ঢাকা, শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল ২০২১, ৩ বৈশাখ ১৪২৮ আপডেট : ৩৫ মিনিট আগে

প্রকাশ : ০৮ এপ্রিল ২০২১, ১৭:৪২

প্রিন্ট

পুষ্টিগুণে ভরা বেল

পুষ্টিগুণে ভরা বেল

জার্নাল ডেস্ক

আমাদের দেশে জনপ্রিয় ফল হিসেবে বেশ পরিচিত বেল। এই গরমে শরীরকে ঠাণ্ডা রাখাসহ বেলের রয়েছে অনেক স্বাস্থ্য গুণাগুণ। প্রচণ্ড গরমের দাবদাহে একটু বেলের সরবত খেলে যেন প্রাণ জুড়িয়ে যায়। ক্লান্তি দূর করা কিংবা বিভিন্ন রোগের উপসম ঘটাতে বেলের জুড়ি নেই। বেলগাছের ছাল, পাতা, ফুল সবকিছুই ওষুধ হিসাবে ব্যাবহার করা হয়।

বেল কাঁচা পাকা দুটোই সমান উপকারী, কাঁচা বেল ডায়রিয়া ও আমাশয় রোগের জন্য খুব উপকারী এবং পাকা বেলের সরবত খুবই সুস্বাদু। বেল দেহের নানা ধরনের রোগ থেকে মুক্তি দিয়ে থাকে। বেলে রায়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, ভিটামিন এ, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস ও পটাশিয়াম। বেল আমাদের দেহের জন্য অনেক উপকারী। চলুন জেনে নেয়া যাক বেলের পুষ্টিগুণ সম্পর্কে অজানা কিছু তথ্য।

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে

পাকা বেলের সরবত খুব উপকারি পেট পরিষ্কার করার জন্য। আমরা সবাই সেই ছোট থেকে শুনে আসছি, কোষ্ঠকাঠিন্যর সমস্যায় পাকা বেলের সরবত খুব উপকারি ভূমিকা রাখে। কেউ যদি নিয়মিত বেলের সরবত খান তাহলে দু তিন মাসের মধ্যেই তার কোষ্ঠকাঠিন্যর এই সমস্যা আর থাকবেনা। আর কোষ্ঠকাঠিন্যর জন্য যে পেট ব্যাথা হয় তাও রোধ করে এই বেল। এছাড়াও কাঁচা বেল খেলে তা ডায়রিয়া ও আমাশয় রোগ সারাতেও অনেক কাজ করে।

হজম শক্তি বৃদ্ধি করে

গরমের সময় আমাদের সবার প্রায়ই বদহজম, গ্যাস, অম্বল, পেট ব্যাথা এসব সমস্যা লেগেই থাকে। বেলের সরবত খুবই উপকারি এসব সমস্যা থেকে রেহাই পেতে। খাবার হজম হতে সাহায্য করে বেল। আবার পেট ঠাণ্ডা রাখতেও সাহায্য করে এই ফলটি। ফলটি হজম প্রক্রিয়াকে উন্নত করে বলে গ্যাস, অম্বল, বমির মত সমস্যা সহজে হয় না। তাই ফরমের সময় রোজ বেলের সরবত খেলে এসব সমস্যা থেকে সহজেই বেঁচে থাকা যায়।

ঠান্ডার সমস্যা প্রতিরোধ করে

বেলে রয়েছে ঠান্ডা জাতীয় সমস্যা প্রতিরোধী উপাদান। তাই কারও সর্দি জ্বর হলে এক চামচ বেলপাতার রস খাওয়ালে দ্রুত সর্দি ও জ্বরভাব কেটে যায়। এছাড়া বেলপাতার রস ঠাণ্ডা ও ক্রনিক করার জন্যও অনেক উপকারী।

ক্যান্সার প্রতিরোধ করে

ক্যান্সার প্রতিরোধক বিশেষ ভূমিকা রাখে বেল, কারণ এতে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টর গুণাগুণ। এছাড়াও রয়েছে স্তন ক্যান্সার, কোলন ক্যান্সার ও জরায়ু ক্যান্সার রোধে বিশেষ ভূমিকা। মানবদেহের টিউমার কোষের বৃদ্ধি রোধ করে বেল থেকে পাওয়া বেটাক্যারোটিন। তাই বিশেষ করে মহিলারা নিয়মিত বেল বা বেলের শরবত খেলে ক্যান্সার ও জরায়ু ক্যান্সারের ঝুঁকি থেকে দূরে থাকতে পারেন।

গ্যাসট্রিক ও আলসার প্রতিরোধ করে

প্রচুর পরিমাণে আঁশ থাকায় হজম প্রক্রিয়াকে উন্নত করে বেল। এর ফলে পেটে গ্যাসের সমস্যা তেমন হয় না। তাই নিয়মিত বেল খেলে গ্যাসট্রিক, আলসারসহ পেটে গ্যাসজনিত ব্যাথা জাতীয় সমস্যা থেকে সহজেই মুক্ত থাকা যায়।

কিডনি সুস্থ রাখে

কিডনি ভালো রাখতে বেল গুরুত্বপুর্ণ ভূমিকা রাখে। বেলে আছে এমন কিছু উপকারী উপাদান যা কিডনিকে ডিটক্সিফাই করতে সাহায্য করে। ফলে দেহ বিভিন্ন প্রকার অসুখ থেকে কিডনিকে মুক্ত থাকে। এজন্য কিডনির সমস্যা দেখা দিলে ডাক্তারগণ রোগীকে বেল খেতে বলে থাকেন।

ত্বক ভালো রাখে

বেলে প্রচুর পরিমানে খাদ্য আঁশ থাকে যা ত্বকের জন্যও খুব উপকারি। নিয়মিত বেল খেলে তা ত্বককে মসৃণ রাখতে সহায়তা করে। এছাড়া এটি ব্রনের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে।

ব্লাড প্রেসার কমায়

যাদের ব্লাড প্রেসারের সমস্যা আছে তারা প্রতিদিন বেলের সরবত খেতে পারেন। ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণে রাখতে বেলের জুড়ি নেই। কাজেই নিয়মিত বেল খান। শরীর ও মন সুস্থ রাখুন।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে

বেল রক্তকে পরিষ্কার রাখা ছাড়াও রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক রাখতে ভূমিকা রাখে। ফলটি খেলে তা শরীর থেকে টক্সিন দূর করে শরীরকে পরিষ্কার রাখতে ভূমিকা রাখে। বেলে রয়েছে ভিটামিন সি যা দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক বাড়িয়ে দেয়। এছাড়াও গ্রীষ্মকালে অনেক সময় অনেক ছোঁয়াচে রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। এসব ছোঁয়াচে রোগ মোকাবেলায় বেলের ভূমিকা অনস্বীকার্য।

এনার্জি বাড়ায়

এনার্জি বাড়াতে বেলের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ১০০ গ্রাম বেল ১৪০ ক্যালোরি এনার্জি দেয়। এ ছাড়াও এটি মেটাবলিক স্পিড বাড়ায়।

বাংলাদেশ জার্নাল/এনআর

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত