ঢাকা, সোমবার, ০৬ এপ্রিল ২০২০, ২৩ চৈত্র ১৪২৬ আপডেট : কিছুক্ষণ আগে English

প্রকাশ : ১৩ মার্চ ২০২০, ১৬:১৯

প্রিন্ট

রাতের অন্ধকারকে ক্যানভাসবন্দি করেন যে শিল্পী

রাতের অন্ধকারকে ক্যানভাসবন্দি করেন যে শিল্পী
ছবি: সংগৃহীত

Evaly

ফিচার ডেস্ক

শহরে আলোর দূষণের কারণে রাতের অন্ধকার দেখার অভিজ্ঞতা বিরল হয়ে উঠছে। এক জার্মান শিল্পী শুধু রাতের নানা রূপ ক্যানভাসে ধরে রাখার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে রাতের অনবদ্য রূপ তাঁকে হাতছানি দিচ্ছে।

সিলকে সিলকেবর্গ রাতেইকাজ করেন। স্টুডিও নয়, তেলের বাতি, ক্যানভাস, রং ও সাজসরঞ্জাম নিয়ে তিনি প্রকৃতির কোলে, নির্জন কোনো জায়গায় গিয়ে রাতের ছবি আঁকেন। সবাই যখন ঘুমায়, তখনই তিনি সৃষ্টির কাজে মেতে ওঠেন। পরিস্থিতি ঠিক থাকলে সপ্তাহে তিন থেকে চারবার বেরিয়ে পড়েন তিনি। রাতের অন্ধকারের প্রতি এমন আকর্ষণ সম্পর্কে সিলকে বলেন, ‘‌কেন আমি রাতের ছবি আঁকি? এই প্রশ্ন প্রায়ই নিজের মনে জাগে। কিন্তু রাতের অভিজ্ঞতা দিনে একেবারেই সম্ভব নয়। দিনের বেলা যা কিছু দেখি, তার বেশিরভাগটাই আসলে বিচ্যুতি। রাতে স্পষ্ট কাঠামোর বদলে পরিবেশের অনেক বেশি স্তর আমার চোখে পড়ে। যেটুকু দেখতে পাই, তার তুলনায় অনেক বেশি দেখা সম্ভব। সে কারণে আমি শিল্পী হিসেবে নিজস্ব ব্যাখ্যা জুড়ে দিতে পারি।'

চলতি রাতে তিনি লাইপসিশ শহরের উপকণ্ঠে লয়না কারখানার মোটিফ আঁকছেন। তার মতে, লয়নার বিশাল বর্তমানে পাগলামিতে পরিণত হয়েছে। দেখলে মনে হবে উৎসব উপলক্ষ্যে আলো জ্বালানো হয়েছে।

খুব কম জয়গায়ই রাতে সত্যি অন্ধকার পরিবেশ পাওয়া যায়। বৈদ্যুতিক বাতি আবিষ্কারের পর থেকে শহর ও কারখানা রাতকে আলোকিত রাখে। এই আলো দূষণের ফলে মানুষ ঠিকমতো ঘুমাতে পারে না এবং পোকামাকড় দিকনির্ণয় করতে পারে না। সিলকে সিলকেবর্গ বলেন, ‌‌‌‌‌‌আমার কাছে আলোর দূষণ দ্বৈত দ্যোতনা সৃষ্টি করে৷ কারণ শিল্পীর দৃষ্টিভঙ্গিতে এমন আলোর আকর্ষণ রয়েছে৷ অন্যদিকে যুক্তির নিরিখে জানি, এটা কত বড় বিপর্যয়।

সিলকে সিলকেবর্গ রাত ছাড়া অন্য কিছু আঁকার কথা ভাবতে পারেন না। তিনি আইসল্যান্ডে গিয়ে রাতের অন্ধকারে মেরুচ্ছটা আঁকতে চান। ইন্দোনেশিয়ায় সমুদ্রের আভাও তিনি ক্যানভাস-বন্দি করতে চান। আফ্রিকার ঘন অন্ধকারাচ্ছন্ন রাত ও দক্ষিণ অ্যামেরিকার আটাকামা মরুভূমির নক্ষত্রে ভরা রাতের আকাশও তাকে হাতছানি দেয়। তার মতে, অন্ধকারের সব রূপ তুলে ধরতে হলে একটি জীবন মোটেই যথেষ্ট নয়।

বাংলাদেশ জার্নাল/এইচকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত