ঢাকা, শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০ আশ্বিন ১৪২৭ আপডেট : ১৮ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১২ আগস্ট ২০২০, ২০:৫৫

প্রিন্ট

করোনাকালে আফফান মিতুলের প্রস্তুতি

করোনাকালে আফফান মিতুলের প্রস্তুতি
বিনোদন ডেস্ক

সিনেমার শুটিং শুরু হলেও লকডাউনের পর কোন শুটিংয়ে দেখা যায়নি চিত্রনায়ক আফফান মিতুলকে। ক্যামেরার সামনে ফিরবেন ‘জিহাদ’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে। আর এই ‘জিহাদ’ চলচ্চিত্রের প্রধান চরিত্রে অভিনয় করার জন্যে ৬ মাস আগে থেকেই নির্মাতা সাজ্জাদ খানের নির্দেশে আফফান মিতুল বন্ধ করেছেন দাড়িগোঁফ কাটা, কাটছেন না মাথার চুলও। এই সময়টা ঘরে বসেই কাটাচ্ছেন নায়ক।

তবে ঘরবন্দী সময় কাটালেও অবসর নেই তার। সময়টাকে কাজে লাগাচ্ছেন লেখালেখি নিয়ে। জানা যায়, এই লকডাউনের মধ্যে ঘরে বসে দুইটি সিনেমার গল্প লিখেছেন, লিখেছেন একটি নাটকের পাণ্ডুলিপি। নায়ক পরিচয়ের বাইরে এবার আসতে যাচ্ছেন গল্পকার ও চিত্রনাট্যকার হিসেবে।

চলচ্চিত্র নির্মাতা সায়মন তারিক নির্মাণ করবেন আফফান মিতুলের কাহিনী, সংলাপ, চিত্রনাট্য অবলম্বনে দুইটি পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘স্বপ্নের ফেরিওয়ালা’ এবং ‘মিস রিপোর্টার’।

এদিকে, নাট্যনির্মাতা নিবিড় চৌধুরী নির্মাণ করবেন আফফান মিতুলের লেখা ‘মোহ’ নাটকটি। করোনাভাইরাসের এই সময়টাতে আফফান মিতুল এই কাজগুলোতে নিজেকে ব্যস্ত রেখেছেন। তবে সবচেয়ে বেশী এই সময়টা কাজে লাগিয়েছেন ‘ঢাকা অ্যাটাক’ খ্যাত নির্মাতা দীপঙ্কর দীপনের অনলাইন অ্যাক্টিং স্কুল ‘বিওফি’তে অভিনয়ের ৩ মাসের ক্লাস করে।

এই বিষয়ে মিতুল জানান, ‘করোনাভাইরাসের এই গৃহবন্দী সময়টাতে আমার সবচেয়ে বেশি উপকার হয়েছে অনলাইনে অভিনয় শেখার ক্লাস করে। দীপঙ্কর দীপন দাদার কাছ থেকে অনেক কিছু শিখছি, ৩ মাসের এই কোর্সটি শেষ হতে আরো প্রায় ১ মাস বাকি, তখন মিলবে সার্টিফিকেটও। কপাল ভালো হলে দাদার ডিরেকশনেও অভিনয় করার সুযোগ মিলতে পারে যদি এই কোর্সটি ভালোভাবে শেষ করতে পারি।’

করোনার এই সময়টাতে নাটক-সিনেমার স্ক্রিপ্ট লেখায় আগ্রহী হলেন কেন? জানতে চাইলে মিতুল বলেন, ‘মূলত গল্পের বই পড়তে গিয়ে আমার কাছে মনে হলো, আমি যেটা ভাবছি সেটা যদি ভিজ্যুয়ালাইজেশন করতে পারি তাহলে তো মন্দ হয় না। তো সেই ভাবনা থেকেই লেখা। আর সিনেমার স্ক্রিপ্ট প্রথমবার লিখলেও নাটক বা স্বল্পদৈর্ঘ্যের স্ক্রিপ্ট লেখায় আমি নতুন নই। এর আগেও আমার লেখা অসংখ্য নাটক ও স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছে। গেলো রোজার ঈদে আমার লেখা ও অভিনয়ের ‘ঈদের ছুটি’ স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রটি বেশ প্রশংসিত হয়। খুব শিগগিরই আমি ‘দোটানা’ শিরোনামের একটি পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের স্ক্রিপ্ট লেখা শুরু করবো, এটি প্রযোজনা করবেন অভিজিৎ ঘোষ।

চলচ্চিত্রে এখন আপনার উঠতি সময়। স্ট্রাগল করে যাচ্ছেন নিজেকে একটা শক্ত অবস্থানে নিয়ে যাওয়ার। নায়কের বাইরে আগামীতে আপনাকে প্রযোজনায় দেখা যাবে কিনা বা কোন প্রোডাকশন হাউজ খোলার পরিকল্পনা আছে কিনা? এমন প্রশ্নের জবাবে মিতুলের উত্তর, ‘মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড় অনেক ক্ষেত্রে স্বপ্নের চেয়েও বড়। এটা আমি বিশ্বাস করতে বাধ্য হয়েছি। স্বপ্ন দেখতে তো কষ্ট নেই। ইচ্ছে তো আছেই আগামীতে এমন কিছু করার। শুধু ইন্ডাস্ট্রি থেকে নিয়ে যাবো, কিছু দিবো না; তা তো হয় না। ইন্ডাস্ট্রির জন্য কিছু অবশ্যই করতে চাই। সেজন্য সবার সাপোর্ট আমার খুব বেশি প্রয়োজন। সবাই যদি সাপোর্ট করে তাহলে অবশ্যই প্রযোজনায় আসবো, তবে সেটা আরো অন্তত ১০ বছর পরে।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমার অল্প সময়ের ক্যারিয়ারে সবার অনেক অনেক ভালোবাসা ও সাপোর্ট পেয়েছি। এই ভালোবাসাটা সবসময় পেতে চাই। আমি এখনও স্ট্রাগলার। এখনও অনেক কিছু হয়ে যাইনি। নিজেকে ইম্প্রুভ করার চেষ্টা করছি। স্বপ্ন দেখছি এবং সেটা পূরণ করবো ইন শা আল্লাহ।’

প্রসঙ্গত, গেল ২৭ মার্চ মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল আফফান মিতুলের ‘গন্তব্য’ সিনেমাটি। কিন্তু দেশের করোনা পরিস্থিতির কারণে সেটি মুক্তি দেওয়া হয়নি। ‘নিশ্চুপ ভালোবাসা’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে ঢাকাই সিনেমায় নায়ক হিসেবে অভিষেক হয়েছে আফফান মিতুলের, এই সিনেমায় আফফান মিতুলের বিপরীতে অভিনয় করেছেন ‘জি হুজুর’ খ্যাত সাইমন সাদিকের নায়িকা সারা জেরিন। এছাড়াও তার হাতে রয়েছে ‘পদ দর্পণ’, ‘ঊদয়স্ত’, ‘সব সুখ তোর জন্য’, ‘রজকিনী চণ্ডিদাস’, ‘হাই টেম্পার’, ‘আজিরন বেওয়া’, ‘আদম’ শিরোনামের একগুচ্ছ সিনেমা। এই বছরেই শুরু হবে সিনেমাগুলোর শুটিং।

বাংলাদেশ জার্নাল/এনএইচ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত