ঢাকা, সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৬ আশ্বিন ১৪২৭ আপডেট : ৬ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ০৩ আগস্ট ২০২০, ১৭:১৭

প্রিন্ট

ব্যাংকপাড়ায় ছিলো না কর্মচাঞ্চল্য

ব্যাংকপাড়ায় ছিলো না কর্মচাঞ্চল্য
সুশান্ত সাহা

ঈদুল আজহার ছুটির পর প্রথম কর্মদিবসে রাজধানীর ব্যাংকপাড়া মতিঝিল এলাকায় ছিল ঈদের আমেজ। ছুটি শেষে ব্যাংকে আসা কর্মকর্তারা নিজেদের মধ্যে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এ সময় গ্রাহকদের তেমন দেখা যায়নি। কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপস্থিতিও ছিলো কম। কারণ অনেকে সাধারণ ছুটির সঙ্গে অতিরিক্ত ছুটি নিয়ে ঈদ করতে গ্রামের বাড়ি গেছেন। ফলে দেখা যায়নি চিরাচরিত ব্যস্ততা ও কর্মচাঞ্চল্য।

সোমবার রাজধানীর ব্যাংকপাড়া মতিঝিল, দিলকুশা ঘুরে দেখা গেছে এমন চিত্র। ঈদের পর প্রথম কার্যদিবস সোমবার ব্যাংকগুলো ছিলো অনেকটা ফাঁকা। কমকর্তারা অলস সময় পার করেছেন। লেনদেন কার্যক্রমেও ছিলো না ব্যস্ততা।

পবিত্র ঈদুল আজহার ছুটি শেষে সোমবার সরকারি ও বেসরকারি সব অফিস-আদালত খুলেছে। পাশাপাশি খুলেছে ব্যাংক-বীমা ও শেয়ারবাজার। প্রতিবারের মতো এবারও ঈদুল আজহায় তিন দিনের ছুটি ছিল। গত শুক্রবার থেকে এ তিন দিনের ছুটি শুরু হয়। শনিবার ঈদুল আজহা পালিত হয়। রোববার ছিলো ঈদের ছুটির শেষ দিন।

সোনালীর ব্যাংকের মতিঝিল শাখায় গিয়ে দেখা যায়, হাতে গোনা কয়েকজন গ্রাহক টাকা তোলা ও জমা দেয়ার জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছেন। আবার অনেক গ্রাহক এসেছেন সঞ্চয়পত্রের সুদের টাকা তোলার জন্য। সেখানে কথা হয় বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা নাজমুল হোসেন সঙ্গে। তিনি বলেন, মা-বাবার জন্য বাড়িতে টাকা পাঠাতে এসেছি। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ কোথাও যাচ্ছে না।

মতিঝিল সোনালী ব্যাংকের জেনারেল ম্যানেজার মোহাম্মদ মোদাচ্ছের হাসান বলেন, ঈদের ছুটির পর আজকে ব্যাংক খুলেছে। গ্রাহক উপস্থিতি স্বাভাবিক দিনের তুলনায় অনেক কম। লেনদেনও কম হচ্ছে। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া তেমন লেনদেন হচ্ছে না।

এদিকে করোনাকালীন পরিস্থিতিতে সরকারের নির্দেশনায় ঈদুল আজহার ছুটিকালীন সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাধ্যতামূলক কর্মস্থলে থাকতে হয়েছে। অন্যদিকে গার্মেন্টস কর্মীদেরও ঢাকায় থাকার নির্দেশনা ছিল। ফলে তারাও এবার বাড়ি যেতে পারেননি।

বাংলাদেশ জার্নাল/আরকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত