ঢাকা, বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ৯ আষাঢ় ১৪২৮ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে

প্রকাশ : ০৭ মে ২০২১, ১৯:২০

প্রিন্ট

মসজিদ নির্মাণ নিয়ে আনসার-স্থানীয়দের সংঘর্ষ, আহত ১০

মসজিদ নির্মাণ নিয়ে আনসার-স্থানীয়দের সংঘর্ষ, আহত ১০
ছবি- প্রতিনিধি

পটুয়াখালী প্রতিনিধি

পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় মসজিদ নির্মাণকে কেন্দ্র করে আনসার ব্যাটালিয়ান জওয়ানদের সঙ্গে স্থানীয়দের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে নারীসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হয়েছে।

জানা গেছে, এলাকাবাসীর উদ্দোগে মসজিদ নির্মাণে বাধা প্রদানের জেরে শুক্রবার জুম্মা নামাজের আগে ও বাদ জুম্মা পৌর শহরের নাচনাপাড়া এলাকায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ​স্থানীয়দের ওপর ব্যাটালিয়ান জওয়ানদের লাঠিপেটা ও ইট-পাটকেল নিক্ষেপে নাচনাপাড়া এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। এতে বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে এলাকাবাসী।

ঘটনার পর কলাপাড়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আলী আহমেদ, ইউএনও আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহিদুল হক, পৌরসভার মেয়র বিপুল চন্দ্র হাওলাদার, কলাপাড়া ওসি খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান ও জেলা আনসার ব্যাটালিয়ান কমান্ডিং অফিসার মো. কামরুজ্জামান পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ঘটনাস্থলে ছুটে যান।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সূত্র জানায়, আনসার ব্যাটালিয়ান ক্যাম্প মসজিদে বাউন্ডারি ওয়াল ও গেট নির্মাণের ফলে স্থানীয় মুসুল্লিরা নামাজ আদায় করতে পারছিল না। পরে নিজেদের উদ্দোগে নাচনাপাড়া এলাকায় মসজিদ নির্মাণ কাজ করছিল স্থানীয়রা। পরে ক্যাম্পের কয়েকজন জওয়ান মসজিদ নির্মাণের স্থানটি তাদের দাবি করে কাজে বাধা দেয়। এরপর মসজিদ নির্মাণের উদ্দোক্তা কালাম মুসুল্লিকে (৪৫) শুক্রবার জুম্মা নামাজের পূর্বে বাসা থেকে ডেকে এনে লাঠিপেটা করে আনসাররা।

বিষয়টি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয়রা বিক্ষুব্ধ হয়ে অভিযুক্ত জওয়ানদের বিচার দাবি করে। এ সময় ব্যটালিয়ান ক্যাম্পের জওয়ানরা জড়ো হয়ে স্থানীয়দের ওপর লাঠিচার্জসহ ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করায় নারীসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়।

আহত নুর আলম (৪০), তানিয়া (২৫), শাহিন (২৬), রোজিনা (২৫), আবুল কালাম (৫০), শামিম (১৫), জেসমিন (৩২), ফোরকান (৪৫) ও রাশিদাকে (৫০) চিকিৎসার জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে জেলা আনসার ব্যাটালিয়ান কমান্ডিং অফিসার কামরুজ্জামান এ ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, অনাকাঙ্খিত এ বিষয়টি তদন্ত করে অভিযুক্ত জওয়ানদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অন্যদিকে ব্যাটালিয়ান ক্যাম্প সূত্রের দাবি, স্থানীয়দের হামলায় ৪ ব্যাটালিয়ান জওয়ান আহত হয়েছে।

কলাপাড়া থানার ওসি খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ঘটনার পর পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ নিয়ে উপজেলা প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি ও আনসার ব্যাটালিয়ান কমান্ডিং অফিসার স্থানীয়দের নিয়ে সমঝোতার চেষ্টায় বৈঠক করেছেন। বর্তমানে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বিরাজ করছে।

ওসি আরও বলেন, এখন পর্যন্ত কোনো পক্ষ থেকে কোনো ধরণের লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

বাংলাদেশ জার্নাল/এসকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত