ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ ২০২০, ১৭ চৈত্র ১৪২৬ আপডেট : ১ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২০:১৪

প্রিন্ট

পরশু ঢাকা ফেরার কথা ছিলো সোহানের

পরশু ঢাকা ফেরার কথা ছিলো সোহানের
কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

২৫ দিন আগে ছুটি কাটাতে বাড়ি গিয়েছিলেন জাতীয় হ্যান্ডবল দলের গোলরক্ষক সোহানুর রহমান সোহান। আগামী পরশু রোববার (২৩ ফেব্রুয়ারি) ছুটি শেষে ঢাকা ফেরার কথা ছিলো তার। কিন্তু ঢাকায় ফেরা হলো না সোহানের।

শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার হোসেনাবাদ বাজারে স্যালোইঞ্জিন চালিত ট্রলির সাথে মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে সোহানুর রহমান সোহান মারাত্মকভাবে আহত হন। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নেয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে ঢাকায় নেওয়ার পথে রাজবাড়ি শহর অতিক্রমকালে বেলা সাড়ে ৩টার দিকে সে মারা যায়।

সোহানের বাবা গোলামুর রহমান ওরফে কালু মন্ডল জানান, ঢাকাতে নিয়ে গিয়ে উন্নত চিকিৎসা নেয়ার আগেই ও চলে গেলো। ঢাকা যাওয়ার পথে রাজবাড়ি শহর অতিক্রমকালে বেলা সাড়ে ৩টার দিকে মারা যায়। ২৫ দিন আগে ছুটি কাটাতে সোহান বাড়ি এসেছিলো। আগামী পরশু তার ঢাকা যাওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু সেটা আর হলো না, একাবারে না ফেরার দেশে চলে গেলো।

জানা যায়, সোহানুর রহমান সোহান শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তার বন্ধু দৌলতপুর উপজেলার বাহিরমাদি এলাকার শহিদুল ইসলামের ছেলে সোলাইমান ইসলামের সাথে মোটরসাইকেলে হোসেনাবাদ এলাকায় যাচ্ছিলো। বেলা ১২টার দিকে স্যালোইঞ্জিন চালিত গাড়ির সাথে মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে জাতীয় হ্যান্ডবল দলের গোলরক্ষক সোহানুর রহমান সোহান ও তার বন্ধু সোলাইমান হোসেন জয় মারাত্বক আহত হয়। স্থানীয়রা ঘটনাস্থল থেকে গুরুত্ব আহত অবস্থায় তাদের দ্রুত উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে।

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. তাপস কুমার সরকার জানান, কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে দুপুর ২টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় জয়ের মৃত্যু হয়। আহত রোগীর হাত-পায়ের একাধিক স্থানে ভাঙা ও রক্তাক্ত জখম হওয়ায় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ জনিত কারণে মুত্যু হয়েছে বলে বলে প্রথামিক ধারণা করা হচ্ছে।

সোলাইমান হোসেন জয়ের মরদেহ ময়নাতদন্ত শেষে শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৫টার সময় পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলেও জানান ডা. তাপস কুমার।

বাংলাদেশ জার্নাল/এসকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত