ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৪ আশ্বিন ১৪২৬ আপডেট : ১৬ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৭ আগস্ট ২০১৯, ১৬:০৯

প্রিন্ট

কাশ্মীরে কারফিউ তুলে নেয়ার দাবি ওআইসি’র

কাশ্মীরে কারফিউ তুলে নেয়ার দাবি ওআইসি’র
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

ভারত অধিকৃত জম্মু-কাশ্মীরে গত ১২ দিন ধরে আরোপিত কারফিউ তুলে নিতে দিল্লি সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে মুসলিম দেশগুলোর সংগঠন অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কোঅপারেশন (ওআইসি)।

শনিবার পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কোরেশি এক ভিডিও বার্তায় ওআইসির এই আহ্বানের কথা জানিয়েছেন বলে স্থানীয় সংবাদমাধ্যম ডন জানিয়েছে।

কোরেশি জানান, অতি সম্প্রতি ওআইসি’র সদস্যরা জেদ্দায় এক বৈঠকে মিলিত হন। সেখান থেকে পাঠানো এক বিবৃতিতে কাশ্মীর থেকে দ্রুত জরুরি অবস্থা তুলে নেয়ার দাবি জানায় ওআইসি নেতারা।

বিবৃতিতে ওআইসি বলেছে, কাশ্মীরে যেন মুসলিমদের মানবাধিকার রক্ষা পায় ও ধর্ম পালনে বাধা না হয়। এছাড়া জাতিসংঘসহ অন্যান্য আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের এ বিষয়ে নজর দেওয়া উচিত।

এদিক পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রীর অভিযোগ, কারফিউর কারণে খাদ্য ও প্রয়োজনীয় সামগ্রির সঙ্কটট চলছে গোটা কাম্মীর জুড়ে। এমনকি কারফিউর কারণে সেখানকার জনগণ হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসাসেবা পর্যন্ত নিতে পারছেন না।

ওই ভিডিওতে কুরেশি আরো বলেন, কাশ্মীরের জনগণের ওপর থেকে কারফিউ তুলে নেয়া কেবল পাকিস্তানের দাবি নয়, গোটা মুসলিম বিশ্ব এ দাবিতে ভারতের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে উঠেছে। যার ফলশ্রুতিতে এই ববৃতি দিয়েছে ওআিইসি।

এদিকে জম্মু-কাশ্মীরের কিছু এলাকায় কারফিউ শিথিল করা হয়েছে বলে ভারত দাবি করেছ। কিছু এলাকায় টেলিফোন ও ইন্টারনেট পরিসেবাও চালু হচ্ছে শনিবার থেকে।

স্থানীয় এক সংবাদ মাধ্যমের দাবি, কাশ্মীরের ১০০টি টেলিফোন এক্সচেঞ্জের মধ্যে ১৭টি চালু করা হয়েছে। চালু হয়েছে প্রায় ৫০ হাজার ল্যান্ডলাইন। শ্রীনগরের কিছু কিছু এলাকাতে চালু হয়েছে টেলিফোনের ল্যান্ডলাইন পরিষেবাও।

তবে প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছে, এসব পরিষেবা চালু হয়েছে কেবল কাশ্মীরের হিন্দু অধ্যুষিত এলাকাগুলোতে। মুসলিম প্রধান এলাকাগুলো, বিশেষ করে যেখানে বিদ্রোহ ছড়িয়ে পড়ার সম্ভবনা বেশি, সেখানে এখনও কারফিউ বলবৎ আছে। সূত্র: ডন

এমএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত