ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০, ১৭ আশ্বিন ১৪২৭ আপডেট : ৯ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:২১

প্রিন্ট

১০৮ বছরের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষিকার ‘সুখী জীবন’

১০৮ বছরের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষিকার  ‘সুখী জীবন’
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

ইথেল রিচবার্গ ৫ ই সেপ্টেম্বর ১০৮ বছরে পা রেখেছেন। প্রতিবেশি ব্লোনডেল স্ট্রং জানিয়েছে, এথেল রিচবার্গ এখন মেয়ের সাথে বসবাস করেন। তার মেয়ে শুট অবশ্য ১০৮ বছর বয়সের তার মাকে তরুণী হিসেবে অভিহিত করছেন। খবর টিএন ট্রিবিউনের।

১৯১২ সালে উড্রো উইলসন যখন রাষ্ট্রপতি উইলিয়াম হাওয়ার্ড টাফট, টেডি রুজভেল্ট এবং ইউজিন ডেবকে পরাজিত করেছিলেন তখন একজন মহিলার গড় আয়ু ছিল ৫৬ বছর। সে হিসেবে রিচবার্গ প্রায় দ্বিগুণ জীবনযাপন করেছেন। যখন শনিবার বিকেলে রিচবার্গকে ডেকে আনা হয়েছিল, শুট তার পক্ষে কথা বলেছিল। করোনভাইরাস মহামারীর কারণে তাদের এবারের জন্মদিনের আয়োজনে কোন দর্শনার্থী ছিল না।

"তিনি এতে সন্তুষ্ট আছেন, জানিয়েছে ৮৫ বছর বয়সের মেয়ে শুট। রিচবার্গ কীভাবে এত দিন জীবনধারণ করেছেন? ‘ভালো মেয়ে হয়ে’ শুট তার মায়ের পক্ষে জবাব দিল।

ভালোবাসা তার জীবনে বেচেঁ থাকার আরও একটি বড় অনুসঙ্গ। রিচবার্গ ৪০ বছর ধরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেছিলেন। শুট বলল, "আমরা যখন ম্যানিংয়ে ফিরে যাই, তখন তার সাবেক শিক্ষার্থীরা আমাদের বাড়িতে বেড়াতে আসে এবং আমরা একসাথে রাতের খাবার খাই’।

রিচবার্গ ১০ সন্তানের মধ্যে সর্বকনিষ্ঠ ছিলেন। তিনি এস.সি. এর অরেঞ্জবুর্গের দক্ষিণ ক্যারোলিনা স্টেট ইউনিভার্সিটিতে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেছেন। ৪৫ বছর বয়সে তিনি শিক্ষকতায় আসেন। শুট তার একমাত্র মেয়ে। শুটের বিয়ের পর ১৯ মাসের জন্য স্বামীর সংসারে ছিলেন। তখন রিচবার্গ একা ছিলেন।

রিচবার্গ নব দম্পতিদের এক জনের বেশি সন্তান নেয়ার পরামর্শ দিয়ে বলেন আমরা ১০ জন ভাইবোন নিয়ে সুখী পরিবার ছিলাম। ফলে একজন বাইরে গলেও আরেকজন পরিবারের খেয়াল রাখতে পারবে। রিচবার্গের প্রজন্মের এতমাত্র শেষ সদস্য তিনি।

নকি

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত