ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১, ৮ আষাঢ় ১৪২৮ আপডেট : ১০ মিনিট আগে

প্রকাশ : ০৯ মে ২০২১, ১৯:২২

প্রিন্ট

লকডাউনে আটকা সিনিয়র শিক্ষক পদোন্নতি

লকডাউনে আটকা সিনিয়র শিক্ষক পদোন্নতি
ছবি- নিজস্ব

আসিফ কাজল

লকডাউনের কারণে সরকারি মাধ্যমিকের সাড়ে ৫ হাজার শিক্ষকের পদোন্নতি আটকে আছে। পদোন্নতির চূড়ান্ত আদেশ প্রকাশ হয়েও যেনো হচ্ছে না। শিক্ষকরা বলছেন, ৬ মাস ধরে পদোন্নাতি আটকে থাকায় শিক্ষকদের মধ্যে হতাশা বাড়ছে।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর জানায়, চূড়ান্ত তালিকা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠালেও এখনো সরকারি আদেশ প্রকাশ করা হয়নি। মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, মন্ত্রণালয়ের কাজ শেষ হলেও এ বিষয়ে আরো সময় লাগতে পারে।

এ বিষয়ে রোববার মাউশি পরিচালক (বিদ্যালয়) মো. বেলাল হোসাইন বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, লকডাউনের কারণে সচিবালয়ে যাওয়া হয়না। আমরা ৫ হাজার ৪৫২ জনের তালিকা প্রস্তুত করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। পদোন্নতির কার্যক্রম এখন মন্ত্রণালয় দেখবে। তবে নির্দিষ্ট কোন সময় তারিখ জানাতে পারেননি তিনি।

এদিকে রোববার সরকারি কলেজ শিক্ষকদের পদোন্নতির বিষয়ে সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। অথচ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ৬ মাস আগে সিনিয়র শিক্ষক পদে পদোন্নাতির তালিকা প্রকাশ করলেও কোনো খবর নেই বলে জানিয়েছেন সরকারি মাধ্যমিকের একাধিক শিক্ষক।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক শিক্ষক বলেন, দেড় মাস ধরেই শুনছি সিনিয়র শিক্ষক পদোন্নতির আদেশ জারি করা হচ্ছে। কিন্তু কোনো খবর নেই। পদোন্নতি প্রকাশের দীর্ঘ সূত্রিতার কারণে এরইমধ্যে অনেক শিক্ষক মারা গেছেন। অনেক শিক্ষক অবসরে চলে গেছেন। অথচ তারা দীর্ঘ ৩০-৩২ বছর ধরে একই পদে শিক্ষকতা করেছেন।

বাংলাদেশ সরকারি মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শাহাব উদ্দিন সালমী বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, আমরা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে অনেকবার আলোচনা করেছি। সর্বশেষ ১৩ এপ্রিল একটি সভায় আমাদের জানানো হয়েছে যে, দ্রুত সময়ের মধ্যেই শিক্ষক পদোন্নতি নিশ্চিত করা হবে।

জানতে চাইলে রোববার দুপুরে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোমিনুর রশিদ আমিন বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, এইমাত্র এ বিষয়ে মিটিং শেষ করে আসছি। মাউশি থেকে পাঠানো তালিকা শিক্ষা মন্ত্রণালয় বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনে (পিএসসি) সুপারিশ আকারে পাঠিয়েছি। ওখান থেকে অনুমোদন হলেই সরকারি আদেশ জারি করা হবে।

অতিরিক্ত সচিব আরো বলেন, সিনিয়র শিক্ষক পদোন্নতির ফলে শিক্ষকরা দ্বিতীয় শ্রেণী থেকে প্রথম শ্রেণীর পদে উন্নীত হবেন। এই কারণেই পিএসসিতে সুপারিশ করা হয়েছে।

কবে নাগাদ শিক্ষকরা পদোন্নতি পাবেন জানতে চাইলে মোমিনুর রশিদ আমিন বলেন, এখন বিষয়টি দেখভাল করবে পিএসসি। এই বিষয়ে আমি কিছু বলতে পারবো না। তবে সব শিক্ষক পদোন্নতি পাবেন বলে বাংলাদেশ জার্নালকে আশ্বস্ত করেন তিনি।

উল্লেখ্য, গত বছরের ৩০ নভেম্বর সিনিয়র শিক্ষক পদে পদোন্নতির খসড়া তালিকা প্রকাশ করা হয়। এ তালিকায় ৬ হাজার ১৫৫ জন সহকারী শিক্ষককে সিনিয়র শিক্ষক পদে পদোন্নতি জন্য জ্যেষ্ঠতার তালিকা তৈরি করা হলেও তা নিয়ে কিছু শিক্ষকের মধ্যে অসন্তোষ সৃষ্টি হয়। পরে ওই তালিকা বাতিল করে নতুন করে পদোন্নতির তালিকা তৈরি করার উদ্যোগ নেয় মাউশি। ‘২০১১ ও ২০১২ সালে সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে যোগদান করা শিক্ষকদের জ্যেষ্ঠতা নিয়ে কিছুটা জটিলতায় নতুনভাবে সংশোধন করা হয়। এছাড়াও সিনিয়র শিক্ষক পদোন্নতির তালিকা নিয়ে মন্তব্য করায় ১০ শিক্ষককে শোকজ ও করেছিলো মাউশি।

বাংলাদেশ জার্নাল/একে/আরএ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত