ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ৬ কার্তিক ১৪২৬ আপডেট : কিছুক্ষণ আগে English

প্রকাশ : ০৩ জানুয়ারি ২০১৯, ১৪:৪৬

প্রিন্ট

চলে গেলেন সাহিত্যিক দিব্যেন্দু পালিত

চলে গেলেন সাহিত্যিক দিব্যেন্দু পালিত
কলকাতা প্রতিনিধি

ওপার বাংলার প্রখ্যাত কথা সাহিত্যিক দিব্যেন্দু পালিত আর নেই। বৃহস্পতিবার সকাল এগারোটা পঞ্চাশ মিনিট নাগাদ তিনি মারা যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৯ বছর।

বুধবার সন্ধে ছটা মিনিট নাগাদ যাদবপুরের কেপিসি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল অসুস্থ দিব্যেন্দু পালিতকে।

তার চিকিৎসক এহসান আহমেদ জানিয়েছেন, দীর্ঘদিন ধরেই শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। বুধবার একটু নিস্তেজ হয়ে পড়েছিলেন। সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। কিন্তু বুকে সংক্রমণ এমন ভাবে ছড়িয়ে পড়েছিল সেটা নিয়ন্ত্রণ করা যায়নি। শরীরে অক্সিজেনের পরিমাণও কমে গিয়েছিল। তাই অনেক চেষ্টার পরেও বাঁচানো যায়নি তাকে।

সাংবাদিক হিসেবে কর্মজীবন শুরু হয়েছিল দিব্যেন্দু পালিতের। একাধিক ইংরেজি ও বাংলা সংবাদপত্রে সাংবাদিকতা করেছেন তিনি। এছাড়া বিজ্ঞাপনের সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন তিনি।

লেখক হিসেবে দিব্যেন্দু পালিতের আত্মপ্রকাশ ১৯৫৫ সালে। মাত্র ১৬ বছর বয়সে লেখক হিসাবে পরিচিতি পান তিনি। তখনই একটি বিখ্যাত দৈনিক কাগজে প্রকাশিত হয়েছিল তার লেখা গল্প ‘ছন্দপতন’। এরপর তিনি লেখেন, ‘সেদিন চৈত্রমাস’, ‘উড়ো চিঠি’, ‘বৃষ্টির পরে’, ‘সিন্ধু বারোঁয়া’, ‘অন্তর্ধান’, ‘মৌন মুখর’, ‘হঠাৎ একদিন’-এর মতো উপন্যাস। এছাড়া ‘চিলেকোঠা’, ‘নামতে নামতে’-র মতো অনেক ছোটগল্পও লেখেন তিনি।

শুধু গল্প বা উপন্যাস নয়, কবি হিসাবেও জনপ্রিয় ছিলেন তিনি। তার ‘আত্মীয়’, ‘অপেক্ষা’-র মতো কবিতা আজও মানুষের প্রিয়।

১৯৩৯ সালে বিহারের ভাগলপুরে পাঁচই মার্চ জন্ম নিয়েছিলেন জনপ্রিয় এই সাহিত্যিক। ১৯৯০ সালে বঙ্কিম পুরস্কারে সম্মানিত করা হয়েছিল তাকে। ১৯৯৮ সালে তিনি সাহিত্য অ্যাকাডেমি পুরস্কার পান ‘অনুভব’ উপন্যাসের জন্য।

এমএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত