ঢাকা, সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ১ পৌষ ১৪২৬ আপডেট : ১৪ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ১০:২৬

প্রিন্ট

জন্মদিনে স্কুলে গুলি চালিয়ে ২ সহপাঠীকে হত্যা

জন্মদিনে স্কুলে গুলি চালিয়ে ২ সহপাঠীকে হত্যা
অনলাইন ডেস্ক

নিজের জন্মদিনটি সব কিশোর কিশোরীর কাছে একটি বিশেষ দিন। এ দিনটি তারা কেক কেটে পরিবার ও বন্ধুদের সঙ্গে উদযাপন করে থাকে। কিন্তু ক্যালিফোর্নিয়ার এক কিশোর তার ১৬তম জন্মদিনটি উদযাপন করেছে স্কুলে নিজের সহপাঠীদের ওপর গুলি চালিয়ে। বৃহস্পতিবারের ওই ভয়াবহ ঘটনায় কমপক্ষে দুই শিক্ষার্থী নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় তিন শিক্ষার্থীসহ আহত হয়েছে আরো ছয়জন। হামলাকারী নিজেও আহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

এই স্কুল হামলার ঘটনায় ঘাতক শিক্ষার্থীকে আটক করেছে পুলিশ। তবে তার পরিচয় প্রকাশ করেনি। তবে সে মারা যায়নি। বর্তমানে গুরুতর আহত ওই শিক্ষার্থী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে বলে রয়টার্স জানিয়েছে।

বৃহস্পতিবার ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের সান্তা ক্লারিটার সগাস হাইস্কুলে এই বন্দুক হামলার ঘটনা ঘটে। জানা যায়, নিজের ১৬তম জন্মদিনে একটি আধা স্বয়ংক্রিয় বন্দুক হাতে স্কুলে ঢুকে সহপাঠীদের ওপর গুলি চালাতে শুরু করে ১৬ বছর বয়সী ওই ছাত্র। এতে ১৬ বছরের এক ছাত্রী এবং ১৪ বছর বয়সী এক ছাত্র নিহত হয়েছে। এতে আহত হয়েছে কমপক্ষে আরো ছয়জন। এদের মধ্যে দুই ছাত্রী ও এক ছাত্র। আহত তিন শিক্ষার্থীর বয়স ১৪ ও ১৫ বছর।

সহপাঠীদের ওপর গুলি চালানোর পরে আত্মহত্যার জন্য নিজের মাথায় গুলি করেছিলো ওই শিক্ষার্থী। কিন্তু সে বেঁচে আছে। পুলিশ তাকে উদ্ধার করে হাসপাতলে ভর্তি করেছে। তার অবস্থা গুরুতর।

সে কী কারণে স্কুলে এই বন্ধুক হামলা করেছে তাৎক্ষণিকভাবে তারা জানা যায়নি। তবেিএক প্রতিবেশী পুলিশকে জানিয়েছেন, দু বছর আগে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে বাবা মারা যাওয়ায় খুব মুষড়ে পড়েছিলো ছাত্রটি। সে কোথা থেকে অস্ত্রটি সংগ্রহ করেছে সেটিও অজানা।

যুক্তরাষ্ট্রে স্কুলে বন্দুক হামলা কোনো নতুন ঘটনা নয়। ২০১৮ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের পার্কল্যান্ড শহরের মারজোরি স্টোনম্যান ডগলাস হাইস্কুলে গুলি করে ১৭ জনকে হত্যা করেছিলো ওই স্কুলেরই এক সাবেক শিক্ষার্থী।

বন্দুক নিয়ন্ত্রণ অ্যাডভোকেসি গোষ্ঠী ‘এভরিটাউন’র মতে, যুক্তরাষ্ট্রে চলতি বছর স্কুলে বন্দুক হামলার ৮৫তম ঘটনা। স্কুলে এ ধরনের ভয়াবহ বন্দুক হামলার ফলে ২০২০ সালে অনুষ্ঠেয় মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দেশে বন্দুক নিয়ন্ত্রণের বিতর্ক জোরদার হবে বলেই মনে করা হচ্ছে।

সূত্র: রয়টার্স

এমএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত