ঢাকা, মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ আপডেট : ৬ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২৬ অক্টোবর ২০২০, ২০:০৯

প্রিন্ট

পুরান ঢাকা ‘নিয়ন্ত্রণে’ সেলিমের ছেলের বাসায় কন্ট্রোল রুম

পুরান ঢাকা ‘নিয়ন্ত্রণে’ সেলিমের ছেলের বাসায় কন্ট্রোল রুম
ছবি: প্রতিনিধি
নিজস্ব প্রতিবেদক

হাজী সেলিমের ছেলের বাসায় পুরান ঢাকা এলাকা ২৪ ঘণ্টা মনিটরিং করতে গড়ে তোলা হয়েছিল আধুনিক রেডিও ফ্রিকোয়েন্সিসহ অত্যাধুনিক কন্ট্রোল রুম। যেখানে ছিল আধুনিক ভিপিএস (ভার্চুয়াল প্রাইভেট সার্ভার), ৩৮টি ওয়াকিটকি, ড্রোনসহ বিভিন্ন ডিভাইস। রাষ্ট্রের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের (ভিভিআইপি) নিরাপত্তায় নিয়োজিত এলিট বাহিনীর কাছে যেসব সরঞ্জাম থাকে, সেরকম সরঞ্জাম পাওয়া গেছে এখানে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের ফাঁকি দিয়ে নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ রক্ষায় এই কন্ট্রোল রুম ব্যবহার করা হতো বলে র‌্যাবের ধারণা। বিদেশি অস্ত্র, হ্যান্ড কাফ ও মদও জব্দ করেছে র‌্যাব।

সোমবার দুপুরে পুরান ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের চকবাজারের ২৬ দেবীদাস লেনের বাসায় অভিযান চালায় র‌্যাব। ইতিমধ্যে হাজী সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী জাহিদকে র‌্যাবের হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

‘কন্ট্রোল রুমের’ বিষয়ে র‌্যাবের কর্মকর্তারা বলেন, হাজী সেলিমের আট তলা ভবনের তিন ও চার তলা থেকে এসব সরঞ্জামসহ তারা অবৈধ একটি বিদেশি পিস্তল ও একনলা বন্দুক জব্দ করেছেন। কালো ৩৮টি ওয়াকিটকি উদ্ধার করা হয়েছে। এসব ওয়াকিটকির প্রতিটি চার কিলোমিটার পর্যন্ত এলাকা কাভার করতো। এ ধরনের ওয়াকিটকি বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি’র অনুমোদন ছাড়া ব্যবহার করা নিষেধ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কর্মকর্তারা জানান, এছাড়া ওই বাসায় একটি ড্রোন, রাউটার, একটি ভার্চুয়াল প্রাইভেট সার্ভার বা ভিপিএস পাওয়া গেছে। এই ভিপিএস দিয়ে মূলত তার পুরো নেটওয়ার্কে নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ স্থাপন করতো, যাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাদের ট্র্যাক করতে না পারে। সাধারণত ভিপিএস ব্যবহারের অনুমোদন পায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বা নিরাপত্তায় নিয়োজিত বিভিন্ন সংস্থা। বিটিআরসি এই অনুমোদন দেয়। তবে হাজী সেলিম কোনও অনুমোদন নেননি।

বাসা থেকে আরও উদ্ধার করা হয়েছে- সাত বোতল বিদেশি মদ ও ১২ ক্যান বিয়ার।

এক জোড়া হ্যান্ডকাফও উদ্ধার করেছে র‌্যাব। র‌্যাবের ধারণা, এই হ্যান্ডকাফ পরিয়ে হাজী সেলিমের লোকজন র‌্যাব ও ডিবি পরিচয় দিয়ে মানুষকে ধরে নিয়ে যেত।

র‌্যাবের মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ জানান, হাজী সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী জাহিদ তাদের হেফাজতে রয়েছে।

যা ঘটেছিল:

মামলার এজাহারে বেআইনিভাবে পথরোধ, সরকারী কর্মকর্তাকে মারধর, জখম ও প্রাণনাশের হুমকি দেয়ার অভিযোগের কথা বলা হলেও স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হচ্ছে, রাস্তায় গাড়ি থেকে নেমে মোটরসাইকেল আরোহী ওই নৌবাহিনী কর্মকর্তাকে মারধর করা হয় রবিবার রাতে।

খবরে বলা হচ্ছে, তিনি সস্ত্রীক মোটরসাইকেলযোগে ফিরছিলেন। এসময় একটি গাড়ির সঙ্গে মোটরসাইকেলটির ধাক্কা লাগার পর গাড়িটি থেকে অভিযুক্তরা নেমে এসে ওই কর্মকর্তাকে মারধর করেন।

এমনকি তিনি নিজের পরিচয় দেয়ার পরও অভিযুক্তরা মারধর অব্যহত রেখেছে বলে খবরে উল্লেখ করা হয়।

গাড়িটিতে সংসদ সদস্যের স্টিকার লাগানো ছিল বলে খবরে বলা হচ্ছে।

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে এরইমধ্যে একটি ভিডিও ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে যেখানে দেখা যাচ্ছে, এক ব্যক্তি তার উপর হওয়া হামলার বর্ণনা দিচ্ছেন।

তিনি বলছেন, তাকে বিনা কারণে একতরফাভাবে আঘাতের পর আঘাত করা হয়। এতে তার একটি দাঁতও ভেঙ্গে যায়। তার স্ত্রীর গায়েও হাত তোলা হয়েছে বলে ভিডিওতে তিনি দাবি করেন। তবে, এই ভিডিওটি নিরপেক্ষভাবে যাচাই করা সম্ভব হয়নি।

বাংলাদেশের স্থানীয় গণমাধ্যমগুলোতে ভিডিওর এই ব্যক্তিকে লেফটেন্যান্ট ওয়াসিম আহমদ বলে চিহ্নিত করা হচ্ছে।

এ ব্যাপারে বক্তব্য জানতে সকালে এরফান সেলিমের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে সেটি বন্ধ পাওয়া গেছে।

হাজী সেলিমের মোবাইলে যোগাযোগ করা পর সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে অপর প্রান্ত থেকে ফোন কেটে দেয়া হয়। পরে তার নম্বরে এসএমএস পাঠানো হলেও কোন ফিরতি জবাব আসেনি।

মামলার এজাহারে যা আছে:

মামলার এজাহারে নৌবাহিনীর কর্মকর্তা বলেন, আমি ওয়াসিফ আহমদ খান (২৬), পিতা-ওয়ালিদ খান ইউসুফজাই, সাং-স্থায়ী ঠিকানা-১৩/২২, ব্লক-বি, বাবর রোড, থানা-মোহাম্মদপুর, ঢাকা। বর্তমানে লেফটেন্যান্ট পদে বাংলাদেশ নৌবাহিনী ঘাঁটি হাজী মহসীন, ঢাকা সেনানিবাস, ঢাকা-১২০৬ এ কর্মরত আছি। থানায় হাজির হয়ে বিবাদী ১. এরফান সেলিম (৩৭), পিতা-হাজি মো. সেলিম, সাং-বড় কাটারা দেবীদাস ঘাট, থানা চকবাজার, ঢাকা; ২. এবি সিদ্দিক দিপু (৪৫), পিতা+ঠিকানা-অজ্ঞাত, ৩. মো. জাহিদ (৩৫), পিতা+ঠিকানা-অজ্ঞাত, ৪. মো. মিজানুর রহমান (৩০), পিতা-মনিরুজ্জামান, সাং-আদর্শপাড়া, থানা ও জেলা-পিরোজপুর, বর্তমানে হোসেনী দালান, থানা-চকবাজার, ঢাকাসহ অজ্ঞাতনামা ২/৩ জনের বিরুদ্ধে এই মর্মে এজাহার দায়ের করিতেছি যে, গত ২৫/১০/২০২০ তারিখে আমি এবং আমার স্ত্রী আনান আদ্রিতা নীলক্ষেত থেকে পাঠ্যবই ক্রয় সমাপনান্তে ব্যক্তিগত মোটরসাইকেলযোগে কর্মস্থল বাংলাদেশ নৌবাহিনী ঘাঁটি হাজী মহসিন, ঢাকা সেনানিবাস ফেরার পথে ধানমণ্ডি ল্যাবএইড হাসপাতালসংলগ্ন এলাকায় প্রধান সড়কের ওপরে ঢাকা মেট্রো-ঘ ১১-৫৭৩৬ গাড়িটি আমার ব্যক্তিগত মোটরসাইকেলটিকে পেছন থেকে ধাক্কা দেয়। অতঃপর বর্ণিত ঢাকা মেট্রো-ঘ ১১-৫৭৩৬ গাড়িটি থেকে একজন ব্যক্তি নেমে আসলে আমি উক্ত ব্যক্তিকে আমার পরিচয় প্রদান করা সত্ত্বেও আমাকে এবং আমার স্ত্রীকে অশ্লীল এবং অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজসহ হত্যার হুমকি প্রদান করত দ্রুতগাড়িতে আরোহন করে স্থান ত্যাগ করেন।

পরবর্তীতে ঘটনাস্থল থেকে ৫০০ গজ দূরে আনুমানিক ১৯.৪৫ ঘটিকায় ল্যাবএইড হাসপাতালের বিপরীত পাশে কলাবাগান বাসস্ট্যান্ড সিগন্যালে বর্ণিত গাড়িটি দাঁড়ালে, আমি উক্ত গাড়ির বাম পাশে গিয়ে মোটরসাইকেলটি থামাই এবং জানালায় নক করি। অতঃপর উক্ত গাড়ির সব আরোহী গাড়ি থেকে নেমে আসলে পুনরায় আমার পরিচয় প্রদান করি। এতদ্বসত্ত্বেও বর্ণিত গাড়ির সব আরোহী আমার উদ্দেশে বলেন যে, ‘তোর নৌবাহিনী সেনাবাহিনী বাএর করতেছি, তোর লেফটেন্যান্ট/ক্যাপ্টেন বাএর করতেছি, তোকে এখনই মেরে ফেলব।’ এরপর বর্ণিত গাড়ির সব আরোহী পথরোধ করে আমার ওপর অতর্কিতে হামলা করে শরীরের বিভিন্ন অংশে কিল-ঘুষি এবং লাথি মেরে রাস্তায় ফেলে দিয়ে অনবরত আঘাত করে আমাকে রক্তাক্ত করেন। একই সময় আমার স্ত্রী আমাকে রক্ষা করতে গেলে তাঁকেও ধাক্কা দেয় এবং এবং শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে দ্রুত উক্ত স্থান ত্যাগ করে। আমি মাটিতে রক্তাক্ত ও আহত হয়ে পড়ে থাকা অবস্থায় সাধারণ জনগণ ও পাশের সিগন্যালে ডিউটিরত পুলিশ আমাকে উদ্ধার করেন এবং ড্রাইভারসহ গাড়িটি আটক করেন।

এ সময় সাধারণ জনগণ মোবাইলে ভিডিও ধারণ করতে থাকেন। উক্ত সময়ে বর্ণিত গাড়ির একজন আরোহীর ব্যক্তিগত আইডি কার্ডসহ অন্যান্য আক্রমণকারীদের ছবি তুলতে সক্ষম হই। উক্ত ব্যক্তিগত আইডি কার্ডের মাধ্যমে জানতে পারি জনৈক ব্যক্তি ২ নম্বর বিবাদী এবি সিদ্দিক দিপু, প্রটোকল অফিসার হিসেবে মদিনা গ্রুপে কর্মরত। তা ছাড়া আমাকে এবং আমার স্ত্রীকে আক্রমণকারী সাদা পাঞ্জাবি পরিহিত ব্যক্তিকে শনাক্ত করতে সক্ষম হই, যিনি ঢাকা-৭ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য হাজি মো. সেলিমের পুত্র ১ নম্বর বিবাদী এরফান সেলিম (কাউন্সিলর ৩০ নম্বর ওয়ার্ড, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন, ঢাকা)। পরবর্তীতে বর্ণিত গাড়িতে থাকা ড্রাইভার ব্যতীত সবাই পালিয়ে যায় এবং ওই সিগন্যালে ডিউটিরত পুলিশ ধানমণ্ডি মডেল থানার অফিসার ফোর্স আমাকে উদ্ধার করে আনোয়ার খান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার জন্য নিয়ে যান।

পরবর্তীতে আমার ইউনিট কর্তৃপক্ষ সংবাদ পেয়ে আমাকে চিকিৎসার জন্য সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে প্রেরণ করেন। একই সঙ্গে টহলরত পুলিশ বর্ণিত গাড়ি ঢাকা মেট্রো-ঘ ১১-৫৭৩৬ এর চালককে হেফাজতে নেন। উক্ত ড্রাইভারকে তার নাম জিজ্ঞাসাবাদ করলে তিনি নিজের ও বিবাদীদের উপরোল্লিখিত নাম-ঠিকানা প্রকাশ করেন। অপর একজন আক্রমণকারী ৩ নম্বর বিবাদী ১ নম্বর বিবাদীর ব্যক্তিগত দেহরক্ষী মো. জাহিদের নামও উক্ত ঘটনার সময় উপস্থিত আক্রমণকারী হিসেবে উল্লেখ করেন। বিষয়টি আমার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সহিত আলোচনা করে এজাহার দায়ের করতে বিলম্ব হলো।

বাংলাদেশ জার্নাল/এইচকে

অন্যরা যা পড়ছেন:

> হাজী সেলিমের গাড়িচালক রিমান্ডে

> এমপি হাজী সেলিমের ছেলে গ্রেপ্তার

> এরফানের ১ বছরের কারাদণ্ড

> সেলিমপুত্রের বারান্দায় ‘সোনার’ দূরবীণ

> হাজী সেলিমের ছেলের বাসায় টর্চার সেল!

> এরফান সেলিমের বাসা থেকে অস্ত্র উদ্ধার

> ৪ আসামিকে খুঁজছে পুলিশ

> মারধর, এমপি পুত্রের নামে মামলা​

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত