ঢাকা, সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ১ পৌষ ১৪২৬ আপডেট : ১০ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ২০:৫২

প্রিন্ট

রাজশাহী ছেড়েছে পদ্মা, রাতে যাবে ধূমকেতু

ট্রেন চলাচল শুরু, স্বস্তিতে যাত্রীরা
ফাইল ছবি
সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় ট্রেন লাইনচ্যুতের ঘটনায় ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ দুর্ঘটনায় পরিস্থিতি এখন অনেকটাই স্বাভাবিক।

কর্তৃপক্ষের দাবি, সাড়ে ৩ ঘণ্টা বিলম্বে হলেও বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার পর রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশন থেকে রাজধানী ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যায় আন্তঃনগর ট্রেন পদ্মা এক্সপ্রেস। এই ট্রেনটি সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় পৌঁছানোর আগেই ঢাকা-রাজশাহী রেলপথের ওপর লাইনচ্যুত হওয়া ‘রংপুর এক্সপ্রেস’র বগিগুলো উদ্ধার করা সম্ভব হবে।

এর আগে বিকেল ৪টায় এই ট্রেনটির রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশন থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়ার কথা ছিল। তবে নানান অনিশ্চয়তায় ছাড়ার ঠিক আগ মুহূর্তে রাজশাহী থেকে ঢাকাগামী পদ্মা এক্সপ্রেস ট্রেনটির যাত্রা বাতিল করা হয়।

জানতে চাইলে রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশনের ম্যানেজার আব্দুল করিম এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, সিরাজগঞ্জে দুর্ঘটনার পর উদ্ধারকাজ শুরু এবং শেষ হতে গভীর রাত পর্যন্ত সময় লাগতে পারে বলে প্রথমে ধারণা করা হচ্ছিল। তবে এরইমধ্যে ঈশ্বরদী জংশন থেকে একটি রিলিফ ট্রেন সিরাজগঞ্জের দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে। উদ্ধার কাজও শুরু করেছে।

তাই রাতেই ঢাকা-রাজশাহী রেলপথ আবারও সচল হওয়ার সম্ভাবনা দেখছেন তারা। আর এজন্যই বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় পদ্মা এক্সপ্রেস ট্রেনটি ঢাকা অভিমুখে ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেয় কর্তৃপক্ষ। তাদের দাবি, এক্সপ্রেস ট্রেনটি কিছুটা বিলম্ব হলেও ঢাকা পৌঁছাতে কোনো সমস্যা হবে না।

তবে রাজশাহী-ঢাকার মধ্যে চলাচলকারী রাতের আন্তঃনগর ধূমকেতু এক্সপ্রেস ট্রেনটি নির্ধারিত ১১টা ২০ মিনিটের পরিবর্তে তিনঘণ্টা বিলম্বে চলাচল করবে। একইভাবে সকালের সিল্কসিটি এক্সপ্রেসসহ পরের ট্রেনগুলোও আপাতত শিডিউল বিপর্যয়ের মধ্যেই চলবে।

এদিকে, রাতে রাজশাহী থেকে ঢাকা অভিমুখে পদ্মা এক্সপ্রেস ট্রেন সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় ছেড়ে যাওয়ার খবরে দুর্ভোগের মধ্যে থাকা সাধারণ যাত্রীদের মধ্যে স্বস্তি ফিরে এসেছে। যাত্রা বাতিলের সিদ্ধান্তের পর যারা ট্রেনের টিকিট ফেরত দিয়েছিলেন তারা আবার টিকিট কাটছেন।

প্রাথমিকভাবে জানা যায়, রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনের ইঞ্জিনটি রেলপথের পাশে উল্টে পড়ে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়। পরে ওই আগুন লাইনচ্যুত আরো ৩টি বগিতে ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় যাত্রীরা দ্রুত জানালা এবং দরজা দিয়ে বেরিয়ে যায়। এতে ট্রেনের লোকো মাস্টার এবং সহকারী লোকো মাস্টারসহ অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছেন। আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

দুর্ঘটনা পর স্থানীয় লোকজন ট্রেন যাত্রীদেরকে উদ্ধারে সহযোগিতা করেন।

বাংলাদেশ জার্নাল/এইচকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত