ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৩ আশ্বিন ১৪২৭ আপডেট : ২ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২২ জানুয়ারি ২০২০, ১৯:৩৩

প্রিন্ট

হলুদের স্বর্গরাজ্যে অপরূপ সৌন্দর্য

হলুদের স্বর্গরাজ্যে অপরূপ সৌন্দর্য
সৈয়দ মেহেদী হাসান

ভোরের বিন্দু বিন্দু শিশির তখন হলুদ ফুলের শরীরজুড়ে। সূর্য ওঠার সঙ্গে সঙ্গে মুক্তার মতো ঝিকমিকে শিশির কণা গড়িয়ে নামে। সকালের রোদে ঝলমল করতে থাকে মাঠভর্তি হলুদ সরিষা ফুল। যতদূর চোখ যায় কেবল হলুদ আর হলুদ। যেন সবুজ মাঠজুড়ে আগুন লেগেছে!

ধীরে ধীরে বেলা গড়িয়ে নামে বিকেল। বিকেলের ‘কন্যাসুন্দর’ আলোয় হলুদ ফুলগুলোর রূপ যেন আরেকটু খোলে। মিষ্টি বাতাসে দুলে দুলে ওঠে ফুলের ডগা। ফিরে আসতে শুরু করে শিশিরের দল। জমিয়ে বসে ফুলে।

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান প্রধান রাস্তা থেকে এই সরিষা ফুলের মাতাল করা ঘ্রাণের মাঝে এগিয়ে গেলেই দেখা যায়, খেতের মাঝে কয়েক ডজন চার কোনাকৃতি কাঠের বাক্স।

খেয়াল করলে দেখা যাবে প্রতিটি বাক্সের গায়ে ৪৯, ৫০, ৫৩... নম্বর লেখা। বাক্সের চারপাশে মৌমাছি ঘুরে বেড়াচ্ছে। দেখলে মনে হবে কে যেন হলুদ শাড়ি পড়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

মৌমাছির ভন ভন শব্দে মনে হবে প্রকৃতি কন্যার বিয়ের সানাইয়ের সুর তুলেছে এরা!

ইতিমধ্যে সরিষা থেকে মৌমাছির সাহায্যে বাংলাদেশের বিখ্যাত মধু সংগ্রহকারী বিএসটিআইয়ের অনুমতি প্রাপ্ত ও জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত মধুমতি মৌচাষ প্রকল্পের সদস্যরা মধু সংগ্রহ শুরু করেছেন করেন। তারা দেশের বিভিন্ন জায়গায় মধু সরবারহ করে থাকেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জানান, সরিষার চাষ একটি লাভজনক পেশা। একদিকে যেমন সরিষার পরাগায়ন বাড়ায়, তেমনি সরিষার ১০ ভাগ ফলন বাড়ায়।

এদিকে খাঁটি মধু কেনার জন্য ঢাকাসহ বিভিন্ন অঞ্চল থেকেও মধু কিনতে লোকজন আসছে মধুমতি মৌচাষ প্রকল্পের জমিতে।

বাংলাদেশ জার্নাল/এইচকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত