক গাজী হারুন অর রশিদের মেয়ে পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী লামিয়া আক্তার (১৮)।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, মনোহরদী থেকে শিবপুরগামী একটি সিএনজি শিবপুরের পঁচারবাড়ি নামক স্থানে পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা রয়েল পরিবহনের যাত্রীবাহী বাসের সৎঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়্।

এতে অটোরিকশাটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়। ঘটনাস্থলেই যাত্রী রুপন মিয়া মারা যান এবং চারজন যাত্রী আহত হন। আহতদের শিবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে সেখানে মারা যান লামিয়া আক্তার নামের একজন।

আহতদের মধ্যে রহিম (৩৮) ও সিএনজিচালক মজিবুর রহমান (২৬) নামে দুইজনকে নরসিংদী জেলা হাসপাতালে এবং অপরজন নিহত লামিয়ার মা শিবপুর উপজেলার খালপাড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিক আসমাউল হুসনাকে (৪২) গুরুতর আহতাবস্থায় ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

দুর্ঘটনার সংবাদ পেয়ে শিবপুর কলেজ গেইটস্থ রয়েল পরিবহনের কাউন্টারে ভাঙচুর চালিয়েছে স্থানীয় উত্তেজিত জনতা। ঘাতক বাসটিকে শিবপুর মডেল থানা পুলিশ আটক করেছে, ড্রাইভার পালিয়ে গেছে।

ডিপি/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত