ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ১২ কার্তিক ১৪২৭ আপডেট : ২৫ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:৩২

প্রিন্ট

নামাজের নিষিদ্ধ সময়

নামাজের নিষিদ্ধ সময়
জার্নাল ডেস্ক

নামাজ ইসলামের প্রধান ও প্রথম স্তম্ভ। নামাজ বেহেশতের চাবিকাঠি। নামাজকে আরবিতে সালাত বলে। সালাত অর্থ দগ্ধ করা। প্রত্যেক বয়োপ্রাপ্ত মুসলমানের জন্য পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়া ফরজ। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ার যেমন সঠিক সময় আছে, তেমনি পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ার কিছু নিষিদ্ধ সময়ও আছে। নামাজের নিষিদ্ধ সময় সম্পর্কে কয়েকটি হাদিস বাংলাদেশ জার্নালের পাঠকদের জন্য নিচে তুলে ধরা হলো-

১. হযরত আবদুল্লাহ বিন আমর (রা.) হতে বর্ণিত- নবী করিম (সা.) বলেছেন, তোমাদের মধ্যে কেউ যেনো সূর্যোদয়ের সময় এবং সূর্য অস্ত যাবার সময় নামাজ পড়ার চেষ্টা না করে। অন্য বর্ণনায়- সূর্যের গোলক যখন দেখা দিতে আরম্ভ করে, যে পর্যন্ত তা পূর্ণভাবে উদিত না হয় এবং গোলক যখন অস্ত যেতে আরম্ভ করে, যে পর্যন্ত তা পূর্ণভাবে অস্ত না যায়, ততক্ষণ নামাজ পড়িও না এবং সূর্যোদয় ও সূর্যাস্তের সময়কে তোমরা নামাজের সময় করো না, কেননা তা শয়তানের দু শিংয়ের মধ্যে উদয় হয়। (বোখারী, মুসলিম)

২. হযরত উকবাহ বিন আমের (রা.) হতে বর্ণিত- নবী করিম (সা.) তিনটি সময় নামাজ পড়তে বা মৃতকে দাফন করতে নিষেধ করেছেন। (১) যখন সূর্য কিরণময় হয়ে উদিত হতে থাকে, যতক্ষণ না কিছু উপরে উঠে যায়। (২) যখন সূর্য দ্বিপ্রহরে স্থির হয়ে দাঁড়ায়, যতক্ষণে তা কিছু পশ্চিমে চলে না যায় এবং (৩) যখন সূর্য ডুবে যেতে থাকে, যতক্ষণ তা সম্পূর্ণ ডুবে না যায়। (মুসলিম)

৩. হযরত আবু সাঈদ খুদরী (রা.) হতে বর্ণিত- নবী করিম (সা.) বলেছেন, ফজরের নামাজের পরে আর কোনো নামাজ নেই যতক্ষণ সূর্য কিছু উপরে উঠে না যায় এবং আসরের নামাজের পরও কোনো নামাজ নাই যতক্ষণ সূর্য সম্পূর্ণভাবে অদৃশ্য হয়ে না যায়। (বোখারী, মুসলিম)

হাদিসগুলো ‘বিষয় ভিত্তিক হাদিসে রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম)’ বই থেকে সংগৃহীত।

আরও পড়ুন

নামাজ

তায়াম্মুম

জুমার দিনের গোসল

অজুর অর্থ​

পবিত্রতা

আল্লাহর জিকির

ইহজীবন ও পরজীবন সম্বন্ধে কিছু হাদিস

বাংলাদেশ জার্নাল/এনকে/কেআই

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত