ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৩ আশ্বিন ১৪২৭ আপডেট : ১ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২২ জানুয়ারি ২০২০, ১৫:০২

প্রিন্ট

প্রাথমিকসহ জটিলতায় সরকারি নিয়োগ

প্রাথমিকসহ জটিলতায় সরকারি নিয়োগ
জার্নাল ডেস্ক

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নিয়োগে ১৭ জেলার ঘোষিত ফলাফল সম্প্রতি ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। শুধু সহকারি শিক্ষক নয় সরকারি অনেক নিয়োগ প্রক্রিয়া ঝুলন্ত অবস্থায় রয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

আরো পড়ুন: ৭০৫ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পদ শূন্য ৩৬৫!

জানা যায়, প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরির নিয়োগ সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি) দিলেও তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী নিয়োগের দায়িত্ব মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোর। তবে এ দুই শ্রেণির কর্মচারী নিয়োগে অনিয়ম-দুর্নীতির বিস্তর অভিযোগ রয়েছে। অনেক প্রতিষ্ঠানেই লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা হওয়ার পরও নিয়োগ কাজ ঝুলে আছে। কোনো কোনো মন্ত্রণালয় ও বিভাগে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর কয়েক বছর পেরিয়ে গেলেও নেওয়া হচ্ছে না পরীক্ষা।

আরো পড়ুন: ২২১ শিক্ষককে এমপিওভুক্তির সিদ্ধান্ত

নিয়োগ বিধি এবং মামলা জটিলতার কারণেও অনেক শূন্য পদে নিয়োগ দেওয়া যাচ্ছে না। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের এসব নিয়োগ বিধি সংশোধন ও মামলা নিষ্পত্তির প্রাথমিক কাজ শেষ করতেই কেটে যাচ্ছে বহু সময়। এদিকে ফি দিয়ে আবেদন করেও পরীক্ষা না দিয়েই চাকরির বয়স শেষ হচ্ছে অসংখ্য প্রার্থীর। ফলে তাদের মধ্যে বাড়ছে ক্ষোভ ও হতাশা।

তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির নিয়োগে আলাদা কমিশন গঠনে সরকারের বিভিন্ন ফোরামে ইতোমধ্যে আলোচনা হয়েছে। এসব পদে নিয়োগ পিএসসির অধীনে করা যায় কিনা তা নিয়ে গত কয়েক মাস জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পর্যালোচনা করলেও সে উদ্যোগ ভেস্তে গেছে। ফলে পুরোনো রীতিতেই চলছে এ নিয়োগ।

আরো পড়ুন: শিক্ষক নিয়োগে প্রধানমন্ত্রীর জরুরি নির্দেশনা

২০১৮ সালের ১১ জুলাই এক হাজার ১৬৬টি পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছিল খাদ্য অধিদপ্তর। এসব পদে প্রায় ১৪ লাখ চাকরিপ্রার্থী আবেদন করেন। এ পরীক্ষার ফি বাবদ খাদ্য অধিদপ্তরের বিপুল অর্থ আয় হয়েছে। কিন্তু বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের দেড় বছর পরও পরীক্ষার তারিখ সম্পর্কে কিছুই বলতে পারছে না কর্তৃপক্ষ। একইভাবে সমাজসেবা অধিদপ্তর ২০১৮ সালের ৯ জুলাই ৪৬৩টি সমাজকর্মী (ইউনিয়ন) পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি জারি করে। এক বছর পর ২০১৯ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর এসব পদে আবেদনকারী প্রায় আট লাখ পরীক্ষার্থীর পরীক্ষা নেওয়ার তারিখ নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু পরীক্ষার কয়েকদিন আগে অনিয়মের আশঙ্কায় তা স্থগিত করে সমাজসেবা অধিদপ্তর। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর ২০১৮ সালে ১৮ ফেব্রুয়ারি ১৪১টি পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। কিন্তু পরীক্ষা কবে হবে তা অনিশ্চিত। ২০১৮ সালের ২৭ আগস্ট বাংলাদেশ শিক্ষাতথ্য ও পরিসংখ্যান ব্যুরোর (ব্যানবেইস) বিজ্ঞপ্তি দেওয়া ১২টির মধ্যে ৯ ক্যাটাগরির সব পদে নিয়োগ হলেও বাকি তিনটির প্রায় ২৫টি পদে সব কাজ সম্পন্ন হলেও চলমান ভাইভা স্থগিত রাখা হয়েছে। এ ছাড়া রেলপথ, ভূমি, গৃহায়ন ও গণপূর্ত, শিক্ষা, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা এবং জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে তীব্র জনবল সংকট থাকলেও নানা কারণে ঝুলে আছে হাজার হাজার প্রার্থীর নিয়োগ প্রক্রিয়া।

আরো পড়ুন: ফের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নতুন নির্দেশনা

তবে পরীক্ষা না হলেও এসব প্রতিষ্ঠানে প্রতি আবেদনের জন্য বেকার চাকরিপ্রার্থীদের গুনতে হচ্ছে কমপক্ষে ১৫০ থেকে ৩০০ টাকা। অনেক প্রতিষ্ঠান চাকরির আবেদনের জন্য ফি নিচ্ছে ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা। ১ জানুয়ারি প্রকাশিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডে ১৬ গ্রেডের চাকরির আবেদন ফি উল্লেখ করা হয়েছে ৬০০ টাকা। আবার ২ জানুয়ারি প্রকাশিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশন ১৪ গ্রেডের চাকরির আবেদন ফি নির্ধারণ করেছে ৫৬০ টাকা। অথচ এই আবেদন ফি দিয়ে আবেদন করা বেকার প্রার্থীদের পক্ষে অসম্ভব। তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির বেশিরভাগ চাকরির পরীক্ষা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) বিভিন্ন অনুষদ বা বিভাগ ও বুয়েটের মাধ্যমে নেওয়া হয়। এ জন্য ঢাবিকে প্রতি শিক্ষার্থীর জন্য ৬০০ টাকা এবং বুয়েটকে এক হাজার টাকা দিতে হয়। পরীক্ষা গ্রহণে বিপুল পরিমাণ টাকা লেনদেন করায় অনিয়মেরও অভিযোগ রয়েছে। এদিকে সম্প্রতি পাবলিক বা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাধ্যমে পরীক্ষা নেওয়ার নিয়ম বাতিল করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। এতে এ দুই শ্রেণির চাকরির পরীক্ষা কার্যক্রম আরও স্থবির হয়ে পড়েছে।

আরো পড়ুন: প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ, স্থগিত ১৭ জেলার চূড়ান্ত তালিকা

এ বিষয়ে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক প্রকৌশলী কেএম আনোয়ার হোসেন বলেন, আগেও এভাবে ফি নেওয়া হতো। আগের ধারাবাহিকতায় এবারও ফি নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে বিষয়টি নজরে আসায় পরে ফি কমানোর বিষয়ে বিবেচনা করা হবে।

অথচ ২০১৮ সালের ২৫ জুলাই প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে শূন্য পদ পূরণসংক্রান্ত এক সভায় সিদ্ধান্ত হয় মন্ত্রণালয়, বিভাগ, দপ্তর ও সংস্থার সরাসরি নিয়োগের মাধ্যমে পূরণযোগ্য পদগুলোতে বিধি বা আইনগত জটিলতা না থাকলে ১৫ দিনের মধ্যে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি জারি করতে হবে। বিভিন্ন ক্যাটাগরির সরাসরি নিয়োগযোগ্য শূন্য পদে নিয়োগের ক্ষেত্রে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় বা বিভাগে অপেক্ষমাণ ছাড়পত্রের প্রস্তাব সাত দিনের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে হবে। এ ছাড়া আইনগত জটিলতা না থাকলে ২০১৮ সালের ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে নিয়োগ প্রক্রিয়ার সব কাজ শেষ করে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়কে জানাতে বলা হয়। এরপর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, বিভাগ, দপ্তর ও সংস্থার শূন্য পদের তথ্য এবং পদ পূরণের জন্য কর্মপরিকল্পনা চাওয়া হয়। ২০১৯ সালের ৪ মার্চ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের তৎকালীন মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান সংশ্নিষ্ট সব দপ্তরে এ-সংক্রান্ত চিঠি দেন।

আরো পড়ুন: এবার শিক্ষকরাও যাবেন বিদেশ, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

স্থবিরতার নেপথ্যে : খাদ্য অধিদপ্তর ১৪ লাখ চাকরিপ্রার্থীর আবেদন পাওয়ার পর মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাছে পরীক্ষার ব্যয় ব্যবস্থাপনার জন্য অর্থ ছাড় ও বিধিগত বিষয়ে মতামত চায়। এরপর খাদ্য অধিদপ্তরকে নিয়োগ বিধি সংশোধন ও অর্থ ছাড়ের বিষয়ে পুনঃপ্রস্তাব পাঠানোর কথা বলা হয়। কিন্তু এখনও সেই পুনঃপ্রস্তাব দেওয়া হয়নি। আর সমাজসেবা অধিদপ্তর সমাজকর্মী (ইউনিয়ন) পরীক্ষা নেওয়ার দায়িত্ব দিয়েছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মাসি বিভাগকে। কিন্তু এ পদে প্রায় আট লাখ প্রার্থী আবেদন করায় এই পরীক্ষা নেওয়ার জনবল ফার্মাসি বিভাগের নেই বলে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিবকে লিখিতভাবে জানিয়েছিলেন ফার্মাসি অনুষদের ডিন। চিঠিতে সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা গ্রহণে আশঙ্কা প্রকাশ করায় পরে এ পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। ব্যানবেইসে নিয়োগ কার্যক্রমের মৌখিক পরীক্ষা চলার সময় নিয়োগ বিধির জটিলতা সৃষ্টি হওয়ায় জনপ্রশাসনের কাছে মতামত চেয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

আরো পড়ুন: শিক্ষায় ২১ হাজার কোটি টাকার নতুন প্রকল্প অনুমোদন

খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সারোয়ার মাহমুদ ঝুলে থাকা এই পরীক্ষা কবে হবে, তা বলতে পারেননি। তিনি বলেন, ১৪ লাখ প্রার্থীর পরীক্ষা নেওয়া অনেক কঠিন কাজ। এজন্য কাজ চলছে, প্রস্তুতি সম্পন্ন হলেই পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করা হবে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের উপপরিচালক ডা. সঞ্জীব সূত্রধর বলেন, হাইকোর্টের মামলার কারণে নিয়োগ কার্যক্রম স্থগিত আছে। মামলার শুনানি চলছে। রায় হলে পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

বাংলাদেশ জার্নাল/কেআই

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত