ঢাকা, সোমবার, ০৮ মার্চ ২০২১, ২৩ ফাল্গুন ১৪২৭ আপডেট : ৩ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২৩ জানুয়ারি ২০২১, ২১:০৬

প্রিন্ট

ডিএনসিসি-ভারতীয় দূতাবাসের প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচ অনুষ্ঠিত

ডিএনসিসি-ভারতীয় দূতাবাসের প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচ অনুষ্ঠিত
ছবি: প্রতিনিধি

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন এবং বাংলাদেশের ভারতীয় দূতাবাসের মধ্যকার এক প্রীতি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকাল সাড়ে নয়টায় রাজধানীর মোহাম্মদপুরের ইকবাল রোডে উদয়াচল পার্কের খেলার মাঠ এটি অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে মাঠটি উদ্বোধন করা হয়।

উদ্বোধনকালে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ডিএনসিসি মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলাম বলেন, বঙ্গবন্ধু এবং তাঁর পরিবার ছিলেন ক্রীড়াপ্রেমী। খেলা-পাগল তার পরিবার। তাদের কাছ থেকে উদ্বুদ্ধ হয়ে ডিএনসিসির বিভিন্ন এলাকায় মাঠ ও পার্ক উন্নয়ন করে যাচ্ছি। এই পার্কটি তারই ধারাবাহিকতা।

মেয়র শৈশবের স্মৃতিচারণ করে বলেন, “আমরা যখন ছোট ছিলাম, ক্রিকেট খেলার জন্য আশেপাশের ঘরে-ঘরে গিয়ে চাঁদা তুলে ব্যাট কিনেছি, প্যাড কিনেছি। তখন আমাদের জন্য একটি ব্যাট, একটি প্যাড অনেক টাকা, অনেক দাম ছিল। তবে তখন এক ধরনের সামাজিক বন্ধন ছিল। এই সামাজিক বন্ধন দিন দিন হারিয়ে যাচ্ছে। আমরা এখন একটি অ্যাপার্টমেন্টে, চার দেয়ালের মধ্যে বন্দী হয়ে গিয়েছি। আমাদের সামাজিকতা কমে যাচ্ছে। ভালোবাসার বন্ধন কমে যাচ্ছে। আমাদের সামাজিক বন্ধন আরো দৃঢ় করতে হবে। আমরা যেন পাড়া উৎসব করতে পারি, খেলাধুলা করতে পারি। এর মাধ্যমে সামাজিক বন্ধন দৃঢ় হয়। এজন্য আমি এই মাঠটি এই এলাকার জনগণকে দিতে চাই। এখানে ছোট-বড়, ধনী-দরিদ্র, নারী-পুরুষ, সকল শ্রেণী-পেশার মানুষ এসে খেলতে পারবেন। এই মাঠ সকলের।

আতিকুল ইসলাম আরো বলেন, ঢাকা শহরকে উন্নয়ন করতে হবে - এটা আমাদের সকলের প্রত্যাশা। কিন্তু যেখানেই হাত দিচ্ছি, সেখানেই অবৈধ দখলদারকে দেখতে পাচ্ছি। খাল, মার্কেট, রাস্তাঘাট, মাঠ সর্বত্র অবৈধ দখলদার। পরবর্তী প্রজন্মের জন্য আমাদেরকে সুন্দর খেলার মাঠ, সুন্দর খাল, রাস্তাঘাট রেখে যেতে হবে। আমাদের দায়িত্ব হচ্ছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে সর্বোচ্চ সহযোগিতা করা”।

মেয়র বলেন, “ডিএনসিসির থেকে দশটি ক্রিকেট খেলার মাঠ আমরা করে দিচ্ছি। কিছু কিছু মাঠ আন্তর্জাতিক মানের হবে। মাঠে ক্রিকেটের পাশাপাশি অন্যান্য খেলাধুলাও করা যাবে। এই মাঠে বর্ষায় যাতে খেলা যায়, এজন্য পানি নিষ্কাশনের ভালো ব্যবস্থা রয়েছে; ব্যায়ামাগারের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। প্রতিবন্ধীদের জন্য বিশেষ টয়লেটের ব্যবস্থা আছে। অন্তর্ভুক্তিমূলক শহর করাই আমাদের লক্ষ্য”।

মেয়র আরো বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা এদেশের জন্য প্রাণ দিয়েছেন। আমাদের প্রাণ দিতে হবে না, খেলার-মাঠ যেন আমরা দখল না করি, খাল যেন ময়লা না করি, যেন অবৈধভাবে দখল না করি। মোহাম্মদপুরে মোট আটটি মাঠ হবে। ডিএনসিসির কোথাও খাস জমি থাকলে সেখানে খেলার মাঠ তৈরি করা হবে। যত বেশি খেলার মাঠ হবে, আমাদের শিশুরাও তত বেশি খেলতে পারবেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের রাষ্ট্রদূত বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন এমপি, এবং স্থানীয় সংসদ সদস্য মোঃ সাদেক খান এমপি বক্তব্য রাখেন। এছাড়া স্থপতি ইকবাল হাবিব, ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সেলিম রেজা, ওয়ার্ড কাউন্সিলর সৈয়দ হাসান নূর ইসলাম রাষ্টন, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর শাহীন আক্তার সাথী উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন।

অনুষ্ঠান শেষে ডিএনসিসি বনাম ভারতীয় হাইকমিশনের মধ্যে উদয়াচল মাঠে এক প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। টুয়েন্টি-টুয়েন্টি এই ম্যাচে ডিএনসিসি ১৭২ রানে ভারতীয় হাইকমিশনকে হারায়। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ডিএনসিসি ৫ উইকেট হারিয়ে ৩০০ রান করে। ডিএনসিসি দলের ইমন ১০৫ রান এবং আল আমিন ১০১ রান করে। জবাবে ভারতীয় হাইকমিশন ১৩ ওভার ব্যাট করে ১২৮ রান করে অল আউট হয়ে যায়।

বাংলাদেশ জার্নাল/আর/এসটিআর

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত