ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ৫ ভাদ্র ১৪২৬ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে English

প্রকাশ : ০৬ আগস্ট ২০১৯, ১৫:৫৫

প্রিন্ট

ভারতের সমালোচনায় সরব যুক্তরাষ্ট্র-জার্মান-অ্যামনেস্টি

ভারতের সমালোচনায় সরব যুক্তরাষ্ট্র-জার্মান-অ্যামনেস্টি
মার্কিন পররাষ্ট্র বিভাগের মুখপাত্র মরগান অট্রাগাস
অনলাইন ডেস্ক

ভারত অধিকৃত জম্মু-কাশ্মীর রাজ্যটিকে বিশেষ মর্যাদা দেয়া ৪৭০ ধারা তুলে নিয়েছে মোদি সরকার। এর আগে রাজ্যটিতে ১৪৪ ধারা জারি করে সেখানকার জনগণের চলাফেরার ওপর নিয়ন্ত্রণ আরোপ করা হয়েছে। বন্ধ করে দেয়া হয়েছে সব স্কুল কলেজ এবং ইন্টারনেট ও মোবাইলসহ ওই রাজ্যের সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। গণহারে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে কাশ্মীরের নেতা কর্মীদের। এইসব অরাজক পরিস্থিতিতে অবশেষে মুখ খুলেছে যুক্তরাষ্ট্র ও জার্মানি। ভারতের নিন্দা করে বিবৃতি দিয়েছে একটি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা।

ভারতকে উদ্দেশ্য করে দেয়া এক বিবৃতিতে মার্কিন পররাষ্ট্র বিভাগের মুখপাত্র মরগান অট্রাগাস বলেন, ‘আমরা কাশ্মীরের পরিস্থিতিগভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছি। কাশ্মীরে বিভিন্ন দলের নেতা কর্মীদের আটকের খবরে আমরা উদ্বিগ্ন। আমরা সেখানে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয় এমন কিছু করা থেকে ভারতকে বিরত থাকার আহ্বান জানাচ্ছি। আমরা মনে করি সেখানকার সকল সম্প্রদায়ের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে এই সমস্যার সমাধান করা উচিত ’

একই সঙ্গে তিনি কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ রেখোয় ভারত ও পাকিস্তানকে শান্তি বজায় রাখারও আহ্বান জানান।

এর আগে কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার গোষ্ঠী অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। এক বিবৃতিতে সংস্থাটি বলেছে, ‘কাশ্মীরে নাগরিকদের স্বাধীন চলাফেরা ও যোগাযোগের উপর প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির কারণে সেখানে মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং উদ্দীপনাজনিত উত্তেজনার ঝুঁকি বাড়তে পারে।’

কাশ্মীর ইস্যুতে ভারতের সমালোচনা করে বিবৃতি দিয়েছে জার্মানির পররাষ্ট্র দপ্তর। ওই বিবৃতিতে ভারত সরকারকে আইন দ্বারা স্বীকৃত জনগণের নাগরিক অধিকারকে সম্মান জানাতে বলা হয়েছে।

মঙ্গলবার বালিনে এক সংবাদ সম্মেলনে পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র মারিয়া আডেবাহের বলেন, ‘আমরা বিশ্বাস করি যে সরকারের সমস্ত পদক্ষেপ অবশ্যই ভারতের সংবিধানের সঙ্গে সঙ্গতি রেখেই নেয়া উচিত। আমরা ভারত সরকারের প্রতি এই আহ্বান জানাচ্ছি, তারা যেন তাদের সকল পরিকল্পনা ও উদ্দেশ্য জনগণের সাথে আলোচনা করেই গ্রহণ করে।’

৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল এবং জম্মু-কাশ্মীরের প্রশাসনিক বিভাজন নিয়ে সোমবারই জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের পাঁচ সদস্য— চীন, আমেরিকা, রাশিয়া, ফ্রান্স এবং ব্রিটেনকে অবহিত করেছিল ভারত। সেখানে ভারত কাশ্মীর ইস্যুটিকে ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় বলে উল্লেখ করেছিলো। কিন্তু ভারতের এই কথায় নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য রাষ্ট্রগুলো যে আশ্বস্ত হয়নি যুক্তরাষ্ট্র ও জার্মানির এই বিবৃতিই তার প্রমাণ।

এদিকে কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে আলোচনার জন্য মঙ্গলবার জেদ্দায় বিশেষ বৈঠকে বসছে মুসলিম দেশগুলোর সংগঠন ওআইসি।

এর আগে পাকিস্তান বলেছে, তারা কাশ্মীর ইস্যুটিকে জাতিসংঘসহ সকল আন্তর্জাতিক সংস্থার কাছে উত্থাপন করে এর প্রতিকার চাইবে।

সূত্র: দুনিয়া নিউজ

এমএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত
close
close