ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ আপডেট : ১ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ৩১ অক্টোবর ২০১৯, ০৬:৩৪

প্রিন্ট

১৫ বছর নিজ ফ্ল্যাটে মরে পড়ে ছিলেন নারী!

১৫ বছর নিজ ফ্ল্যাটে মরে পড়ে ছিলেন নারী!
আন্তর্জাতিব ডেস্ক

গোসল করার সময় নিজের ফ্ল্যাটের বাথরুমেই তার স্বাভাবিক মৃত্যু হয়। এরপর গত ১৫ বছর ধরে তার লাশ সেখানেই পড়ে ছিলো। তার দেহটি মমিতে রুপান্তরিত হয়ে গিয়েছিলো। বাথরুমের তাপমাত্রা ও পরিবেশ তার দেহকে মমিতে রুপান্তর করতে সহায়ক হয়েছে। বলছি ইসাবেলা রিভেরার গল্প। ১৫ বছর পর ভাতিজির জোরাজুরিতে ফ্ল্যাটে ঢুকে পুলিশ ইসাবেলার দেহ আবিষ্কার করে। ঘটনাটি ঘটেছে স্পেনে।

ইসাবেলার যে ব্যাংকে একাউন্ট ছিল সেই লা কেইক্সা ব্যাংকের অফিস প্রধান রিভেরির কী হয়েছে তা জানতে উৎসুক ছিলেন। কেননা তার এই ক্লায়েন্ট শুধু অটোমেটিক সিস্টেমে বিল পরিশোধ করে যাচ্ছিলেন ১৫ বছর ধরে কিন্তু অন্য কোনো কাজে টাকা ওঠাচ্ছিলেন না। একদিন তিনি রিভেরার ফ্ল্যাটে গিয়ে ডাকাডাকি করেও কোনে সাড়া না পেয়ে চলে যান।

ডাক্তাররা জানিয়েছেন, ১৪-১৬ বছর আগে তার মৃত্যু হয়েছে। ৮০ বছর বয়স পূর্ণ হয়নি তার। ১৯২৬ সালে জন্ম হয় রিভেরার। আর হোসে ডেল হিয়েরো নামের সড়কের ওই অ্যাপার্টমেন্টে ১৯৬৫ সাল থেকে বসবাস করতেন তিনি। মৃত্যুর চার-পাঁচ বছর আগের সময়টা তার সঙ্গে জুয়ান মোলিনা মুনোজ নামের এক ডিভোর্সী নারী নিজের সন্তানদের নিয়ে থাকতেন। এক পর্যায়ে মোলিনা ওই অ্যাপার্টমেন্ট ভবনের কমিউনিটি ম্যানেজমেন্টের দায়িত্ব নেন। এ সময় প্রতিবেশিদের সঙ্গে তাদের ঝগড়া-ঝাটি হয়। যার ফলে তারা অন্যদের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন।

২০০৪ সালের সেপ্টেম্বরে তাকে সর্বশেষ প্রকাশ্যে দেখা গিয়েছিলো। ওদিকে এর আগেই তাদের বাসায় ইন্টারকম ফোন লাগানো হয়। ফলে দারোয়ান ডন অ্যান্টোনিওকেও তার চাকরি থেকে ছাড়িয়ে দেওয়া হয়। আর নয়তো দারোয়ান থাকলে হয়তো তার মৃত্যুর বিষয়টি বুঝতে পারতো।

বাংলাদেশ জার্নাল/ওয়াইএ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত