ঢাকা, শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে English

প্রকাশ : ১৮ নভেম্বর ২০২০, ১৮:২৬

প্রিন্ট

নিজ অর্থায়নে ব্যারিস্টার সুমনের ৩৩তম ব্রিজ

নিজ অর্থায়নে ব্যারিস্টার সুমনের ৩৩তম ব্রিজ
নাজমুল হোসেন

বৈশ্বিক মহামারি করোনা দুর্যোগের সময় মানবসেবায় বিভিন্ন কাজ করে যাচ্ছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের সাবেক প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।

ত্রাণ বিতরণের পাশাপাশি বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষকে করোনা মহামারির এই দুর্যোগের সময় বিভিন্নভাবে সহায়তা করে আসছেন ব্যারিস্টার সুমন। এছাড়াও তার বাবা মায়ের নামে প্রতিষ্ঠিত এর্শাদ আম্বিয়া ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকেও বিভিন্নভাবে মানুষকে সহায়তা করছেন তিনি। ছোট নদী ও খাল পারাপারের জন্য বানাচ্ছেন ব্রিজ।

নিজ এলাকায় কাঠের ব্রিজ বানিয়ে দেয়ার জন্য শুরু থেকেই প্রশংসিত ব্যারিস্টার সুমন। এরই ধারাবাহিকতায় তিনি এই মহামারির সময়েও ব্রিজ নির্মাণ করেছেন। এবার তিনি নিজ অর্থায়নে বানানো ৩৩তম ব্রিজের কাজ শেষ করেছেন বলে ফেসবুক লাইভে এসে জানান। এর আগে আরো ৩২টি ব্রিজ নিজের অর্থ দিয়ে তৈরি করেছেন তিনি।

ব্যারিস্টার সুমনের ৩৩তম এই ব্রিজটি পাঁচটি গ্রামের সেতু বন্ধন গড়ে দিয়েছে। গ্রামগুলো হলো, আঠালিয়া, শাহ পুর, আলাপুর, হাঁকা জোড়া, সোনাপুর। এছাড়া এই ব্রিজটির মাধ্যমে স্থানীয় প্রায় ৩০ হাজার মানুষ উপকৃত হয়েছে।

ফেসবুকে লাইভে বুধবার এসে সুমন বলেন, ‘আমার পেছনে যে ব্রিজটি দেখতে পাচ্ছেন এটা হচ্ছে আমাদের ৩৩তম ব্রিজ, আজ কাজ শেষ হলো। মোট পাঁচটি গ্রামের মানুষ এই ব্রিজটির অভাবে কষ্ট পাচ্ছিলো। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম, যদি এই ব্রিজটি করে দিই তাহলে পাঁচটি গ্রামের মানুষের অনেক বেশি উপকার হবে। সেই ব্রিজটির কাজ সম্পন্ন করতে আমি ঢাকা থেকে এসেছি।

‘আপনারা জানেন, সেই টুঙ্গীপাড়া হয়ে আমি আমার গ্রামের বাড়িতে আসছি। আমার কথা হলো হচ্ছে, আপনার কোন পদ পদবিই যেন মানবিক সত্তাকে নষ্ট না করে! অনেকেই মনে করেন আমি বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের আইন সম্পাদক হওয়ার কারণে গ্রামের কাজগুলা বন্ধ করে দিবো কিনা বা আমি ব্যস্ত হয়ে পড়বো কিনা। আমি তাদের উদ্দেশে বলতে চাই, মনে রাখবেন আমি যতদিন বেঁচে আছি আমি আমার গ্রামের মানুষদের ছেড়ে দূরে যাবো না। আমার যতদিন সামর্থ্য আছে এই কাজ করে যাবো।’

‘হয়তো আমার বক্তব্য যারা শুনছেন তাদের জন্য ছোট্ট এই ব্রিজ কিছুই না, কিন্তু যারা এখানকার ভুক্তভোগী তাদের জন্য এটা বিশাল কিছু। যখন বর্ষার মৌসুমে এখানে পানি থাকে তখন স্কুলের শিক্ষার্থীদের পাড় হতে কত কষ্ট করতে হয় আপনারা কল্পনাও করতে পারবে না। আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ, এই অঞ্চলের মানুষ যারা ডেকে এনে আমাকে এই সমস্যা দেখিয়েছেন।’

ব্রিজ পেয়ে স্থানীয় একজন ফেসবুক লাইভে জানান, এই ব্রিজ হওয়ার ফলে তাদের জন্য অনেক ভালো হয়েছে। আগে সাঁতার দিয়ে পাড় হতে হতো। আর বাচ্চাদের স্কুল বন্ধ থাকতো। বার বার জনপ্রতিনিধিদের জানানোর পরও কোনো কাজ হয়নি। দেবো, দিচ্ছি বলে কখনো ব্রিজটি করে দেয়নি।

তরুণদের উদ্দেশে ব্যারিস্টার সুমন বলেন, ‘আপনার সেবার প্রক্রিয়া যেনো কোনোভাবেই বন্ধ না হয়। কষ্ট শোনার মানসিকতা নিয়েই সামনে এগিয়ে যেতে হবে। এই তেত্রিশতম ব্রিজটি উদ্বোধন করতে পেরে আমার মনে হচ্ছে, আমার সকল কষ্টের শুভ সমাপ্তি ঘটলো।’

এর আগে গত মার্চে ব্যারিস্টার সুমন তার নিজ এলাকা চুনারুঘাট থানার ৪ নম্বর পাইকপাড়া ইউনিয়নের এক এলাকায় লোকজনের খাল পেরিয়ে বাজারে এবং শিক্ষার্থীদের স্কুলে যাওয়ার কষ্ট দূর করতে একটি ব্রিজ বানিয়ে দেন।

তখন তিনি জানিয়েছিলেন, ব্রিজ বানানোর খরচ তার ঈদ খরচ থেকে বহন করেছেন। নিউইয়র্ক থেকে ব্যারিস্টার সুমনের ভাই এবং আত্মীয় স্বজনের পাঠানো ৭০ হাজার টাকা ঈদ খরচ দিয়ে তিনি কেনাকাটা না করে এই ব্রিজ বানিয়ে দেন।

তিনি চুনারুঘাট উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ছোট নদী, খাল ও ছড়ার ওপরে নিজ খরচে নির্মাণ করেছেন কাঠের ব্রিজ। নদী পারাপারের জন্যও উপহার হিসেবে ক্রয় করে দিয়েছেন কয়েকটি নৌকা। যুবকদের খেলাধুলার উপকরণ দিচ্ছেন। অসহায়দের মাঝে আর্থিক সহযোগিতা অব্যাহত রেখেছেন। শীতার্তদের মাঝে কম্বল, শীতবস্ত্র বিতরণ করেছেন। প্রতিবন্ধীদের মাঝে করেন হুইল চেয়ার বিতরণ। চুনারুঘাট নয় যেকোনো স্থানের সমস্যা সমাধানে ফেসবুক লাইভে গিয়ে প্রচার করে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কামনা করছেন তিনি। এতে সমাধানও আসছে। দেশজুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে তার এসব জনকল্যাণমুখী কর্মকাণ্ড।

তিনি নিজে মাঠে নেমে ফুটবল খেলায় অংশগ্রহণ করেন। তার খেলা উপভোগ করতে মাঠে দর্শক সমাগম ঘটে। যে স্থানেই যাচ্ছেন তৃণমূলের লোকেরা তার কাছে আসছে। শুধু চুনারুঘাট-মাধবপুর নয় নিজের কর্মকাণ্ডে জেলাজুড়ে তৃণমূল মানুষের হৃদয় জয় করেছেন ব্যারিস্টার সুমন।

সূত্র জানায়, চুনারুঘাটের বিভিন্ন স্থানে তার অর্থে নির্মিত ব্রিজ ও রাস্তা সংস্কার হওয়ায় হাজার হাজার লোক উপকৃত হয়েছেন। তার সঙ্গে উপহার দেয়া নৌকায় চড়ে লোকেরা নদী পারাপার হতে পারছেন। এক কথায় তৃণমূলের সেবায় রাস্তা ও ব্রিজ নির্মাণ করে প্রশংসিত ব্যারিস্টার সুমন।

ভিডিওটি দেখতে ক্লিক করুন...

আরো পড়ুন: যুবলীগের কমিটিতে নাম, যা বললেন ব্যারিস্টার সুমন

বাংলাদেশ জার্নাল/এনএইচ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত