ঢাকা, শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭ আপডেট : কিছুক্ষণ আগে English

প্রকাশ : ২০ জানুয়ারি ২০২১, ১২:৪৬

প্রিন্ট

শেষ মুহূর্তে ব্যাননকে ক্ষমা করছেন ট্রাম্প

শেষ মুহূর্তে ব্যাননকে ক্ষমা করছেন ট্রাম্প
ট্রাম্পের সাবেক সহযোগি স্টিভ ব্যানন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতার শেষ মুহূর্তে তার সাবেক প্রধান কৌশলবিদ স্টিভ ব্যাননকে ক্ষমা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। ট্রাম্প তার এই সিদ্ধান্তের কথা কাছের লোকজনকে জানিয়েছেন। হোয়াইট হাউস ছাড়ার কয়েক ঘণ্টা আগে ট্রাম্প এমন সিদ্ধান্ত নিলেন। সিএনএন।

তবে প্রশাসনের কর্মকর্তারা বলেছেন, ট্রাম্প যতক্ষণ না পর্যন্ত এই ক্ষমতার ব্যাপারে কাগজপত্রে সই না করছেন, ততক্ষণ পর্যন্ত তার সিদ্ধান্ত সম্পর্কে চূড়ান্তভাবে কিছু বলা যাচ্ছে না। কারণ, ট্রাম্প তার সিদ্ধান্ত ক্ষণে ক্ষণে বদল করেন। ট্রাম্প ইতিমধ্যে তার অনেক ঘনিষ্ঠ ও বিতর্কিত লোকজনকে প্রেসিডেন্টের ক্ষমা ঘোষণা করেছেন।

ট্রাম্প তাঁর কাছের লোকজনকে বলেছেন, তিনি অনেক চিন্তাভাবনার পর ব্যাননকে ক্ষমা করা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। লাখ ডলার জালিয়াতির একটি ফেডারেল মামলার আসামি ব্যানন। গত আগস্টে এই মামলার কার্যক্রম শুরু হয়। এই মামলায় তিনিসহ চারজনকে অভিযুক্ত করেছেন নিউইয়র্কের ফেডারেল কৌঁসুলিরা।

৬ জানুয়ারি ক্যাপিটল ভবনে ট্রাম্পের উগ্র সমর্থকদের হামলার ঘটনায় ব্যাননের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। গত অগাস্টে ব্যাননকে ওই মামলায় গ্রেপ্তার করার পর তার বিরুদ্ধে ম্যানহটনের আদালতে অভিযোগ গঠন করা হয়। অবৈধ অভিবাসন ঠেকাতে মেক্সিকো সীমান্তে ট্রাম্পের প্রতিশ্রুত দেয়াল নির্মাণের নামে ‘উই বিল্ড দ্য ওয়াল’ শীর্ষক ওই প্রচারে অর্থ উঠেছিল ২ কোটি ৫০ লাখ ডলার। আর ব্যানন দাতাদের কাছ থেকে পেয়েছিলেন ১০ লাখ ডলারেরও বেশি।

এই তহবিলের কিছু অংশ তিনি ব্যক্তিগত কাজেও ব্যবহার করেছিলেন বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়। তার সঙ্গে এ মামলায় আসামি হিসেবে আছেন আরও তিনজন। ঘনিষ্ঠ সহযোগীদের মধ্যে যাদের বিভিন্ন অভিযোগে সাজা হয়েছিল, তাদের অনেককেই মেয়াদের শেষ বেলায় এসে প্রেসিডেন্টের ক্ষমতায় ক্ষমা করে দিয়েছেন ট্রাম্প।

নিউ ইয়র্ক টাইমস লিখেছেন ব্যাননকে ক্ষমা করার বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ এ কারণে যে, তার মামলায় এখনও বিচার শুরুই হয়নি, কেবল অভিযোগ গঠন হয়েছে। এখন ওই মামলায় দোষী সাব্যস্ত হলেও ব্যানন অভিযোগ ও শাস্তি থেকে রেহাই পেয়ে যাবেন। প্রেসিডেন্ট কাদের ক্ষমা করেছেন, সেই তালিকা মঙ্গলবারই হোয়াইট হাউজ থেকে প্রকাশ করার কথা ছিল। কিন্তু ব্যাননের বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক তৈরি হওয়ায় তা বিলম্বিত হয়।

উল্লেখ্য, গত নির্বাচনের ফল মেনে না নিতে প্রকাশ্যেই ট্রাম্পকে উৎসাহ দেওয়া ব্যানন নিজে ফোন করে ক্ষমার আবেদন অনুমোদনের জন্য কথা বলেছেন এবং তার বন্ধুরাও এ বিষয়ে প্রেসিডেন্টকে একভাবে চাপে রেখেছিলেন। অন্যদিকে আরেকটি পক্ষ ট্রাম্পকে বোঝানোর চেষ্টা করেছিলেন যে ব্যাননের ক্ষেত্রে এটা করা তার ঠিক হবে না।

বাংলাদেশ জার্নাল/নকি

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত