ঢাকা, রবিবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ২ পৌষ ১৪২৫ অাপডেট : ১ ঘন্টা আগে English

প্রকাশ : ০৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:৩৮

প্রিন্ট

যেসব খাবারে শরীরে কাজ করবে না ওষুধ

যেসব খাবারে শরীরে কাজ করবে না অ্যান্টিবায়োটিক
জার্নাল ডেস্ক

স্বাস্থ্য সুরক্ষায় অনেকেই প্রচুর পরিমাণে শাকসবজি ও ফলমূল খেয়ে থাকেন। পাশাপাশি যে কোন স্বাস্থ্য সমস্যা মোকাবেলায় তারা বিভিন্ন ধরনের অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধও সেবন করেন। না বুঝে এমন অভ্যাসের ফলে কিন্তু শরীরে লাভের চেয়ে ক্ষতি হয় বেশি। কেননা এমন অনেক ওষুধ ও খাবার আছে, যেগুলো একসঙ্গে খেলে শরীরে উপকারের পরিবর্তে ক্ষতি হয় বেশি। কাজেই সুস্থ থাকলে এসব খাবার একসঙ্গে খাওয়া এড়িয়ে চলাই ভালো।

অ্যান্টিবায়োটিক নিয়ম করে পূর্ণ মেয়াদকাল অবধি খেলেও সেটা কাজে আসছে না। আজকাল এমন অভিজ্ঞতার সাক্ষী রোগী থেকে চিকিৎসকরাও। এমনটা কি আপনার সঙ্গেও হয়েছে? তা হলে সাবধান! গবেষকদের দাবি, ওষুধ কাজ না করার কারণের নেপথ্যে দায়ী আরও এক অ্যান্টিবায়োটিক ‘কোলিস্টিন’।

না, তার মানে এই নয় যে, আপনিই ওষুধ আকারে এই অ্যান্টিবায়োটিক সেবন করছেন, যার ফলে অন্য অ্যান্টিবায়োটিকের কাজ নষ্ট হচ্ছে। বরং এই ক্ষতিকর অ্যান্টিবায়োটিকের প্রবেশ শরীরে খানিক অন্য রকম ভাবে হয়।

কিভাবে সেটা হয়? বাংলাদেশ জার্নালের পাঠকদের জন্য সেটি নিচে তুলে ধরা হল-

জ্বর বা সর্দি-কাশির সময় চিকিৎসকের পরামর্শে অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়ার চল নতুন নয়। প্রায় কড়া ওষুধ দিয়ে অসুখবিসুখ ছাড়াতে অ্যান্টিবায়োটিকের শরণ নিতে হয়। কিন্তু এই অ্যান্টিবায়োটিকের কর্মক্ষমতা নষ্ট হচ্ছে পোলট্রির হাঁস-মুরগির ডিম ও মাংস খাওয়ার কারণে। শুধু পোলট্রিই নয়, মাংস প্রদান করে এমন পশুদের স্বাস্থ্যকর করে তোলার জন্যও এই অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহৃত হয়, যা চরম ক্ষতি করে মানবস্বাস্থ্যের।

ভারতের জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ সুবর্ণ গোস্বামীর মতে, মানুষের শরীরে নানা রোগ প্রতিহত করতে যে অ্যান্টিবায়োটিকগুলি ব্যবহৃত হয়, তাদের সবকটি গুণাগুণই নষ্ট করে দিতে পারে এই কোলিস্টিন। এই অ্যান্টিবায়োটিক মানবদেহের বিশেষ কিছু সংক্রমণ ঠেকাতে ব্যবহৃত হয়। কিন্তু চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া বা নির্দিষ্ট সমক্রমণের শিকার না হলেও এটি খেলে তার ক্ষতি মারাত্মক।

অতিরিক্ত হৃদরোগের প্রকোপ বেড়ে যাওয়া, ওবেসিটি, এমনকি কোনও কোনও ক্ষেত্রে লিভার ক্যানসারেরও কারণ এই কোলিস্টিন। বহুবার নানাভাবে ব্যবসায়িক স্বার্থে কোলিস্টিন ব্যবহারের উপর নিষেধাজ্ঞা এসেছে। তবু সচেতনতা আসেনি, যেটা খুবই শঙ্কার বিষয়।

আমাদের দেশে এটির ব্যবহার কত খানি? সম্প্রতি লন্ডনের ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিজম একটি সমীক্ষা চালিয়েছে ৷ তাতে যে তথ্য উঠে আসে, তা আরও বেশি শঙ্কার কারণ হিসাবে দেখছেন বিশেষজ্ঞরা।

সেই সমীক্ষায় বলা হয়, ভারতে বেশির ভাগ পোলট্রির মালিকরাই বেশি পরিমাণ মাংস ও ডিমের লোভে, পাখিদের কৃত্রিম উপায়ে স্বাস্থ্যবান করে তুলতে এই অ্যান্টিবায়োটিক অত্যন্ত উচ্চমাত্রায় ব্যবহার করে থাকেন। বাদ নেই পশুর মাংস বিক্রেতারাও।

এছাড়াও বাজারে যে প্রক্রিয়াজাত মাংস পাওয়া যায়, যেমন বার্গারের ভেতরের মাংসের পুর, নাগেট্‌স বা ফ্রায়েড চিকেনের রেডিমেড প্যাকেটজাত চিকেন- এ সবেও এই আন্টিবায়োটিকের উপস্থিতি থাকে।

এমনকি এর আগেও বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা বার বার সতর্ক করে জানিয়েছিলো, মানবদেহের জন্য গুরুত্বপূর্ণ অ্যান্টিবায়োটিক যেন কোনও ভাবেই পশু-পাখির শরীরে ব্যবহার করা না হয়৷ কিন্তু তা সত্ত্বেও টনক নড়েনি পোলট্রি ও পশুর মাংস বিক্রতাদের।

চিকিৎসকদের পরামর্শ, মাংস-ডিম খাওয়ার আগে সচেতন হোন, চেষ্টা করুন ব্রয়লার হাঁস-মুরগি এড়িয়ে আকারে ছোট, ওজনে হালকা হাঁস-মুরগি কিনতে। পশুর মাংসের সময়ও একইভাবে ছোট আকারের কম মাংসের পশু কিনুন। বাজারের প্রক্রিয়াজাত মাংস একেবারে না কেনাই ভাল। নইলে এই কোলিস্টিন ধীরে ধীরে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে নানা অসুখের দিকে ঠেলবে।

বাংলাদেশ জার্নাল/ওয়াইএ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত
close
close
close