ঢাকা, সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ১১ শ্রাবণ ১৪২৮ আপডেট : ২০ মিনিট আগে

প্রকাশ : ১৩ জুন ২০২১, ১৭:০১

প্রিন্ট

ইউরোপের বাজারে নাটোরের পান, খুশি চাষীরা

ইউরোপের বাজারে নাটোরের পান, খুশি চাষীরা
ছবি: প্রতিনিধি

নাটোর প্রতিনিধি

নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে সাড়ে ছয় বছর পর ইউরোপের বাজারে নতুন করে পান রপ্তানি শুরু করেছে বাংলাদেশ। এ খবরে খুশি নাটোর জেলার পান চাষীরা।

নাটোরের সদর, বড়াইগ্রাম, গুরুদাশপুরসহ জেলার বিভিন্ন এলাকায় ব্যাপক পান চাষ হয়। একবার বরজ তৈরি করলে, কয়েক বছর পানের ফলন হয়। নাটোরের আবহাওয়া পান চাষের উপযোগী হওয়ায় দীর্ঘদিন থেকে এর আবাদ করছেন চাষীরা। ফলে জেলায় জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে পান চাষ। সেখানে পানের ওপর নির্ভর করে গড়ে উঠেছে, মোকাম ও আড়ৎ।

সদর উপজেলার গোকুল নগর গ্রামের পানচাষী হজরত আলী বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, নাটোরের পান খেতে মিষ্টি, সুস্বাদু এবং গুনগত মান ভালো। চলতি বছর পানের ফলনও ভালো হয়েছে।

একই এলাকার পানচাষী রুবেল আলী বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, আমরা দীর্ঘদিন থেকে পান চাষের সাথে যুক্ত। এ বছর আমার চার বিঘা জমিতে পান চাষ করেছি। বিদেশে পান নিলে খুশি হব।

আরেক চাষী হাফিজুর রহমান বলেন, এর আগেও ইউরোপে পান যেত আমাদের মোকাম থেকে। নতুন করে আবার পান রপ্তানি হলে আমরা চাষীরা লাভবান হব।

মোকরামপুর পান আড়ৎ এর ব্যবসায়ী কমল মন্ডল বলেন, ইতোমধ্যে মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি হচ্ছে। নতুন করে ইউরোপের বাজারে পান প্রবেশের খবরে আমরা খুশি। ইউরোপে পান প্রবেশ করলে পানটা খুব কদরে বিক্রি হবে। এতে ব্যবসায়ী ও চাষী উভয়ে লাববান হব। আমরা জেলার পান চাষী ও ব্যবসায়ীরা খুশি।

কৃষি বিভাগের তথ্যমতে, চলতি বছর নাটোরে বরজ আছে ৪২৯ হেক্টর জমিতে।

চলতি মৌসুমে জেলায় ৬ হাজার ৬৩২ মেট্রিকটন পান উৎপাদনে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। যার বাজারমূল্য প্রায় ২০০ কোটি টাকা।

নাটোর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক সুব্রত কুমার সরকার বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, বিদেশে রপ্তানিযোগ্য পান সম্প্রসারণ এবং গুনগত মান ঠিক রেখে উৎপাদনে কৃষকদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখাসহ সব ধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) র‍্যাপিড অ্যালার্ট সিস্টেম ফর ফুড অ্যান্ড ফিড (আরএএসএফএফ) ২০১৪ সালের ২৯ জুলাই বাংলাদেশি পান আমদানির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। বাংলাদেশি পানে ক্ষতিকর স্যালমোনেলা ব্যাকটেরিয়ার অস্তিত্ব পাওয়ায় এ নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। প্রথমে এক বছর নিষিদ্ধ করলেও পরে তা আরও বাড়ানো হয়।

দীর্ঘ সাড়ে ছয় বছর পর সম্প্রতি আবারও বাংলাদেশের পান আবার বৈধভাবে ইউরোপে যাচ্ছে।

আরও পড়ুন- প্রযুক্তির ব্যবহারে চাষাবাদে আগ্রহ বাড়ছে বেকার যুবকদের

চায়ের উৎপাদন বাড়িয়ে রপ্তানির চেষ্টা করা হচ্ছে: বাণিজ্যমন্ত্রী

বাংলাদেশ জার্নাল/আর

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত