ঢাকা, শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২০, ১৬ কার্তিক ১৪২৭ আপডেট : ৪২ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৯:২৪

প্রিন্ট

উপ-নির্বাচনে ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা

উপ-নির্বাচনে ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা
রুহুল কবির রিজভী। ফাইল ছবি
নিজস্ব প্রতিবেদক

পাবনা-৪ আসনের উপ-নির্বাচনে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা ভোট কেন্দ্রের বাইরে ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে ভোটারদেরকে ভোট কেন্দ্রে ঢুকতে দিচ্ছেনা বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

শনিবার রাজধানীর নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক প্রেস কনফারেন্সে তিনি এ অভিযোগ করেন।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, আজ জাতীয় সংসদ পাবনা-৪ আসনের উপ-নির্বাচন চলছে। নির্বাচনকে ঘিরে কয়েকদিন থেকেই চলছে ধানের শীষের প্রার্থীর সমর্থক ও নেতাকর্মীদের ওপর আওয়ামী সন্ত্রাসীদের জুলুম নির্যাতন। পাশাপাশি চলছে পুলিশী ধরপাকড়।

আজ নির্বাচন চলাকালে বিএনপি’র কোন এজেন্টকে ভোটকেন্দ্রে ঢুকুতে দেয়া হচ্ছেনা। আওয়ামী সন্ত্রাসীরা ভোটকেন্দ্রের বাইরে ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে ভোটারদেরকেও ভোটকেন্দ্রে ঢুকতে দিচ্ছেনা। শুধুমাত্র আওয়ামী সন্ত্রাসীরা কেন্দ্রে ঢুকে ভোট দিচ্ছে। এর দু’দিন আগে থেকেই বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার শুরু হয়েছে। আটঘরিয়া থানায় ৩টি এবং ইশ্বরদি থানায় ৩টি গায়েবী মিথ্যা মামলা দায়ের করে পুলিশি অভিযানের নামে বিএনপি নেতাকর্মীদের এলাকা ছাড়া করা হয়েছে।

তিনি বলেন, বর্তমান প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা একজন বিবেকশুণ্য মানুষ। শেখ হাসিনার নির্দেশ মতো তিনি দেশ থেকে সুষ্ঠু নির্বাচনের ইতিহাসকে মুছে দিতে চাচ্ছেন এবং সেই নমুনাই এখন জোরালোভাবে ফুটে উঠতে শুরু করেছে।

বিএনপি ক্ষমতায় যাওয়ার অলি-গলি খুঁজছে- আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এই বক্তব্যের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, বিএনপি অলি গলি খুঁজবে কেন?

বিএনপি তো অবৈধ সরকারের পতনের জন্য প্রশস্ত রাজপথেই আন্দোলন করছে। ষড়যন্ত্র ও চক্রান্তের মাধ্যমে রাজোচিত জীবন নির্বাহ যাতে ব্যাহত না হয় সেজন্যই ওবায়দুল কাদের সাহেবরা কানা গলি দিয়ে কখনো বিনা ভোটে কখনো নিশিরাতের ভোটে ক্ষমতায় আছে। অলি গলি ওবায়দুল কাদের সাহেবদেরকেই অবলম্বন করতে হয়, কারণ তারা ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়ে জনগণকে দুঃসহ জীবন-যাপনে বাধ্য করে অবৈধভাবে ক্ষমতা ধরে রেখেছে।

পাকিস্তানী গোয়েন্দাদের সাথে বিএনপি’র দহরম-মহররম বহু পুরনো- তথ্যমন্ত্রী হাসান মাহমুদের এই বক্তব্যে উল্লেখ করে তিনি বলেন, হঠাৎ করে তথ্যমন্ত্রীর এধরণের উদ্ভট বক্তব্য জনগণের মনে ঘোরতর সন্দেহের সৃষ্টি করেছে। মনে হয় তার মন্ত্রীত্ব এখন টালমাটাল অবস্থায় আছে।

আওয়ামী মন্ত্রীদের বিচারবুদ্ধি নিয়ে জনগণের মাঝে নানা কথা প্রচলিত আছে। তারা যখন খুব বিচলিত ও বেকায়দায় পড়ে তখনই তারা ষড়যন্ত্র তত্ত্ব আবিস্কার করে। বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে আওয়ামী মন্ত্রীদের কপালে দুঃশ্চিন্তার ভাঁজ পড়েছে। বেশ কিছুদিন ধরে দেশী-বিদেশী গণমাধ্যমে আওয়ামী লীগের মুরুব্বী পরিবর্তন নিয়ে নানা আলোচনা চলছে। সুতরাং সব কুল হারিয়ে সরকার মনে হয় স্বস্তিতে নেই। বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে নানা জল্পনা-কল্পনা এড়াতেই তথ্যমন্ত্রী বিদেশে ষড়যন্ত্র তত্ত্ব আবিস্কার করেছেন। আওয়ামী তথ্যমন্ত্রী হাওয়া থেকে পাওয়া তথ্য দিতেই পারঙ্গম।

রিজভী বলেন, আওয়ামী লীগের জন্ম ও বিকাশ দেশী-বিদেশী গোয়েন্দাদের ল্যাবরেটরীতে। হাসান মাহমুদ সাহেব আপনি ভারতের প্রয়াত রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জীর রচিত বইটি পড়ে দেখুন, কিভাবে তিনি জেনারেল মঈনউদ্দিকে ম্যানেজ করেছিলেন শেখ হাসিনার পক্ষে। ভিন্ন দেশের রাজনৈতিক নেতা কিভাবে বাংলাদেশের একটি রাজনৈতিক দলকে ক্ষমতায় বসাতে সহযোগিতা করতে পারে? আপনার নিশ্চয়ই মনে আছে, আপনার প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য। তিনি বলেছিলেন-আমি ভারতকে যা দিয়েছি তা সারাজীবন মনে রাখবে। কিন্তু তিনি দেশের কি কি জিনিস দিয়েছেন তা কিন্তু বলেননি। সুতরাং বিদেশীদের সাথে দহরম-মহররম করে গদি টিকিয়ে রাখার নাম্বার ওয়ান ব্যক্তি হচ্ছেন শেখ হাসিনা।

বাংলাদেশ জার্নাল/এইচকে/কেএস

আরো পড়ুন:

> ভেঙে গেলো ড. কামালের গণফোরাম

> মন্টুদের কাউন্সিল ঘোষণার বৈধতা নেই: কামাল

> করোনামুক্ত হলেন বাহাউদ্দিন নাছিম

> ভেঙে গেলো ড. কামালের গণফোরাম

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত