ঢাকা, বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬ আপডেট : ১৯ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৬:১৩

প্রিন্ট

সাড়ে সাত কেজি ওজন কমিয়েছি: মৌসুমী হামিদ

সাড়ে সাত কেজি ওজন কমিয়েছি: মৌসুমী হামিদ
ইমরুল নূর

নায়িকা নয়, নিজেকে অভিনেত্রী হিসেবে পরিচয় দিতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন লাক্সতারকা মৌসুমী হামিদ। শৈল্পিক গুণ আর নান্দনিক অভিনয়ে মুগ্ধতা ছড়াচ্ছেন এক দশক ধরে। নেই কোন অহংকার, কোন উচ্চাভিলাষী, কাজ করে যাচ্ছেন আপন মনে। ছোট্ট আলাপচারিতায় নিজের কাজ ও ব্যস্ততা নিয়ে কথা বলেছেন ছোট পর্দার জনপ্রিয় এ তারকা।

অভিনয় জীবনের এক দশক পূর্ণ হলো। দীর্ঘ এই ক্যারিয়ারে প্রাপ্তি ও অপ্রাপ্তি কি ছিলো?

মৌসুমী হামিদ: আমি মনে করি যা পেয়েছি তার পুরোটাই প্রাপ্তি। দশ বছর আগে আমি যখন খুলনাতে ছিলাম তখন তো কেউ আমাকে চিনতো না। এখানে এসে একটা নাম পেয়েছি। এখন যে মানুষজন আমাকে আমার নামে চেনে সেটা তো এই ইন্ডাস্ট্রির কল্যাণেই। আমি খুব অল্পতে খুশী হওয়া মানুষ। বেশী কিছু আশা করি না। আমার পথচলার শুরু থেকে দর্শকসহ এখানকার সহকর্মীদের অনেক ভালোবাসা ও সাপোর্ট পেয়েছি। এভাবেই সামনে এগিয়ে যেতে চাই। আমি স্বপ্নের পিছনে দৌড়াই না। সময়ের সাথে সাথে স্বপ্নও পাল্টে যায় তাই স্বপ্নের পিছনে ছুটা উচিত না। স্বপ্ন ভেঙ্গে গেলে খারাপ লাগে। তাই স্বপ্নের পিছনে না ছুটে পরিশ্রম করছি, শারীরিকভাবে ফিট রাখছি। আগে পারফর্মেন্স দেখে কাজে নেওয়া হতো,দেখতে যেমনই হোক আর এখন নেওয়া হয় গ্ল্যামার দেখে। গ্ল্যামার ওয়ার্ল্ডে কাজ করতে গিয়ে যদি সেটা ধরে না রাখা না যায় তাহলে তো হবে না।

আপনার অভিনীত সপ্তম সিনেমা 'গোর' যেটি দুই ভাষায় নির্মিত হয়েছে। ছবিটি সম্পর্কে জানতে চাই..

মৌসুমী হামিদ: 'গোর' ছবিটি বাংলা ও ইংরেজি দুই ভাষাতে নির্মিত হয়েছে। এরইমধ্যে সেন্সর সার্টিফিকেটও পেয়ে গেছে ছবিটি। খুবই সুন্দর ও ইন্টারেস্টিং গল্পের একটা ছবি। আমাকে দেখা যাবে বিধবা মেয়ের চরিত্রে যে কিনা বাবা ও ভাইয়ের বোঝা। বিধবা মেয়েরা আসলে ভালোবাসা পায় না, সে না পাওয়ার গল্প নিয়েই এই ছবি।

২০১৮ সালের অক্টোবরে ছবিটির শুটিং শুরু হয়। নানারকম মহড়ায় অংশ নেওয়ার পর প্রস্তুতি নিয়ে কাজটি করেছি। ভীষণ উপভোগ করেছি আর ছবিটা নিয়ে আমি খুব আশাবাদী।

নাটকে এখন ঘুরে ফিরে একই মুখ দেখা যায়। শোনা যায়, অপূর্ব-মেহজাবিন,নিশো-তিশা জুটির বাইরে অন্যান্যদের কাজ কমে গিয়েছে এখন। এ বিষয়ে আপনার মন্তব্য কি?

মৌসুমী হামিদ: আমি সেটা মনে করি না। আমার কথা-ই যদি বলি, আমি তো আমার মত করে কাজ করছি। আর তারা এখন একটু বেশী কাজ করছে এজন্য হয়তো এমনটা মনে হচ্ছে। আর এটাও কিন্ত সত্যি যে, এখন ইন্ডাস্ট্রি পরিবর্তন হচ্ছে, সময়ও পরিবর্তন হয়েছে। জুটি প্রথা আগেও ছিল এখনও আছে, এটা চলমান। তাদের কাজ দর্শক দেখছে বলেই তো এত চাহিদা বাড়ছে। তারাও অনেকটা সময় পার করে, জার্নি করে এই জায়গাটাই এসেছে। সুতরাং জায়গাটা তারা ধারণ করতেই পারে।

অপূর্ব ভাই ভীষণ পজেটিভ মানুষ। তাকে কখনও দেখি নি সেটে কারও সাথে খারাপ আচরণ করতে বা কাউকে ভুল পরামর্শ দিতে। পরিশ্রম করে নিজের অবস্হান তৈরি করেছেন। এদিকে মধ্যে মেহজাবিন কাজের প্রতি খুবই সচেতন। স্ক্রীপ্ট চর্চা,কস্টিউম মেইনটেইন সবকিছু খুব যত্নের সাথে করে। সময় মেইনটেইন করে খুব আর অভিনয়ের প্রতি তো ভীষণ যত্নশীল আর পরিশ্রমী। অনেক কষ্ট করে সে। সেদিক থেকে জায়গাটা তো সে ডিজার্ভ করে।

বেশ অনেকদিন ধরে আপনার ফিটনেসের পরিবর্তন দেখা গিয়েছে। এর কারণ কী?

মৌসুমী হামিদ: হাহাহা। গত আড়াই মাস ধরে আমি জিম করছি। একটু মুটিয়ে গিয়েছিলাম তাই নিজের ফিটনেস ঠিক থাকতে জিম শুরু করি। নিজেকে ফিট,সুন্দর ও স্বাস্থ্য সচেতন রাখতেই ওজন কমিয়েছি। অনেকটা শুকিয়েছি এর মধ্যে। সাড়ে সাত কেজি ওজন কমেছে আমার। এখন নিজেকে আরও সুন্দর লাগে আমার কাছে। স্ক্রীণে দেখতেও ভালো লাগে। মনে হয় যেন, নিজের প্রেমে পড়ে গেছি।

নাটকে ঘুরে ফিরে একইরকম গল্প ও চরিত্র দেখা যায়। সেগুলোতে কাজ করতে একঘেয়েমি লাগে না?

মৌসুমী হামিদ: একই রকম গল্প ও চরিত্রে আমি কাজ করছি না। আগে কাজের প্রতি খুব একটা সচেতন ছিলাম না কিন্তু এখন অনেকটাই সচেতন। যতটুকু করছি বেছে করছি। এককের পাশাপাশি চারটা ধারাবাহিক যাচ্ছে নিয়মিত যার প্রত্যেকটাই আলাদা আলাদা চরিত্র। কোনটাতে টম বয়, কোনটাতে শান্তশিষ্ট আবার কোনটাতে শহুরে আধুনিক মেয়ে। কোনটার সাথে কোনটার মিল নেই।

এবছরই নাকি বিয়ে করবেন, শোনা যাচ্ছে..

মৌসুমী হামিদ: বিয়ে নিয়ে আমার চেয়ে সবার বেশি চিন্তা। সবাই আমার বিয়ে নিয়ে চিন্তিত। তবে এটা দেখে ভালো লাগছে যে আমাকে নিয়ে এত এত মানুষ চিন্তা করে। সবার জন্য আমার অফুরান ভালোবাসা। আর যদি পছন্দমত ছেলে পাই তাহলে এইবছরই বিয়ে করবো।

আইএন

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত