ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ৩০ বৈশাখ ১৪২৮ আপডেট : ১ মিনিট আগে

প্রকাশ : ১৭ এপ্রিল ২০২১, ০৮:৪৭

প্রিন্ট

ট্রাক-পিকআপ সংঘর্ষে নিহত ২

ট্রাক-পিকআপ সংঘর্ষে নিহত ২
ফাইল ছবি

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি

সাতক্ষীরার তালা উপজেলায় ট্রাক ও পিকআপের মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে দুইজন নিহত এবং ২২ জন আহত হয়েছেন।

শনিবার ভোরে উপজেলার সাতক্ষীরা-খুলনা মহাসড়কের শুভাষিনী কলেজের পাশে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

আহতদের উদ্ধার করে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, সদর হাসপাতালসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

নিহতরা হলেন, সাতক্ষীরার কালীগঞ্জ উপজেলার জাফরপুর গ্রামের আবু বক্কর কারিকরে ছেলে মুন্না কারিকর (৩৫) ও একই গ্রামের বাহার আলী গাজীর ঘরজামাই ও আশাশুনি উপজেলার বড়দল গ্রামের শফিকুল ইসলাম (৫০)।

আহতরা হলেন- কালীগঞ্জ উপজেলার জাফরপুর গ্রামের মহাতাবউদ্দিন (৫০), একই গ্রামের মফেল মোল্লা (৬০), বাবর আলী (৫২), একই উপজেলার তারালী গ্রামের কুষ্ণপদ মন্ডল(২৭), খুলনা জেলার পাইকগাছা উপজেলার শ্রীকন্ঠপুর গ্রামের মোঃ আব্দুস সালাম সানা (৫০), তার মেয়ে ফাতেমা (১৭), সাতক্ষীরা সদরের বাউখোলা গ্রামের আসাদুল ইসলাম, কালীগঞ্জ উপজেলার জাফরপুর গ্রামের শাহজামাল(২৫), একই গ্রামের মামুন হোসেন (১৭), ইউনুছ আলী (৩৫), সুমন হোসেন (২১), আব্বাস আলী বিশ্বাস (৬০) ও মোঃ আশরাফুল ইসলাম (১৮)।

তাদেরকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যান্যদের পরিচয় জানা যায়নি।

সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন কৃষ্ণপদ মন্ডলের শ্বশুর বিশ্বনাথ মন্ডল জানান, গত ৩ এপ্রিল স্থানীয় এক শ্রমিক সরদারের মাধ্যমে জামাতা কৃষ্ণপদ মন্ডলসহ এলাকার ২৮ জন মাদারীপুরে এক ঠিকাদারের রাস্তার কাজ করতে যায়। করোনা পরিস্থিতির কারণে কাজ বন্ধ থাকায় তারা ২৪ জন একসাথে একটি পিকআপে বাড়ি ফিরছিলেন।

শনিবার ভোরে তাদের বহনকারি পিকআপটি তালা উপজেলার সুভাষিনি কলেজের কাছে আসলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি দ্রুতগামী ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি ধাক্কা লাগে। এতে পিকআপটি বিলের মধ্যে পড়ে গিয়ে ঘটনাস্থলেই শফিকুল ও মুন্নার মৃত্যু হয়।

ঘটনাস্থল থেকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ১৩ জনকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতাল ও নয়জনকে স্থানীয় বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। সদর হাসপতালে চিকিৎসাধীন মহাতাবউদ্দিন, মফেল, বাবর আলী, আব্দুস সালাম সানা ও কৃষ্ণপদ মন্ডলকে শনিবার সকালে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ডাঃ রওশান গাইন জানান, পাঁচজনের প্রচন্ড বমি হওয়ায় তাদেরকে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। বাকী আটজনের স্বজনরা করোনার ভয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে না জানিয়েই কৌশলে বাড়িসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে স্থানান্তর করেছে।

তালা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মেহেদী রাসেল জানান, নিহত দু’জনের লাশ চুকনগর হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়িতে রয়েছে। লাশ থানায় আনার জন্য পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

বাংলাদেশ জার্নাল/এনএইচ/আর

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত