ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ আপডেট : ৯ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৫ এপ্রিল ২০২০, ২১:৩৭

প্রিন্ট

পুরান ঢাকায় কেন ছড়াচ্ছে করোনা

পুরান ঢাকায় কেন ছড়াচ্ছে করোনা
ফাইল ছবি

Evaly

আহমেদ ইসমাম

রাজধানীর ঘনবসতি এলাকাগুলোয় করোনাভাইরাসের আঘাত সবচেয়ে বেশি যে পরবে সেটা আগেই আঁচ করা গিয়েছিল। এর সত্যতা ইতিমধ্যে মিলা শুরু করেছে। ঢাকা শহরের ঘনবসতি এলাকাগুলোতে আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছেই এবং সেটা মহা-চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

পুরান ঢাকার অন্যতম ঘনবসতি এলাকা ওয়ারী। এখানেই সবচেয়ে বেশি করোনায় আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেছে। এই এলাকায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের পরিমাণ ২৫ জন। সবচেয়ে বেশি সংখ্যক আক্রান্ত এলাকা হলেও এই এলাকায় কেউ নিয়মকানুন মানছেন না। করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা যে দরকার সেটাতে তারা বিন্দুমাত্র কর্ণপাত করছে না। এর অন্যতম কারণ জায়গার স্বল্পতা ও উদাসীনতা।

তবে নিজ উদ্যোগে গলিগুলো বন্ধ করে দিলেও তাতে কোনো ফল আসছে না। মানুষ নানা অজুহাতে বেড়িয়ে পরছে রাস্তায়। অনেকেই গলির মোড়ে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে পান করছেন চা। এমনি এক ব্যক্তির সঙ্গে কথা হলো- তিনি জানান, ঘরে আর কতক্ষণ বসে থাকা যায়। ঘরে তো আলো বাতাসও যায় না। এভাবে থাকতে থাকতে দম বন্ধ হয়ে যায়। একটু আলো বাতাস না লাগলে ভাল লাগে না।

ঠিক এমনি চিত্র লালবাগ এলাকাতেও দেখা গেছে। মোড়ে মাড়ে মানুষের জটলা। বেকারিগুলোতে চলছে দেধারসে কেনা বেচা। এছাড়াও ফলের দোকানসহ অন্যান্য বেশকিছু দোকান খোলা থাকতে দেখা গেছে। সাধারণ মানুষও শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে পারছে না। অথচ এই এলাকাতেই ১৮ জন করোনায় আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেছে। এর পরেও কারো মধ্যে কোনো সাবধানতা দেখা যায় নাই। ‍

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (লালবাগ বিভাগ) মুনতাসিরুল ইসলাম বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, আমরা প্রতিনিয়ত পেট্রোলিং করে যাচ্ছি। সরকারের জরুরি সেবার বাহিরে কাউকে বের হতে দেওয়া হচ্ছে না। যেসব এলাকায় করোনায় আক্রান্ত রোগী পাওয়া যাচ্ছে সেসব এলাকা লকডাউন করে দিচ্ছি।

তিনি আরো বলেন, কোথাও কেউ চায়ের দোকান খুলে আছে নাকি সেটাও যেমন দেখতে হয় ঠিক তেমনি কোথাও লাশ পরে আছে কি না সেটাও দেখতে হচ্ছে।

বাংলাদেশ জার্নাল/এনএইচ

shopno
  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত
best