ঢাকা, শনিবার, ৩০ মে ২০২০, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে English

প্রকাশ : ০৭ এপ্রিল ২০২০, ১০:০৪

প্রিন্ট

বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস আইসিইউতে

বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস আইসিইউতে

Evaly

অনলাইন ডেস্ক

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের অবস্থার অবনতি হওয়ায় সোমবার সন্ধ্যায় তাকে হাসপাতালের আইসিইউতে নেয়া হয়েছে। তার অবর্তমানে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রাব।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর ডাউনিং স্ট্রিটের বরাত দিয়ে এ খবর জানিয়েছে বিবিসি।

এদিকে যুক্তরাজ্যের আরেক সিনিয়র মন্ত্রী স্বেচ্ছা আইসোলেশনে গেছেন।

ব্রিটিশ সরকারের এক মুখপাত্র বিবিসিকে জানান, বরিস জনসন নিজেই তার অবর্তমানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রাবকে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করতে বলেছেন।

করোনাভাইরাসের উপসর্গ না কমায় গত রোববার সন্ধ্যায় ৫৫-বছর বয়সী প্রধানমন্ত্রীকে লন্ডনের সেন্ট টমাস হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে ওইদিন রাতেই তার বাসভবনে ফেরার কথা ছিল। কিন্তু অবস্থা সুবিধাজনক না হওয়ায় তাকে হাসপাতালেই রাত কাটাতে হয়।

পরে সোমবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রী জনসনকে অক্সিজেন দেওয়া হয়। অবস্থার আরো অবনতি হওয়ায় পরে তাকে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিউতে) নিয়ে যাওয়া হয়।

তবে এখনও তাকে ভেন্টিলেটরে দেওয়া হয়নি বলে বিবিসি সংবাদদাতা ক্রিস মরিস জানিয়েছেন।

গত দশদিন আগে প্রধানমন্ত্রী জনসনের দেহে করোনা শনাক্ত হবার পর থেকে রোববার বিকেল পর্যন্ত ডাউনিং স্ট্রিটে আইসোলেশনে ছিলেন। এসময় তিনি ঘরে বসেই যাবতীয় দায়িত্ব সামলেছেন। কিন্তু করোনা না কমে বরং তিনি আরও অসুষ্ত হয়ে পড়েন। যার ফলে রোববার তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সেখানে সোমবার দুপুরের পর থেকেই তার অবস্থার অবনতি হতে থাকে বলে বিবিসি জানাচ্ছে।

অথচ এর আগে গত ১৮ ঘণ্টা ধরে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রীর করোনা পরিস্থিতি ‘নিয়ন্ত্রণে আছে’ এবং তিনি ‘যোগাযোগ রাখছেন’।

কিন্তু সোমবার দুপুর থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন বার্তা দেয়া হচ্ছে।

বিবিসি জানায়, প্রধানমন্ত্রী জনসনের অবস্থার অবনতি হয়েছে। যার ফলে তিনি তার পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে তার দায়িত্ব সামলাবার অনুরোধ করেছেন।

সংবাদ মাধ্যমটি আরও জানাচ্ছে, প্রধানমন্ত্রীর অবস্থা গুরুতর। তাকে আইসিউতে এমন স্থানে রাখা হয়েছে যেখানে ভেন্টিলেটরের ব্যবস্থা রয়েছে।

সাধারণত যাদের অবস্থা খুবই খারাপ তাদেরই ইনটেনসিভ কেয়ারের এই স্থানে রাখা হয় এবং ভেন্টিলেটরে দেয়া হয়।

প্রধানমন্ত্রী জনসনকে যে ইনটেনসিভ কেয়ারে রাখা হয়েছে তার থেকে বোঝা যায় তিনি কতটা গুরুতর অসুস্থ।

তার সার্বিক অবস্থা সম্পর্কে এখনও পুরোপুরি তথ্য জানা যায়নি। তবে তাকে এখনও পর্যন্ত ভেন্টিলেটর দেয়া হয়নি বলে জানা গেছে।

আরেকজন ব্রিটিশ মন্ত্রী আইসোলেশনে

ব্রিটেনের ক্যাবিনেট মন্ত্রী মাইকেল গোভ বাসায় স্বেচ্ছা আইসোলেশন শুরু করেছেন। তিনি জানিয়েছেন তার পরিবারের একজন সদস্যের করোনাভাইরাস উপসর্গ দেখা দিয়েছে।

বিবিসি টিভির সাময়িক ঘটনাবলীর অনুষ্ঠান নিউজনাইটের নীতি বিষয়ক সম্পাদক লুইস গুডল জানাচ্ছেন, গোভ যদিও বলছেন তিনি ডিজিটালি তার কাজকর্ম যথারীতি চালিয়ে যাবেন, কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর অনুপস্থিতিতে ক্যাবিনেট মন্ত্রিসভার দায়িত্ব এখন খুবই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

সূত্র: বিবিসি বাংলা

এমএ/

shopno
  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত
best