ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬ আপডেট : ৩ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৯ জুলাই ২০১৯, ১৮:২৩

প্রিন্ট

খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানি সংকটে বানভাসিরা

খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানি সংকটে বানভাসিরা
নওগাঁ প্রতিনিধি

নওগাঁয় বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। জেলার প্রধান দুই নদী আত্রাই ও ছোট যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। মান্দা উপজেলার বনকূড়া এলাকায় আত্রাই নদীর বাঁধ ভেঙ্গে বন্যা ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। শুক্রবার সকালে রানীনগর উপজেলার মালঞ্চি নামক স্থানে ছোট যমুনা নদীর বেড়ি বাঁধ ভেঙ্গে ৪টি গ্রাম ডুবে গেছে।

প্রতিনিয়ত নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়ছেন হাজারো মানুষ। বন্যা কবলিত এলাকায় খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সঙ্কট দেখা দিয়েছে। এছাড়া দেখা দিয়েছে গবাদিপশুর খাদ্য সংকট।

পানির তোড়ে রাস্তা ভেঙে বিভিন্ন উপজেলার সঙ্গে ইউনিয়ন পর্যায়ে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। পানির নিচে তলিয়ে গেছে ফসলি জমি। বন্যার পানিতে ভেসে গেছে পুকুরের মাছ। পানি ঢুকে বহু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠদান বন্ধ রয়েছে। বানভাসিদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

স্থানীয় লোকজন জানান, পানির তোরে বাঁধের ভাঙ্গন বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রায় ৩শ ফুট ভাঙ্গা অংশ দিয়ে প্রবল স্রোতে ডুবে যাচ্ছে বসত বাড়ি ও ফসলের মাঠ । এরইমেধ্যে মান্দা উপজেলার নুরুল্যাবাদ, কসব, বিষ্ণপুরসহ ৪টি ইউনিয়নের প্রায় ২৫টি গ্রামে ডুবে গেছে।

এছাড়া পাশের আত্রাই উপজেলার হাটকালুপাড়া, বান্দায়খাড়া ও নাটোর জেলার শিংড়া উপজেলার নিম্নাঞ্চলে বন্যার পানি প্রবেশ করছে। ওইসব এলাকার গ্রামগুলোতে বসবাসকারীরা পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

সরেজমিন দেখা যায়, জীবন বাঁচাতে বানভাসিরা বাড়ি ঘরের আসবাবপত্র ও গবাদি পশু ফেলে উচু স্থানে আশ্রয় নিয়েছেন। দুর্গত এলাকার মানুষ উচু স্থান, বিদ্যালয়ের ছাদ ও বাঁধের ওপর আশ্রয় নিয়ে কোন মতে বসবাস করছেন।

বানভাসিদের অভিযোগ, কয়েক দিন অতিবাহিত হলেও সরকারিভাবে এখনও ত্রাণ সহায়তা দেওয়া হয়নি। তাই অনেকেই খেয়ে-না খেয়ে দিন পার করছেন। খাবার ও বিশুদ্ধ খাবার পানি দ্রুত সরবরাহের জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন তারা।

নওগাঁর জেলা প্রশাসক হারুন অর রশিদ জানান, বন্যা কবলিত এলাকায় ত্রাণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এরই মধ্যে ৪শ পরিবারকে শুকনা খাবার, চাল, ডাল ও তেলসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সরবরাহ করা হয়েছে। প্রয়োজন মত আরো সরবরাহ করা হবে। দ্রুতই বন্যার পানি কমতে শুরু করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

বাংলাদেশ জার্নাল/এনকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত
close
close