ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ২ কার্তিক ১৪২৬ আপডেট : ১৭ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:২০

প্রিন্ট

‘ভেঙে টুকরো টুকরো হয়ে যাবে পাকিস্তান’

‘ভেঙে টুকরো টুকরো হয়ে যাবে পাকিস্তান’
অনলাইন ডেস্ক

কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানকে কড় হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। রবিবার পাটনায় বিজেপির এক সমাবেশে ইসলামাবাদকে লক্ষ্য করে তিনি বলেন, ‘১৯৬৫ ও ১৯৭১ সালের মতো ভুল করার চেষ্টা করবেন না। তাহলে ভেঙে টুকরো টুকরো হয়ে যাবে পাকিস্তান।’

ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেন, তারা (পাকিস্তান) যদি আবারও একাত্তরের মতো ভুল করে তাহলে দুনিয়ার কোনো দেশই পাকিস্তানকে ভাঙনের হাত থেকে রক্ষা করতে পারবে না। তাদের মনে রাখা উচিত বালুচ ও পশতুনদের ওপর কী ধরনের নিপীড়ন চলছে।

রাজনাথ কাশ্মীরের ওপর থেকে বিশেষ মর্যাদা তুলে নেওয়ার প্রশংসা করে বলেন, জম্মু-কাশ্মীরের ৩৭০ ধারা ছিল এক ধরনের ক্যানসারের মতো। এতোদিন ধরে এর মারাত্মক ফল ভোগ করছিল রাজ্যের মানুষ।

এসময় তিনি পাকিস্তানের সঙ্গে কোনো আলোচনার সম্ভবনা বাতিল করে দিয়ে বলেন, যতদিন তারা সন্ত্রাসবাদে মদদ দেয়া বন্ধ না করবে ততদিন ইসলামাবাদের সঙ্গে কোনো আলোচনায় বসবে না নয়াদিল্লি।

কাশ্মীরের স্বাধীনতা আন্দোলনকে বরাবরই অগ্রাহ করে থাকে ভারত। তাদের দৃষ্টিতে সেখানকার স্বাধীনতাকামী যোদ্ধারা সন্ত্রাসী এবং এতে মমদ দেয়ার জন্য বরাবরই পাকিস্তানকে দায়ী করে থাকে নয়াদিল্লি। আর ৩৭০ ধারা বাতিলের পর পাকিস্তানকে দমিয়ে রাখতে দেশটির বিরুদ্ধে অনবরত হুমকি ধামকি দিয়ে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী মোদিসহ ভারতীয় নেতারা।

এর মাত্র কয়েক দিন আগেই কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানের অধিকারে থাকা আজাদ কাশ্মীর দখলে নেয়ার হুমকি দিয়েছিলেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর।

গত মঙ্গলবার (১৭ সেপ্টেম্বর) ভারতের রাজধানী নয়া দিল্লিতে এক সংবাদ সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জয়শঙ্কর বলেন, ‘পাক-অধিকৃত কাশ্মীর সর্বদাই ভারতের অংশ। আমরা আশা করি একদিন তা আমাদের নিয়ন্ত্রণে আসবে।’

কাশ্মীরের সবচেয়ে জনবহুল এলাকা কাশ্মীর উপত্যকা ভারতের শাসনাধীন, অপরদিকে কাশ্মীরের পশ্চিমাংশ পাকিস্তানের নিয়ন্ত্রণে। নিজেদের নিয়ন্ত্রিত ওই এলাকাকে পাকিস্তান ‘আজাদ কাশ্মীর’বললেও নয়াদিল্লি ওই অংশটিকে ‘পাকিস্তান-অধিকৃত কাশ্মীর’ (পোক) বলে বর্ণনা করে থাকে।

সংবাদ সম্মেলনে জয়শঙ্কর বলেন, ‘পোকের বিষয়ে আমাদের অবস্থান সব সময় অত্যন্ত পরিষ্কার আছে এবং থাকবে। পোক ভারতের অংশ এবং আমরা আশা করছি একদিন এর ওপর আমরা আইনগত অধিকার, বাস্তব আইনগত অধিকার লাভ করবো।’

প্রসঙ্গত, গত ৫ আগস্ট ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করে মোদি সরকার। এই ঘটনাকে কেন্দ্র ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যকার উত্তেজনা চরম আকার ধারণ করেছে। দু দেশের নেতারাই বিভিন্ন সময়ে পরস্পরের বিরুদ্ধে হামলার হুমকি দিয়ে আসছে। পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরের মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়টি জাতিসংঘ অধিবেশনে উত্থাপন করতে মুখিয়ে আছে। যদিও কাশ্মীর ইস্যুটিকে নিজেদের আভ্যন্তরীণ সমস্যা বলে আন্তর্জাতিক মহলের সমালোচনা উপেক্ষা করতে তৎপর রয়েছে নয়াদিল্লি।

এমএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত