ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ আপডেট : ৪ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ০১ নভেম্বর ২০১৯, ১৬:৫৩

প্রিন্ট

মহাসড়কে চলছে লাইসেন্সবিহীন অটোরিকশা ফিটনেসবিহীন গাড়ি

লাইসেন্সবিহীন অটোরিকশা ফিটনেসবিহীন গাড়ি
ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি

ধামরাইয়ে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে ব্যাটারিচালিত রিকশা, হ্যালো বাইক, ইজিবাইক নামে বিভিন্ন ধরনের অটোরিকশা চলছে। দূরপাল্লার বাস, ট্রাক, লেগুনার সাথে পাল্লা দিয়ে চলছে এসব যানবাহন। আর এতে করে ঘটছে দুর্ঘটনা। এছাড়াও চলছে হাজারো ফিটনেসবিহীন গাড়ি। বিভিন্ন কলকারখানায় শ্রমিকদের আনা-নেয়ার জন্য এসব গাড়ি ব্যবহার করা হয়।

এ যানবাহনগুলো শুধু কারখানার শ্রমিকদের যাতায়াতের কাজেই ব্যবহার করা হয় না, যাত্রী নামিয়ে আসার সময় অতিরিক্ত অর্থের জন্য অন্য যাত্রীদের আনা-নেয়ার কাজেও ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এতে রাস্তায় অতিরিক্ত যানজটের সৃষ্টি হয়।

সূত্রে জানা যায়, ধামরাইয়ের বাটা গেইট সংলগ্ন মোড়ে প্রায়ই দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে এসব ছোট যানবাহনগুলো। এছাড়াও ধামরাই থানা রোড, ঢুলিভিটা, জয়পুরা, কালামপুর, শ্রীরামপুর বাসস্ট্যান্ড, বাথুলি, বারবাড়িয়াতে দেখা যাচ্ছে এসব দৃশ্য। ফলে মাঝে মাঝেই ঘটছে দুর্ঘটনা।

অটোরিকশার চালকরা মানছে না কোনো নিয়ম, করছে না জীবনের মায়া। ভয়-ভীতি ত্যাগ করে মহাসড়কে চালিয়ে যাচ্ছে এসব যানবাহন।

অটোরিকশা, হ্যালো বাইক, ইজিবাইক আর ফিটনেসবিহীন গাড়ি যদি মহাসড়কে না চলে তাহলে দুর্ঘটনা অনেকাংশেই কমে আসবে বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

ধামরাই থানা রোডে প্রেসক্লাবের সামনে চায়ের দোকানদার কবীর হোসেন বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, কিছুদিন আগে ১৫ জন যাত্রী আহত হয়েছেন। এছাড়াও ধামরাই বাটা গেট সংলগ্ন এলাকায় তিন চাক্কার অটোরিকশা ছয়বাড়িয়া থেকে মহাসড়কে ওঠার সময় যাত্রীবাহী বাসের সাথে ধাক্কায় রিকশাটি ভেঙে যায় এবং চালক মারাত্মকভাবে আহত হয়। অটোরিকশা চালকের একটি পা ভেঙে যায়।

এর কিছুদিন পূর্বে ধামরাই আমতলী আইডিয়াল স্কুলের প্রধান শিক্ষক সোহেল হোসেনসহ তার সহযোগী বাটা গেট এলাকায় ইজিবাইকের সাথে সংঘর্ষে মারাত্মকভাবে আহত হন এবং তার সাথে থাকা ব্যক্তির একটি পা ভেঙে যায়। শ্রীরামপুর এলাকায় ইজিবাইকের সাথে মানিকগঞ্জ থেকে একটি পিকনিকের বাসের সাথে ধাক্কা খেয়ে বাসের ৩২ জন শিক্ষার্থী হতাহত হয়েছিলো।

গত দু’দিন আগেও অটোরিকশার চাপায় ফাতেমা নামে এক মেয়ের মৃত্যু হয়েছে। অক্টোবর মাসের ২৩ তারিখে জয়পুরা এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় অতশী ফ্যাশন লিমিটেড কারখানার শ্রমিক তাকিয়া আক্তার নামে ৬ মাসের গর্ভবতী এক নারী সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যায়। একটি কারখানার যাত্রীবাহী বাস ঘুরানোর সময় এ দুর্ঘটনার স্বীকার হন এই গার্মেন্টসকর্মী।

স্থানীয়দের দাবি, যদি এই হ্যালোবাইক, ইজিবাইক ও বিভিন্ন কারখানার ফিটনেসবিহীন গাড়ি ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে না উঠতে পারে তাহলে দুর্ঘটনার পরিমাণ অনেকাংশেই কমবে।

এ বিষয়ে ট্রাফিক ইন্সপেক্টর (সাভার সার্কেল) ফরিদ হোসেন বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, জনশক্তি কম থাকায় ধামরাই থানা পুলিশ এ বিষয়টি দেখে থাকে। এসব ছোট যানবাহন যাতে মহাসড়কে না উঠতে পারে সেদিকে সবসময় খেয়াল রাখার চেষ্টা করি।

গোলড়া হাইওয়ে থানার ওসি লুৎফর রহমান বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, আমরা সবসময়ই চেষ্টা করি হ্যালো বাইক, ইজিবাইক, তিন চাকার অটোরিকশা যেন ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে না উঠতে পারে। আমাদের সামনে পড়লে আমরা তা ধরে এনে ১ মাস আটকে রাখি। এরপর ৪৭০০ টাকা জরিমানা দিয়ে তা ছাড়িয়ে নিয়ে যায়। মহাসড়কে ছোটযান যদি না চলে তবে দুর্ঘটনা অনেকটাই কমে যাবে। তবে, এর জন্য আগে মানুষের সচেতনা বাড়াতে হবে।

বাংলাদেশ জার্নাল/এইচকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত