ঢাকা, শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭ আপডেট : ৮ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি ২০২১, ১৯:২৭

প্রিন্ট

উত্তাল দিল্লিতে আংশিক বন্ধ ইন্টারনেট

উত্তাল দিল্লিতে আংশিক বন্ধ ইন্টারনেট

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

দিল্লির একাংশে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে ইন্টারনেট পরিষেবা। এছাড়া আংশিক বন্ধ করা হয়েছে মেট্রো পরিষেবাও।

এর আগে পুলিশের সঙ্গে দফায় দফায় সংঘর্ষ, টিয়ার গ্যাস আর মোড়ে মোড়ে বসানো কাঁটাতারের ব্যারিকেড ভেঙে দিল্লির ঐতিহাসিক লাল কেল্লায় পৌঁছে গেছে ভারতের আন্দোলনরত কৃষকেরা। ভেতরে প্রবেশের দূর্গের চূড়ায় উড়িয়ে দেওয়া হয় কৃষকদের পতাকা।

এছাড়া কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে ট্র্যাক্টর র‌্যালিতে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে এক কৃষকের মৃত্যু হয়। তবে পুলিশ দাবি করছে, ট্র্যাক্টর চাপায় তার মৃত্যু হয়েছে যদিও বিক্ষোভকারীদের অভিযোগ, পুলিশের লাঠির আঘাতে মৃত্যু হয়েছে তার।

ভারতের গণমাধ্যমে বলা হয়, মঙ্গলবার কৃষকরা সিঙ্ঘু, গাজিপুর সীমানা থেকে ট্র্যাক্টর ব়্যালি বের করেন । এরপর তারা পুলিশের সঙ্গে দফায়-দফায় সংঘর্ষে জড়ান। পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ও লাঠিপেটা করে, কৃষকরাও লাঠি হাতে চড়াও হন। এমনকি তাদের হাতে তলোয়ারও দেখা গেছে।

কৃষকরা ব্যারিকেড ভেঙে রুট বদলে দিল্লিতে ঢুকে পড়েন। দিল্লির আইটিও-র সামনে পুলিশের সঙ্গে ফের সংঘর্ষ বাধে কৃষকদের। পুলিশের ওপর ট্র্যাক্টর চালিয়ে দেন তারা। পরে ব্যারিকেড ভেঙে লালকেল্লায় ঢুকে পড়েন কৃষকরা।

এরপর কয়েকজন কৃষক লালকেল্লায় নিজেদের সংগঠনের পতাকা উড়িয়ে দেন। এ নিয়ে তীব্র বিতর্ক তৈরি হয়েছে। অভিযোগ উঠছে, এই আন্দোলনের পিছনে উসকানি দিচ্ছে বিচ্ছিন্নতাবাদীরা। তাদের উসকানিতেই জাতীয় পতাকার চেয়ে উঁচু করে কৃষক সংগঠনের নিশান ওড়ানো হয়েছে। তবে কৃষক নেতা রাকেশ তিরকিত বলেছেন, ‘যারা বিশৃঙ্খলা তৈরির চেষ্টা করেছেন, তারা কৃষক নন। রাজনৈতিক দলের সদস্য। বিক্ষোভারীদের বদনাম করতেই এই কাজ করা হয়েছে।

পরিস্থিতি বিবেচেনায় মঙ্গলবার দুপুরে কেন্দ্রীয় সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে একটি নির্দেশিকা জারি করে বলা হয়, নিরাপত্তা ও অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতেই ইন্টারনেট বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সিঙ্ঘু, গাজিপুর, টিকরি, মুকারবা চক, নাঙ্গলোই-এলাকায় বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে ইন্টারনেট পরিষেবা। ২৬ জানুয়ারি দুপুর ১২টা থেকে রাত ১২ পর্যন্ত ইন্টারনেট বন্ধ থাকছে। পাশাপাশি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে দিল্লি মেট্রোর বেশ কয়েকটি স্টেশনও। আইটিও মোড়ে যখন প্রাথমিক ঝামেলা হয়, তখনই বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয় একাধিক মেট্রো স্টেশন।

বাংলাদেশ জার্নাল/এমএম

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত