ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ৭ কার্তিক ১৪২৭ আপডেট : ২২ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪:৫৬

প্রিন্ট

জরায়ুতে ফাইব্রয়েড: লক্ষণ ও প্রতিকার

জরায়ুতে ফাইব্রয়েড: লক্ষণ ও প্রতিকার
ফিচার ডেস্ক

আমাদের এখনকার স্বাভাবিক জীবনে নভেল করোনাকে সঙ্গে নিয়েই চলতে হচ্ছে। কোভিড-১৯ এর কারণে আর্থিক টানাপোড়নের পাশাপাশি সবথেকে বেশি সমস্যা হচ্ছে অন্যান্য অসুখ নিয়ে। নিতান্ত প্রয়োজন না পড়লে কেউ আর ডাক্তারের কাছে যাচ্ছে না। এর ফলে অন্য অসুখের সঙ্গে সঙ্গে নানা স্ত্রী রোগ অবহেলিত হয়ে উপসর্গ ও ভোগান্তি বেড়ে যাচ্ছে।

স্ত্রীরোগ চিকিৎসক অভিনিবেশ চট্টোপাধ্যায় বলেছেন, স্ত্রী রোগের মধ্যে বেশি দেখা যায় ইউটেরাইন ফাইব্রয়েড। ফাইব্রয়েড হলো জরায়ুর টিউমার। সাধারণত মধ্য বয়সী নারীদের এ সমস্যা হয়ে থাকে। তবে ফাইব্রয়েড থাকলেই যে সমস্যা থাকবে তা নয়, অনেকের অসুবিধা থাকে আবার অনেকের কোনো সমস্যাই থাকে না। অসম্ভব যন্ত্রণা ও ঋতুস্রাব, পেটে ব্যথা, কোমরে ব্যথা, সন্তান ধারণের সমস্যা এরকম কয়েকটি উপসর্গ থাকলে ট্র্যান্সভ্যাজাইনাল আল্ট্রাসনোগ্রাফি করে ফাইব্রয়েড সম্পর্কে নিশ্চিত হতে হবে বলে জানালেন চিকিৎসক।

সমীক্ষায় জানা গেছে, সন্তানধারণ করতে পারার বয়সে (অর্থাৎ ১৫–৪৫ বছর বয়সে) মেয়েদের ২০–৪০ শতাংশের মধ্যে জরায়ুতে ফাইব্রয়েড বা টিউমার থাকে। তবে ফাইব্রয়েড থাকলেই যে নানা উপসর্গ দেখা যাবে তা কিন্তু নয়। অনেকের ক্ষেত্রেই তা চুপচাপ বসে থাকে আর সামান্য অসম্ভব ব্যথা ও রক্তপাতসহ ঋতুস্রাব ছাড়া কোনো লক্ষণই থাকে না, এই ফাইব্রয়েডের ডাক্তারি নাম লিওমায়োমাস।

ফাইব্রয়েড সবসময়ই বিনাইন অর্থাৎ ক্যানসার নয়। জেনে রাখুন ফাইব্রয়েড কখনই ক্যানসারে পরিবর্তিত হয় না। খুব ছোট মটর দানার আকৃতি থেকে শুরু করে টেনিস বলের মত বড়সড় আকারের ফাইব্রয়েড বা টিউমার হতে পারে। অনেক সময় ফাইব্রয়েডের পাশাপাশি গর্ভে ভ্রূণ আসতে পারে। যদি ফাইব্রয়েড ডিম্বাণু নিঃসরণ বা ভ্রূণ প্রতিস্থাপনের পথে কোনো বাধা না হয়ে দাঁড়ায় তবে স্বাভাবিক ভাবে অন্তঃসত্ত্বা হতে কোনো অসুবিধা হয় না।

ভ্রূণের বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে ফাইব্রয়েডও আকারে বড় হতে শুরু করে। হরমোনের প্রভাবে ফাইব্রয়েডের আকার বাড়ে। অনেকসময় গর্ভস্থ শিশুর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ফাইব্রয়েড আকারে বাড়তে শুরু করে। এরকম হলে হবু মায়ের নিয়মিত চেক আপ করা দরকার। ইউএসজি করে গর্ভস্থ ভ্রূণ ও ফাইব্রয়েডের বৃদ্ধি নজর রাখা দরকার। কোনোরকম সমস্যা হলে বা বেড়ে ওঠা ফাইব্রয়েডের কারণে ভ্রূণের অসুবিধা হলে দ্রুত ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

সন্তানের স্বার্থে নির্ধারিত সময়ের আগেই সিজারিয়ান সেকশন করে বাচ্চাকে বের করে আনা হয়। ছোট ফাইব্রয়েডের ক্ষেত্রে অবশ্য খুব একটা অসুবিধা হয় না। নির্ধারিত সময়েই বাচ্চা ভূমিষ্ঠ হয়। তবে অনেক ক্ষেত্রেই ফাইব্রয়েড থাকলে সন্তান ধারণে অসুবিধা হতে পারে।

জরায়ুতে ফাইব্রয়েড হলেই যে চিকিৎসা করাতে হয় তা নয়। যদি খুব বেশি উপসর্গ থাকে বা সন্তানধারণের পথে বাধা সৃষ্টি করে তখন একান্ত দরকার হলে ল্যাপারোস্কোপিক সার্জারি করা হয়। বন্ধ্যত্ব প্রতিরোধের জন্যেই এই সার্জারির সাহায্য নেওয়া হয়। অত্যন্ত বড় আর কষ্টদায়ক টিউমার হলে এবং রোগীর বয়স মেনোপজের কাছাকাছি এলে ও তিনি গর্ববতী হলে রোগী ও তার পরিজনদের সম্মতি নিয়ে তবেই হিস্টেরেক্টমি করা হয়। তবে অনেক সময় এই ফাইব্রয়েড চুপচাপ বসে থাকে, বিশেষ কোনও উপসর্গও থাকে না।

জরায়ুর ফাইব্রয়েডের সুনির্দিষ্ট কারণ সম্পর্কে এখনও কিছু জানা যায়নি। তবে কয়েকটি ‘রিস্ক ফ্যাক্টর’ থাকলে অসুখের ঝুঁকি বেশি। বাড়িতে মা, খালা, বোনসহ অন্যদের এই সমস্যা থাকলে রোগের ঝুঁকি তুলনামূলক ভাবে বেশি। ইস্ট্রোজেন ও প্রোজেস্টেরন হরমোন মাসিক ঋতুচক্রের সময় জরায়ুর লাইনিং অর্থাৎ আবরণকে উদ্দীপিত করে। এর ফলে ফাইব্রয়েড তৈরি হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে, এছাড়া ছোট ফাইব্রয়েড বেড়ে উঠতে সাহায্য করে এই সব স্ত্রী হরমোন। এই কারণেই সন্তান ধারণের বয়সে ফাইব্রয়েডের ঝুঁকি বাড়ে। মেনোপজের সময় থেকে এগুলি শুকিয়ে ছোট হয়ে যায়।

তাই এই সমস্যা প্রতিরোধ করতে অল্প বয়স থেকেই নিয়মিত শরীরচর্চা ও সঠিক ডায়েট করে ওজন ঠিক রাখুন। আর কোনো সমস্যা হলে, ব্যথা হলে, জ্বর হলে বা প্রস্রাবের জ্বালাপোড়া হলে অবশ্যই দেরি না করে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

আরও পড়ুন- প্রচণ্ড মাথাব্যথা বেড়ে যায় যে ৭ খাবারে

বাংলাদেশ জার্নাল/এনকে,আর

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত