ঢাকা, শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ১৭ আশ্বিন ১৪২৯ আপডেট : ২৫ মিনিট আগে

বার্লিনে বাংলাদেশ-জার্মানি দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের 'অর্ধশতাব্দী' উদযাপন

  জার্মানি প্রতিনিধি

প্রকাশ : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫:৫৭  
আপডেট :
 ২০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৬:২৭

বার্লিনে বাংলাদেশ-জার্মানি দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের 'অর্ধশতাব্দী' উদযাপন
জার্মানির সাথে বাংলাদেশের বন্ধুত্বপূর্ণ দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের ৫০ বছর পূর্তি। ছবি: প্রতিনিধি
জার্মানি প্রতিনিধি

ইউরোপ তথা বিশ্বের সমৃদ্ধ দেশ জার্মানির সাথে বাংলাদেশের বন্ধুত্বপূর্ণ দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের ৫০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠান উদযাপিত হলো জার্মানির রাজধানী বার্লিনে। সোমবার রাজধানীর একটি পাঁচতারা হোটেলের বলরুমে বার্লিনের বাংলাদেশ দূতাবাসের আয়োজনে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ড. টবিয়াস লিন্ডনার।

সে সময়ের পূর্ব জার্মানি বিশ্বের তৃতীয় এবং ইউরোপের প্রথম দেশ, যে দেশটি ১৯৭২ সালে সম্মানের সাথে বাংলাদেশকে সরকারিভাবে স্বীকৃতি প্রদান করে। তারপর থেকেই দুদেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের পর থেকেই সুউচ্চ অবস্থানে পৌঁছায় দু'দেশের বন্ধুতপূর্ণ সম্পর্ক। ৫০ বছর ধরে দুদেশের মধ্যে চলমান অকৃত্রিম এই কুটনৈতিক সম্পর্ক উদযাপন উপলক্ষে জার্মানির রাজধানী বার্লিনের একটি পাঁচতারকা হোটেলের বলরুমে বার্লিনের বাংলাদেশ দূতাবাস আয়োজন করে বিশেষ এক উদযাপন অনুষ্ঠানের। আনন্দময় সেই সন্ধ্যায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জার্মানির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ড. টবিয়াস লিন্ডনার। প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, সকল সংকটে কিংবা আনন্দ বেদনায় অথবা বিশেষ অর্জনে জার্মানি সবসময়ের মত দারুণ বন্ধু। বাংলাদেশের সাথে অর্ধ শতাব্দী ধরে বন্ধুত্বের এমন বন্ধন এর জন্য তিনি দেশ ও দেশের জনগণকে ধন্যবাদ ও অভিনন্দন জানান।

এসময় জার্মান এই মন্ত্রী দেশের উন্নয়নে সরকারের নানা পরিকল্পনার প্রশংসা করলেও আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে সাধারণ জনগণের ভোটাধিকার নিশ্চিতসহ নারীর প্রতি সহিংসতা শুন্যের কোটায় নিয়ে আসা ও ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করণসহ বাক স্বাধীনতা ও মানবাধিকার রক্ষার উপর জোর দেন। এসময় জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ক্ষতি পুষিয়ে নিতে বাংলাদেশের পাশে থাকার পাশাপাশি কক্সবাজারে রোহিঙ্গা আশ্রয়ন প্রকল্পগুলোতে নিরাপত্তা নিশ্চিতসহ যুদ্ধাপরাধের বিষয়ে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী পদক্ষেপ গ্রহণ করার বিষয়ে মত দেন।

পূর্তি অনুষ্ঠানে অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি বক্তব্য রাখেন দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। পরে দেশটিতে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত মোঃ মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া বাংলাদেশ ও জার্মানির মধ্যে চলমান কূটনৈতিক সম্পর্কের নানা দিক আমন্ত্রিত অতিথিদের সামনে তুলে ধরে বলেন, জার্মানি সবসময় বাংলাদেশের পাশে ছিল এবং থাকবে। বিশেষ করে করোনাসহ নানা দূর্যোগপূর্ণ সময়ে বাংলাদেশের পাশে থাকায় জার্মানির প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। রাষ্ট্রদূত তার বক্তব্যে জার্মানিসহ অন্যান দেশের কূটনৈতিকদের কাছে দেশে আশ্রিত সকল রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোসহ, দক্ষ শ্রমের বাজার সৃষ্টি করা, উচ্চ শিক্ষায় আগ্রহী বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য আরও বেশী সুযোগ দেয়ার আহবান জানান। মন্ত্রী একই সাথে

বাংলাদেশের তৈরি পোশাক শিল্প, নবায়নযোগ্য জ্বালানি শক্তির খাত, শিক্ষা ও তথ্যপ্রযুক্তি খাতে জার্মানির বিনিয়োগের আহবান বার্লিনের বাংলাদেশ দূতাবাসের।

অনুষ্ঠানের শুরুতে জার্মানির স্থানীয় ও নিযুক্ত বিভিন্ন দেশের কুটনৈতিকদের অভ্যার্থণা জানান রাষ্ট্রদূত মোঃ মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া।

দারুণ এই সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক পরিবেশনায় কবিতা আবৃত্তি করেন জার্মান ভাষায় বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনীর অনুবাদক স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত বারবারা দাশগুপ্ত আর নৃত্য পরিবেশন করেন টুপুর ও অদিতি গুপ্ত। ছিল আমন্ত্রিত অতিথিদের জন্য নৈশ ভোজের বিশেষ আয়োজনও।

অনুষ্ঠানে কূটনৈতিকদের সাথে সর্বস্তরের প্রবাসী ও কমিউনিটির গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ অংশগ্রহণ করেন।

বাংলাদেশ জার্নাল/রাজু

  • সর্বশেষ
  • পঠিত