ঢাকা, সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬ আপডেট : ১৯ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২১:২৭

প্রিন্ট

এনামূল হক পলাশের পাঁচটি কবিতা

এনামূল হক পলাশের পাঁচটি কবিতা
অনলাইন ডেস্ক

অধিগ্রহণ

শস্য শ্যামল ভূমিতে উদাস বিধাতা

কোদাল লাঙ্গল নিয়ে দাঁড়িয়েছিলেন

আমাদের প্রতিজন আদিম পিতা।

সেই থেকে জলা জঙ্গল তুলে চট্টনে চট্টনে

বংশ পরম্পরায় বুনে গেছেন ক্ষুধা,

কত শত গান গাওয়া হয়ে গেছে আনমনে।

মৃত্যুর পর মৃত্যু এসে বাড়িয়েছে কবরের সারি

আইলের সাথে আইল জোড়া লেগে

শ্যামলে হলুদে ভাগ হয়েছে খুশির ছড়াছড়ি।

আমাদের এইসব ভাগ বাটোয়ারা প্রথাগত,

রক্তে অজানা থেকে গেছে মালিকানা ধারণা

পরম্পরার চাষবাস পেয়ে গেছি জন্মগত।

চাষ করি মাটি - জল চাষ করি প্রথা

পবিত্র মাটির জমিন আমাদের পিতা।

কী এক ভয়ানক দিন এসে গেছে জীবনে

বৃক্ষ মাটি হাওয়া জল যাবে পরাধীনে।

পোঁড়ামাটি পাথর ধাতবের নিথর জমিনে

নয়া এক পৃথিবী গড়ে উঠবে অধিগ্রহণে।

খত গুলো মিলে গেলে টাকা যাবো পেয়ে

উড়বে টাকার পাতা সবুজের বিনিময়ে।

এমন হতেই পারে অমিলের দোলাচলে

স্বপ্নের দিন বিনামূল্যে যাবে পথ ভুলে।

আমি কালের কৃষক, জলা জংলায়

জাগিয়ে তুলেছি শস্য শ্যামল ধারা,

কাগজের অভাব দেখিয়ে দেখিয়ে

মাটির স্বপ্ন কেড়ে নিতে চাও তোমরা।

যদি পারো আমাকেও অধিগ্রহণ করে নিও,

পারলে মানুষ অধিগ্রহণের আইন করে নিও।

আস্থা

উই পোকাটি আগুনে

ঝাপ দিয়েছেন

পরম নির্ভরতায়।

পৃথিবী একটা পানশালা

কেউ কেউ পৃথিবীর আফিমে

ডুবতে ডুবতে শ্বাসকষ্টে আছেন।

পান করতে করতে

ব্ল্যাক আউট হয়ে যান।

পৃথিবীর মানুষ পৃথিবীর পেয়ালায়

হরদম বিলাসের সুধা ঢালেন।

পৃথিবীর মানুষ পৃথিবীর কল্কিতে

বিত্তের সিদ্ধি ভরে টানেন।

পৃথিবীর ভগ্নিপতিগণ টাল হয়ে ঘুরেন

পানশালায় ঘুরে ঘুরে রক্তপান করেন।

পৃথিবী একটা শালা

পৃথিবী একটা নিকটাত্মীয়

পৃথিবী একটা পানশালা।

লেট আস প্রে (অন্তরাশ্রমের গান)

আমরা সবুজের দিন গেয়ে যাই

জীবনের হাতছানি নিয়েই বাঁচি।

দুরন্ত জীবনের পথে পথে

সৃষ্টির জয়গান ক্রমাগত রচি।

অনন্ত সন্ন্যাস ব্রত নিয়ে

হই গণমানুষের প্রতিচ্ছবি।

আমাদের নেই ভয়

দিনে দিনে দূরন্ত জীবনে যাই,

মমতায় শুদ্ধস্বরে

অনন্ত জীবনের গান গাই।

আমাদের দিন চলে যাক

মানুষের পাশাপাশি থাকি,

অবয়ব যা খুশি হউক

মানুষ হওয়াটা খুবই জরুরি।

প্রসংগ : বাংলা সিনেমা

জীবনটা বাংলা সিনেমা নয়

বলতে বলতে একদল লোক

বাংলা সিনেমা দেখে কাঁদেন।

সারাদিন বাংলা সিনেমাকে গাইল

পারতে পারতে একদল মানুষ নিজে

হিরো হওয়ার বাসনা লালন করেন।

বাংলা সিনেমা দেখতে দেখতে

মানুষের চোখে জল নেমে আসে।

বাংলা সিনেমার মহাত্ম এখানেই ,

সকলের মনে আবেগটাই ভাসে।

আল মাহমুদের জন্য এলিজি

প্রিয় কবি আল মাহমুদ,

একটু পরে আপনাকে

কবরে শুইয়ে দেয়া হবে।

বাংলাভাষার মাটিতে আপনি

অনন্তকাল ঘুমিয়ে থাকবেন।

এই সময়ে বাংলাদেশের প্রতিটি রাস্তায়

অদ্ভুত সুন্দর ফুটে উঠে ভাটফুল।

আমি জানি, আপনি ভাটফুল হয়ে

বাংলা ভাষার জমিনে

ফুটে থাকবেন আগামী বহুকাল।

আমি রাস্তার পাশে অযত্নে অনাদরে

ফুটে উঠা ভাটফুল ভালোবাসি।

আপনাকেও ভালোবাসি।

আমি ভাটফুল দেখে আন্দোলিত হবো,

আর আপনাকেও মনে করবো।

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত