ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৯, ৮ কার্তিক ১৪২৬ আপডেট : কিছুক্ষণ আগে English

প্রকাশ : ১৫ জুলাই ২০১৯, ১৮:৫৮

প্রিন্ট

আম্পায়ারদের ভুলের কারণেই চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড

আম্পায়ারদের ভুলের কারণেই চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড
স্পোর্টস ডেস্ক

দ্বাদশ বিশ্বকাপের ফাইনালে ইংল্যান্ডের ইনিংসের শেষ ৩ বলে জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল ৯ রান। এমন সময়ে ট্রেন্ট বোল্টের করা চতুর্থ বলটি ডিপ মিড উইকেটে ঠেলে দিয়ে এক রান নিলেন বেন স্টোকস। ওই বলেই দ্বিতীয় রান নিতেই দৌড় দিলেন স্টোকস আর আদিল রশিত। তখন একেবারে বাউন্ডারি লাইনে ফিল্ডিং করেন মার্টিন পাগটিল। স্টোকসকে রান আউট করার জন্য তিনি যে থ্রো করেন, সেটি স্টোকসের ব্যাটে লেগে বল চলে যায় বাউন্ডারির বাইরে। ফলে এই বলে ৬ রান ঘোষণা করেন অন ফিল্ড আম্পায়ার কুমার ধর্মসেনা। যার কল্যাণে শেষ পর্যন্ত ম্যাচ টাই করে ফেলে ইংল্যান্ড।

বিতর্ক তৈরি হয়েছে এই ৬ রান দেয়া নিয়েই। বিতর্কের বিষয়, তখন ইংল্যান্ড কি ৫ রান পেতো নাকি ৬ রান পেতো? নিয়ম অনুযায়ী ওই বলে পাঁচ রান পাওয়ার কথা ইংল্যান্ডের। কেননা, বল ব্যাটের লাগার সময় স্টোকস পুরোপুরি বাইশ গজ অতিক্রম করতে পারেননি; কিন্তু আম্পায়ার কুমার ধর্মসেনার ভুলে এক রান বোনাস হিসেবে পেয়ে যায় ইংলিশরা!

আইসিসির ১৯.৮ ধারার আইনে লেখা আছে, যদি ওভার থ্রোর কারণে কোনো বল বাউন্ডারি অতিক্রম করে। তাহলে সেই রান যোগ হওয়ার পাশাপাশি ব্যাটসম্যানরা কতবার ক্রিজ অতিক্রম করেছেন সেটাও রান হিসেবে যোগ হবে।

আইসিসির সাবেক বর্ষসেরা আম্পায়ার সাইমন টাফেল বলেন, ‘ইংল্যান্ডকে ৫ রান দেওয়া উচিত ছিল, ৬ রান নয়। এটা পরিষ্কার ভুল। তাদের সিদ্ধান্ত নিতে ভুল হয়েছে। হিট অফ দ্য মোমেন্টে তারা মনে করেছিলেন, থ্রোয়ের সময় ব্যাটসম্যান একে অন্যকে অতিক্রম করেছে; কিন্তু টিভির রিপ্লেতে তার উল্টোটাই দেখা গিয়েছে।’

গুরুত্বপূর্ণ ওই সময়টাতে ফিল্ড আম্পায়ার ধর্মসেনা টিভি আম্পায়ারেরও সাহায্য নেননি। ওই একটি রান যদি কম দেয়া হতো, তাহলে তো ১ রানেই জিতে যায় নিউজিল্যান্ড। সুতরাং, ম্যাচটা আর সুপার ওভারেই গড়ানো লাগতো না। এমনকি বাউন্ডারি ব্যবধানের বিষয়টাও সামনে আসতো না।

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত