ঢাকা, সোমবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৬ ফাল্গুন ১৪২৬ অাপডেট : ৭ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৭:৩৫

প্রিন্ট

প্রাথমিকের সময়সূচিতে পরিবর্তন আবশ্যক

প্রাথমিকের সময়সূচিতে পরিবর্তন আবশ্যক
মুহাম্মদ মাহবুবর রহমান

প্রাথমিক শিক্ষা স্তর হলো শিশু শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত (৫+ বয়স থেকে ১০+ বয়স পর্যন্ত)। এ স্তরে শিশুদের শারীরিক, মানসিক ও নৈতিক মূল্যবোধের বিকাশ ঘটে। এ স্তরে শিশুরা মুক্ত পরিবেশে, প্রকৃতিকে চেনার মাধ্যমে, অবাধ বিচরণের মাধ্যমে ও খেলার মাধ্যমে শিক্ষা গ্রহণ করে। অথচ প্রাথমিক শিক্ষা স্তরে বিশেষ করে প্রথম শিফটের সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে সকাল নয়টা থেকে বিকেল চারটা ১৫ মিনিট পর্যন্ত (সাত ঘণ্টা) সময় শিশুদের বিদ্যালয়ে অবস্থান করতে হয়। আর বিরতি মাত্র ত্রিশ মিনিট।

এতো দীর্ঘ সময় (খাঁচার মধ্যে বন্দী থাকার মত অবস্থা) ধরাবাঁধা নিয়মের মধ্যে থেকে কিভাবে শিশুদের দৈহিক, মানসিক বিকাশ ঘটতে পারে? এ দেশের অসংখ্য শিশু দু’বেলা দু’মুঠো পুষ্টিকর খাবার ঠিকমত পায় না- অথচ সেই সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে কখনও অনাহারে কখনও বা অর্ধাহারে বা পান্তা ভাত খেয়ে পায়ে হেঁটে বিদ্যালয়ে আসতে হয়। বিদ্যালয় শেষ করে বাড়ি ফিরতে সময় লাগে প্রায় সন্ধ্যা (বিশেষ করে শীতকালে)। এতো দীর্ঘ সময় বিদ্যালয়ে অবস্থান করা শিশুদের ক্ষেত্রে অসম্ভব ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়। অথচ মাধ্যমিক স্তরের বিদ্যালয়ের সময়সূচি সকাল সাড়ে নয়টা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত। আবার উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের সময়সূচির ধরাবাঁধা কোন নিয়ম নেই ।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশুদের চেয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের শিশুরা বয়সে বড় হয়েও বিদ্যালয়ে কম সময় থাকতে হয়, এটা চরম অমানবিক! শিশু মনোবিজ্ঞানের ভাষায় বলে, খেলার ছলে শিক্ষা, শিক্ষানীতির (প্রাথমিক শিক্ষার) দীক্ষা অথচ প্রাথমিক স্তরের শিশুরা খেলাধুলা তো দূরের কথা, প্রকৃতির সঙ্গে পরিচিত হওয়া, খাওয়া-দাওয়া ও ঘুমানোর সময়ও পর্যন্ত ঠিক মতো পায় না।

বিদ্যালয়ের এসব বাড়তি চাপের কারণে প্রাথমিক স্তরে অকালে ঝরে পড়ছে প্রাণ চঞ্চল্য কোমলমতি অনেক শিশু। মেডিক্যাল সায়েন্সের মতে, শিশুদের দৈহিক, মানসিক বিকাশ ঘটে ১৫+ বয়স পর্যন্ত, যা খেলাধূলা ও মুক্ত পরিবেশে বিচরণের মাধ্যমেই সম্ভব। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর কর্তৃক প্রণীত বিদ্যালয়ের সময় সূচির কারণে বিদ্যালয়গামী অবুঝ, কোমলমতি শিশুরা খেলাধুলা ও মুক্তভাবে বিচরণের সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

জাতি গঠনে ভবিষ্যৎ প্রাণ চাঞ্চল্য কোমলমতি শিশু সৈনিকদের ভবিষ্যৎ জীবনের কথা চিন্তা করে প্রাথমিক স্তরের জন্য প্রণীত বিদ্যালয়ের সময়সূচি পরির্বতন করা আশু প্রয়োজন। এ বিষয়ে মাননীয় প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রীর সু-দৃষ্টি কামনা করছি।

লেখক: মুহাম্মদ মাহবুবর রহমান (চঞ্চল), সহকারী শিক্ষক, ক্ষেতলাল, জয়পুরহাট।

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত