ঢাকা, সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৩ আশ্বিন ১৪২৭ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে English

প্রকাশ : ২২ আগস্ট ২০২০, ১৭:২৮

প্রিন্ট

টাইমস্কেল, পদোন্নতিসহ বিভিন্ন বিষয়ে প্রাথমিক শিক্ষকের খোলা চিঠি

টাইমস্কেল, পদোন্নতিসহ বিভিন্ন বিষয়ে প্রাথমিক শিক্ষকের খোলা চিঠি
ফাইল ছবি
জার্নাল ডেস্ক

সারাদেশের অসংখ্যা প্রাথমিক শিক্ষকদের সুখ-দুঃখের কথা প্রকাশ করে থাকে দেশের অন্যতম শীর্ষ স্থানীয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল বাংলাদেশ জার্নাল। তারই ধারাবাহিকতায় টাইমস্কেল, পদোন্নতিসহ বিভিন্ন বিষয়ে এক প্রাথমিক শিক্ষকের খোলা চিঠি আজ তুলে ধরা হলো-

বরাবর

সিনয়র সচিব মহোদয়,

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়,

বাংলাদেশ সচিববালয়, ঢাকা।

মহাপরিচালক,

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর,

মিরপুর - ২, ঢাকা - ১২১৬।

এবং

সকল জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মহোদয়

জনাব, সবিনয়ে আপনাদের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, ১৯৭৪ সালে বেসরকারি প্রাথমিক নিদ্যালয় জাতীয়করণ ও ২০১৩ সালে বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ এক ও অভিন্ন।

১৯৬২ - র অর্ডিনেন্স, Act - ১৯৭৪ অনুযায়ি ১৯৭৪ সালে বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জাতীয়করণ কৃত শিক্ষকগন বেসরকারি চাকুরির ৫০% হিসাবে কার্যকর চাকুরীকাল গণনা করে জ্যেষ্ঠতা, টাইমস্কেল ও পদোন্নতি পেয়েছেন।

১৯৬২ - র অর্ডিনেন্স, Act - ১৯৭৪ অনুযায়ি ২০১৩ সালে বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জাতীয়করণ কৃত শিক্ষকগন বেসরকারি চাকুরির ৫০% হিসানে কার্যকর চাকুরীকাল গণনা করে জ্যেষ্ঠতা, টাইমস্কেল ও পদোন্নতি কেন পাবেন না, তা বোধগম্য হচ্ছে না।

উল্লেখ যে, ১৯৬২ - র অর্ডিনেন্স, Act - ১৯৭৪ বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীকরণ করার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

আর Act - ১৯৭৫ অনুযায়ি বেসরকারি নিম্ন-মাধ্যমিক বিদ্যালয় , মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মহা-বিদ্যালয় এবং কলকারখানা আত্তীকরণের করণের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

যদি তা-ই হয়, তবে ১৯৭৪ সালে বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ কৃত শিক্ষকগনের প্রাপ্তির ন্যায় ২০১৩ সালে জাতীয়করণ কৃত শিক্ষকগন জ্যেষ্ঠতা ,টাইমস্কেল ও পদোন্নতি পেতে বাধা কোথায় ? তা সবিনয়ে অবহিত হতে চাই।

অতএব মহোদয় সমীপে বিনীত প্রার্থনা উপরোক্ত বিষয়াদি সুবিবেচনা পূর্বক প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করে ২০১৩ সালে বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জাতীয়করণ কৃত শিক্ষকদের সদয় মর্জি হয়।

নিবেদক - জাতীয়করণ কৃত শিক্ষকদের পক্ষে -

জনৈক প্রধান শিক্ষক জাতীয়করণ কৃত বিদ্যালয়ের শিক্ষক

মন্তব্য: সবিনয়ে আপনাদের অবহিত করছি যে, গেজেট, পরিপত্র, এতগুলো চিঠি থাকা সত্বেও জাতীয়করণ কৃত শিক্ষকদের প্রাপ্যতা টাইমস্কেল, জ্যেষ্ঠতা, পদোন্নতি কেড়ে নেওয়ার কৌশল অবলম্বন করা সঠিক হয়নি। শিক্ষকরা মামলা মোকদ্দমা তে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া সহ মৃত্যু মুখে পতিত পর্যন্ত হতে পারে। এ দায়ভার কার?

বাংলাদেশ জার্নাল/কেআই

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত